অধিকার ও মর্যাদা

মানবাধিকার ও ইসলাম: আইনের দৃষ্টিতে সমতা

আইনের দৃষ্টিতে সমতা (equality before law) :

জাতিসংঘ মানবাধিকার সনদ : Article-2 :

Everyone is entitled to all the rights and freedoms set forth in this Declaration, without distinction of any kind, such as race, colour, sex, language, religion, Political or other opinion, national or social origin, property, birth or other status.

Furthere more, no distinction shall be made on the basis of political, Jurisdictional or international status of the country or territory to which a person belongs, whether it be independent, trust, non-self, governing or under any other limitation of sovereignty.[8]

‘সকল প্রকার ভেদাভেদ ছাড়াই প্রত্যেকে এ ঘোষণার প্রেক্ষিতে সব ধরনের অধিকার ও স্বাধীনতা ভোগের অধিকারী। এতদ্ব্যতীত স্থান কাল পাত্র ভেদে কোন প্রকার ভেদাভেদ করা যাবে না (অনুচ্ছেদ ২)

অর্থাৎ এখানে বলা হয়েছে যে, মানুষ জন্মের পর পৃথিবীতে জাতি, বর্ণ, ধর্ম মতে সকলে সমান। কোন বিষয়ে পার্থক্য বা কম-বেশী করা যাবে না বা শ্রেণীভেদ করা যাবে না সে যে জাতিরই হোক না কেন।

ইসলামের আলোকে বিশ্লেষণ : জাতিসংঘের উপরোক্ত অনুচ্ছেদের আলোচনা বহু পূর্বে ইসলামে সংরক্ষিত রয়েছে। কেননা ইসলাম বিশ্বমানবতার এক মহাসনদ, যেখানে জাতি, বর্ণ, গোত্র ভেদ, উচু-নিচু বলে কোন পরিচয় নেই। এ মর্মে পৃথিবীর সকল মানুষ একই ভ্রাতৃত্ব বন্ধনে আবদ্ধ এবং আইনের দৃষ্টিতে সকলে সমানভাবে তার অধিকার ভোগ করবে। এ সম্পর্কে পূর্বে কিছু আলোচনা করা হয়েছে। যেমন সূরা হুজুরাতের ১৩ নং আয়াতে উল্লেখ করা হয়েছে- ‘হে মানব! আমি তোমাদের এক পুরুষ এবং এক নারী হতে সৃষ্টি করেছি এবং বিভক্ত করেছি বিভিন্ন জাতি ও গোত্রে যেন তোমরা একে অন্যকে চিনতে পার’। একই পুরুষ-নারী থেকে যারা জন্ম লাভ করে তাদের ‘পূর্ণ ভাই-বোন’ (Full brothers-sisters) বলা হয়। সুতরাং পৃথিবীর সকল মানুষ একে অন্যের ভাই-বোন। এ কথাটিই প্রতিভাত হয়েছে। এ সম্পর্কে রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) বলেছেন, ‘একজন অনারবের ওপর একজন আরবের, একজন আরবের ওপর অনারবের, কালো মানুষের ওপর লাল মানুষের, লাল মানুষের ওপর কালো মানুষের আল্লাহ ভীতি ব্যতীত কোন শ্রেষ্ঠত্ব নেই’।[9]

মানুষ হিসাবে পৃথিবীর সকল সম্প্রদায়ের সকল মানুষের স্বাধীনতা ও আইনী অধিকার সমান, এটা কেবল ইসলামেই রয়েছে। জাতিসংঘ ইতিপূর্বে এ বাক্যের সাথে পরিচিত ছিল না। এ সম্পর্কে রাসূল (ছাঃ) বলেন, মুহাম্মাদের মেয়ে ফাতেমাও যদি চুরি করতো, তবে আমি তাঁর হাত কেটে দিতাম।[10]

অধিকার সংরক্ষণে ব্যক্তিতে ব্যক্তিতে ভেদাভেদের কোন অবকাশ নেই। আবুবকর (রাঃ) খলীফার দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রথম ভাষণে বলেছিলেন, জেনে রেখো! যে ব্যক্তি তোমাদের মধ্যে সবচেয়ে দুর্বল, আমি  যতক্ষণ তার অধিকার আদায় করে দিতে না পারব, ততক্ষণ সে আমার কাছে সবচেয়ে শক্তিশালী। আর যে ব্যক্তি সবচেয়ে শক্তিশালী, তার কাছ থেকে যতক্ষণ অধিকার আদায় করতে না পারব, ততক্ষণ সে আমার কাছে সবচেয়ে দুর্বল।[11]

