Download App
Domain/Hosting
Bangla InfoHub

আরো দেখুন...

9 টি মন্তব্য

  1. 4

    Md mahedi hasan bulbul

    আসসালামু আলাইকু, হাদিস এর রেফারেন্সগুলি কিভাবে খুজতে হবে । আপনাদের সাইড থেকে ডাউনলোড করা মুসলিম শরিফের থেকে তো হাদিস নাম্বারের মিল পাচ্ছি না। যেমন ঘরে নামাজের আজানের রেফারেন্স এর মুসলিম শরিফের হাদিস নং দেয়া আছে তার সাথে মুসলিম শরিফের হাদিস মিলছে। দয়াকরে জানাবেন আশাক।

    Reply
  2. 3

    Faisal Omar

    আপনি কিন্তু মিথ্যাচারের আশ্রয় নিয়েছেন ঝড় তুফান আর মহামারী কি এক জিনিস

    Reply
    1. 3.1

      সম্পাদক

      প্রশ্নের উত্তরে বিস্তারিত বলা হয়েছে। ভিত্তিহীনভাবে মিথ্যাচারের অভিযোগ না করে আপনার কাছে এর চেয়ে ভালো বা বিশুদ্ধ উত্তর থাকলে কমেন্টে জানাতে পারেন।

      Reply
  3. 2

    আপনার জিজ্ঞাসা

    দলীল ভিত্তিক উত্তরের জন্যে আপনাকে আল্লাহ্‌ উত্তম প্রতিদান দান করুক।

    Reply
    1. 2.1

      Faisal Omar

      ঝড় তুফান আর মহামারী কি এক জিনিস ❓ কিসের দলিল ভিত্তিক কথা হল এখানে ❗ দলীল হল ঝড় তুফানের শীতের আর প্রয়োগ করছেন মহামারীর। সাহাবীরা কি এই হাদিস পাননি❓ তারা কি মহামারি’র সময় জুমার সালাত জামাত ছেড়ে দিয়েছেন❓ জামাতে অন্য নামাজ ছেড়ে দিয়েছিলেন কি❓কিসের ভেতর কি পান্তা ভাতে ঘি।

      Reply
  4. 1

    Nazmul

    বুখারী হাদিস ৯০১,৬৩২ এই ধরনের কোন হাদিস তো নেই,দয়া করে হাদিসের ভুল ব্যাখ্যা দিবেন না।

    বুখারী হা/৯০১ : আবূল ইয়ামান (রহঃ) … আবদুল্লাহ ইবনু উমর (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, বাজারে বিক্রি হচ্ছিল এমন একটি রেশমী জুব্বা নিয়ে উমর (রাঃ) নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কাছে এসে বললেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ! আপনি এটি কিনে নিন। ঈদের সময় এবং প্রতিনিধি দলের সংগে সাক্ষাতকালে এটি দিয়ে নিজেকে সজ্জিত করবেন। তথন নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাকে বললেনঃ এটি তো তার পোষাক, যার (আখিরাতে) কল্যাণের কোন অংশ নেই। এ ঘটনার পর উমর (রাঃ) আল্লাহর যত দিন ইচ্ছা ততদিন অতিবহিত করলেন।

    তারপর নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার নিকট একটি রেশমী জুব্বা পাঠালেন, উমর (রাঃ) তা গ্রহন করেন এবং সেটি নিয়ে নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কাছে এসে বললেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ! আপনি তো বলেছিলেন, এটা তার পোষাক যার (আখিরাতে) কল্যাণের কোন অংশ নাই। অথচ আপনি এ জু্ব্বা আমার নিকট পাঠিয়েছেন। তখন নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাকে বললেনঃ তুমি এটি বিক্রি করে দাও এবং বিক্রয়লব্ধ অর্থে তোমার প্রয়োজন মিটাও।

    Reply
    1. 1.1

      সম্পাদক

      এটা মূল হাদীছ গ্রন্থের রেফারেন্স। সব প্রকাশনীর সাথে মিলবে না।

      Reply
      1. 1.1.1

        Nazmul

        ভাই ই ফা বা এই কত নাম্বার হাদিস? সব রেফারেন্স দিবেন please ….কারন লোকজনের সাথে এইসব নিয়া ফেতনা হয় যখন এক প্রকাশনী দেখা হয়। আপনারা অন্তত ই ফা বা এর রেফারেন্স দিবেন।

        আর আমাকে একটু ই ফা বা এর রেফারেন্স দিবেন please….