অর্থাৎ এ ভাষণে পৃথিবীর সকল মযলূম ও দুর্বল মানুষের নায্য অধিকার আদায়ের দিকটি অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। এখানে প্রত্যেক নাগরিকের সমান অধিকারের সুস্পষ্ট বক্তব্যও ফুটে উঠেছে। এখানে যুলমবাজদের স্থান নেই। ধর্ম-বর্ণ মতের কোন পার্থক্য করা হয়নি এখানে। আইনের দৃষ্টিতে প্রত্যেক নাগরিক যে সমান অধিকার লাভ করবে, মহান খলীফা আবুবকরের এই উক্তি থেকে তা প্রতিভাত হয়েছে।

এ সম্পর্কে বিদায় হজ্জ ভাষণে রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) বলেন, ‘তোমাদের সবাই আদমের সন্তান আর আদম মাটির তৈরী’।[12] মানবীয় মূল্যায়ন ও সম্মানে মানুষ যে সমান- সে সম্পর্কে আল্লাহ বলেন, ‘সকল মানুষের জন্য নিজ নিজ কাজ অনুপাতে মর্যাদা রয়েছে’ (কাহাফ ১৯)। হাদীছ এসেছে, ‘মুসলমানদের রক্তের বদলা নিতে হবে’।[13] মানুষের কর্মের ও অন্যান্য সুযোগ সুবিধার ক্ষেত্রে সমান সে সম্পর্কে আল্লাহ বলেন, هُوَ الَّذِيْ جَعَلَ لَكُمُ الْأَرْضَ ذَلُوْلاً فَامْشُوْا فِيْ مَنَاكِبِهَا وَكُلُوْا مِنْ رِّزْقِهِ وَإِلَيْهِ النُّشُوْرُ- ‘তিনিই তো তোমাদের জন্য ভূমিকে সুগম করে দিয়েছেন। অতএব তোমরা তার দিগ-দিগন্তে বিচরণ কর এবং তাঁর প্রদত্ত জীবনোপকরণ হতে আহার্য গ্রহণ কর। পুনরুত্থান তো তাঁরই নিকট’ (মূলক ১৫)

আরও দেখুন:  পরোপকারীর মর্যাদা

‘অতপব ছালাত সমাপ্ত হলে তোমরা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়বে এবং আল্লাহর অনুগ্রহ সন্ধান করবে’ (জুম‘আ ১০)। আল্লাহ তা‘আলা বলেন, فَمَنْ يَعْمَلْ مِثْقَالَ ذَرَّةٍ خَيْراً يَرَهُ- وَمَنْ يَعْمَلْ مِثْقَالَ ذَرَّةٍ شَرّاً يَرَهُ- ‘যে ব্যক্তি কণা পরিমাণও ভাল কাজ করবে সে তা দেখবে, আর যে কণা পরিমাণও মন্দ কাজ করবে, সে তাও দেখবে’ (যিলযাল ৭-৮)

ফেরাঊন বলেছিল, ‘নিশ্চয়ই ফেরাঊন দেশে পরাক্রমশালী হয়েছিল এবং তথাকার অধিবাসীদেরকে বিভিন্ন শ্রেণীতে বিভক্ত করে তাদের একটি শ্রেণীকে সে হীনবল করেছিল, তাদের পুত্রদেরকে সে হত্যা করত এবং নারীদেরকে সে জীবিত রাখত। নিশ্চয়ই সে ছিল বিপর্যয় সৃষ্টিকারী’ (ক্বাছাছ ৪)

আবু হুরায়রা (রাঃ) বর্ণিত রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) বলেন, ‘ক্বিয়ামতের দিন মহামহিম আল্লাহ বলবেন, হে আদম সন্তান! আমি রুগ্ন ছিলাম, তুমি আমার সেবা শুশ্রূষা করনি। বান্দা বলবেন, হে আমার প্রতিপালক! আমি কি করে আপনার সেবা-শুশ্রূষা করতে পারি? আপনি তো বিশ্বলোকের প্রতিপালক। আল্লাহ বলবেন, তুমি কি জানতে না যে, আমার অমুক বান্দা রোগাক্রান্ত হয়েছিল। কিন্তু তুমি তার সেবা করনি। তুমি কি জানতে না যে, তার সেবা করলে তুমি আমাকে তার কাছেই পেতে? মহান আল্লাহ বলবেন, আমি ক্ষুধার্ত ছিলাম এবং তোমার নিকট খাবার চেয়েছিলাম, কিন্তু তুমি আমাকে আহার করাওনি। আদম সন্তান বলবে, হে আমার প্রতিপালক! আমি কি করে আপনাকে আহার করাতে পারি, অথচ আপনি হচ্ছেন গোটা সৃষ্টি লোকের রিযিক দাতা? মহান আল্লাহ বলবেন, তুমি কি জানতে না যে, আমার অমুক বান্দা খাবার চেয়েছিল? কিন্তু তুমি তাকে খাবার দাওনি। তুমি কি জানতে না যে, তাকে আহার করালে তুমি ঐ খাবার আমার নিকট পেতে? হে আদম সন্তান! আমি তোমার নিকট পানি চেয়েছিলাম, কিন্তু তুমি আমাকে পান করাওনি। সে বলবে, হে প্রভু! আমি আপনাকে কিভাবে পান করাতে পারি, অথচ আপনি হচ্ছেন গোটা সৃষ্টিকুলের প্রতিপালক? মহান আল্লাহ বলবেন, আমার অমুক পিপাসার্ত বান্দা তোমার নিকট পানি চেয়েছিল, কিন্তু তুমি তাকে পান করাওনি। তুমি যদি তাকে পান করাতে তবে সেখানে তুমি আমাকে পেতে’।[14] অসহায়-দরিদ্র মানুষের অধিকারের কি অপূর্ব সমাধান ইসলাম দিয়েছে দেড় হাযার বছর আগেই।

আরও দেখুন:  মানবাধিকার ও ইসলাম: বিবাহের অধিকার

একবার ওমর ইবনুল খাত্ত্বাব (রাঃ) দু’টি নতুন কাপড় পরে একটু দেরীতে মসজিদে এলেন। অতঃপর জুম‘আর খুৎবা দেওয়ার জন্য মিম্বরে বসলেন। সালমান ফারেসী (রাঃ) জিজ্ঞেস করলেন, আমাদের সবাইকে আপনি একটি করে কাপড় বণ্টন করেছেন। অথচ আপনার পরনে দু’টি কাপড় দেখছি? ওমর (রাঃ) তার বড় ছেলে আবদুল্লাহর দিকে ইঙ্গিত করলেন। আব্দুল্লাহ ইবনে ওমর (রাঃ) বললেন, ওটি আমার  অংশের কাপড় যা আববাকে দিয়েছি পায়জামা করার জন্য’। ওমরের কাপড়ে সাধারণতঃ ১২/১৪টি করে তালি লাগানো থাকত। নতুন কাপড়টি ছিল রাষ্ট্রীয় বায়তুল মাল থেকে সবার জন্য বণ্টিত অংশ মাত্র’।[15]

খুলাফায়ে রাশেদীন জাতির এই স্বাধীনতাকে কখনও খর্ব করতেন না। বরং আরও সাহস যোগাতেন। সবেমাত্র খেলাফতের দায়িত্ব পেয়েছেন, তখন আবুবকর (রাঃ) তাঁর স্বাগত ভাষণে বলেছিলেন, যদি আমি সঠিক পথে চলি তাহলে আপনারা আমাকে সাহায্য করবেন, আর যদি বাঁকা পথে ধাবিত হই তাহ’লে আমাকে সোজা করে দিবেন।[16]

এসব আলোচনা থেকে একথাই প্রতীয়মান হয় যে, জাতিসংঘ সনদের সার্বজনীন মানবাধিকার সনদের ২নং অনুচ্ছেদে যে মানুষের মধ্যে পার্থক্য ছাড়াই সকলের সমান মর্যাদা ও অধিকার প্রদান করা হয়েছে অর্থাৎ ‘আইনের দৃষ্টিতে সমতা’ নীতির কথা উল্লেখ রয়েছে তার বাস্তব প্রতিফলন প্রায় ১৫শ’ বছর পূর্বে আল্লাহপাক রাসূল (ছাঃ)-এর মাধ্যমে সমাধান দিয়ে গেছেন। অতএব বলা যায়, জাতিসংঘের এই সনদ নয়; ইসলামই মানুষের সমতা নীতি ও জবাবদিহিতার সুমহান উদহারণ রেখে গেছে। বিশ্বের কোন রাষ্ট্রনায়ক ও সমাজসেবী ব্যক্তি বা সংগঠন এরকম দৃষ্টান্ত দিতে পারেনি।