        Reply
    2. 1.2

      Abdul Khaleque

      গ্রন্থ:সহীহ বুখারী (ইফাঃ) / হাদিস নাম্বার: 855

      ১১/ জুমু’আ (كتاب الجمعة) / ৫৬৮. বৃষ্টির কারণে জুমু’আর সালাতে হাযির না হওয়ার অবকাশ ।

      ৮৫৫। মুসাদ্দাদ (রহঃ) … ইবনু আব্বাস (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি তাঁর মুয়ায্‌যিনকে এক বর্ষণ মুখর দিনে বললেন, যখন তুমি (আযানে) ‘আশহাদু আন্না মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ’ বলবে, তখন ‘হাইয়া আলাস সালাহ’ বলবে না, বলবে, ‘সাল্‌লু ফী বুয়ুতিকুম’- তোমরা নিজ নিজ বাসগৃহে সালাত (নামায/নামাজ) আদায় কর। তা লোকেরা অপছন্দ করল। তখন তিনি বললেনঃ আমার চাইতে উত্তম ব্যাক্তই (রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) তা করেছেন। জুমু’আহ নিঃসন্দেহে জরুরী। আমি অপছন্দ করি যে, তোমাদেরকে মাটি ও কাদার মধ্য দিয়ে যাতায়াত করার অসুবিধায় ফেলি।

      Narrated Muhammad bin Seereen: On a rainy day Ibn Abbas said to his Mu'adh-dhin, "After saying, 'Ash-hadu anna Muhammadan Rasulullah' (I testify that Muhammad is Allah's Messenger (ﷺ)), do not say 'Haiya 'Alas-Salat' (come for the prayer) but say 'Pray in your houses'." (The man did so). But the people disliked it. IbnAbbas said, “It was done by one who was much better than I (i.e. the Prophet (p.b.u.h) ). No doubt, the Jumua prayer is compulsory but I dislike to put you to task by bringing you out walking in mud and slush.”
      حدثنا مسدد، قال حدثنا إسماعيل، قال أخبرني عبد الحميد، صاحب الزيادي قال حدثنا عبد الله بن الحارث ابن عم، محمد بن سيرين قال ابن عباس لمؤذنه في يوم مطير إذا قلت أشهد أن محمدا رسول الله‏.‏ فلا تقل حى على الصلاة‏.‏ قل صلوا في بيوتكم‏.‏ فكأن الناس استنكروا، قال فعله من هو خير مني، إن الجمعة عزمة، وإني كرهت أن أخرجكم، فتمشون في الطين والدحض‏.‏

      حَدَّثَنَا مُسَدَّدٌ، قَالَ حَدَّثَنَا إِسْمَاعِيلُ، قَالَ أَخْبَرَنِي عَبْدُ الْحَمِيدِ، صَاحِبُ الزِّيَادِيِّ قَالَ حَدَّثَنَا عَبْدُ اللَّهِ بْنُ الْحَارِثِ ابْنُ عَمِّ، مُحَمَّدِ بْنِ سِيرِينَ قَالَ ابْنُ عَبَّاسٍ لِمُؤَذِّنِهِ فِي يَوْمٍ مَطِيرٍ إِذَا قُلْتَ أَشْهَدُ أَنَّ مُحَمَّدًا رَسُولُ اللَّهِ‏.‏ فَلاَ تَقُلْ حَىَّ عَلَى الصَّلاَةِ‏.‏ قُلْ صَلُّوا فِي بُيُوتِكُمْ‏.‏ فَكَأَنَّ النَّاسَ اسْتَنْكَرُوا، قَالَ فَعَلَهُ مَنْ هُوَ خَيْرٌ مِنِّي، إِنَّ الْجُمُعَةَ عَزْمَةٌ، وَإِنِّي كَرِهْتُ أَنْ أُخْرِجَكُمْ، فَتَمْشُونَ فِي الطِّينِ وَالدَّحْضِ‏.‏

      হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)

      Reply

মন্তব্য করুন

© ২০১১-২০ ইসলামিক অনলাইন মিডিয়া