‘সমতা’ আলোচনায় ‘নারী’ প্রসঙ্গটি চলে আসে। আধুনিক ইতিহাসে দেখা যায়, নারীদের অধিকারের ব্যাপারে ইসলামই সর্বপ্রথম বাস্তব ও কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। জাহেলী যুগের কন্যা সন্তান হত্যা বন্ধ, সম্পত্তির উত্তরাধিকার, বিবাহ, সম্মান, প্রভৃতির ক্ষেত্রে এতে তাদের অধিকার নিশ্চিত করা হয়েছে।[17] ইসলামী উত্তরাধিকারী আইনে প্রথম শ্রেণীর উত্তরাধিকার ‘কুরআনী অংশীদারের’ ১২ জনের মধ্যে ৮ জন মহিলা (সূরা নিসা)। অথচ ইসলাম পূর্ব যুগে পৃথিবীর কোথাও তারা উত্তরাধিকার পেত না। স্ত্রীর প্রতি আচরণ বিষয়ে পুরুষের উদ্দেশ্যে পবিত্র কুরআনে বলা হয়েছে, أَسْكِنُوْهُنَّ مِنْ حَيْثُ سَكَنتُمْ مِّن وُجْدِكُمْ وَلاَ تُضَارُّوهُنَّ لِتُضَيِّقُوْا عَلَيْهِنَّ  ‘তোমরা তোমাদের সামর্থ অনুযায়ী যেরূপ গৃহে বাস কর, তাদেরকেও বসবাসের জন্য সেরূপ গৃহ দাও। তাদেরকে কষ্ট দিয়ে সংকটাপন্ন কর না’ (তালাক ৬)

তাই তো সমতা বিধানে ইসলামী প্রচেষ্টায় মুগ্ধ হয়ে Dr. Ahmad Golwash তাঁর The Religion of Islam গ্রন্থে বলেন, Equallity of Right was the distinguishing feature of the Islamic Commonwealth. A Convert from a humbler can enjoyed the same rights and previleges as on who belonged to the noblest koraish.[18]

উল্লিখিত বিষয়ে রাসূল (ছাঃ) বিদায় হজ্জ ভাষণে বলেন,  ‘তোমরা যা খাও ও পরিধান কর, দাসদেরও তা খেতে ও পরতে দাও’।[19] অর্থাৎ আইনের দৃষ্টিতে মানুষ মানুষে কোন ভেদাভেদ নেই একথাই বলা হয়েছে।

এখানে উল্লেখ্য, জাতিসংঘ মানবাধিকার সনদ (UDHR)-এর ২নং অনুচ্ছেদে এবং বাংলাদেশ সংবিধানের ২৭ ও ২৮ নং অনুচ্ছেদে নারী-পুরুষের সমতা বা সমান অধিকার নিশ্চিত করা হয়েছে। তবে বাস্তব কথা হ’ল, সনদে নারী-পুরুষের সমতা বিধান বা সমান অধিকারের নামে দেশের পার্ক, রেষ্টুরেন্ট, উদ্যান, রাস্তা-ঘাট, কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের কাম্পাসে এমনকি স্কুলের উঠতি বয়সী ছাত্র-ছাত্রীদের অবাধ চলাফেরা-মিলামেশা যেন এখন পাশ্চাত্যের দেশগুলোকেও হার মানিয়েছে। পরিস্থিতি এমনটা যে, এখন বেলেল্লাপনা ও নির্লজ্জ পরিবেশে পরিবার সহ কোথাও বেড়াতে যাওয়ার কারো উপায় নেই। তাই তো এসবের লালন-পালনকারী হল শতকরা ৯০ ভাগ মুসলিম দেশের কথিত মুসলিম সরকার। আমরা এমন সরকার চাই না। অনতিবিলম্বে এ জাতি ও তরুণ প্রজন্মকে বাঁচাতে হবে, পারিবারিক, সামাজিক ও রাষ্ট্রীয়ভাবে ইসলামী শাসন ব্যবস্থা চালু করতে হবে।

আরও দেখুন:  মানবাধিকার ও ইসলাম: মানুষের জন্মগত মর্যাদা ও অধিকার

তাই তো বলি, এদের নাটের গুরু ভিনদেশী। এদেরই দেয়া দু’টো খুঁদ-কুড়া খেতে গিয়ে তাদেরকে অনুসরণ করতে হয়। যেমনটি- ২০১১ সালের শেষ দিকে যুক্তরাষ্ট্রের এক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে সেদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারী ক্লিনটন বলেছিলেন, যুক্তরাষ্ট্র নৈতিকভাবে নারী-পুরুষের সকল প্রকার যৌনসম্পর্ক, অভ্যাস বা রুচিকে সমর্থন দিয়ে যাবে। এক লিঙ্গে সমকাম, উভয়লিঙ্গে সমকাম, নারী সমকাম, পুরুষ সমকাম, একত্রে বসবাস (Live Together) ইত্যাদি সকল ধরনের যৌনতাই আমরা সমর্থন করি। সেখানে বিশ্বব্যাপী লেসবিয়ান, গে, বাইসেক্সচুয়াল, হোমো সেক্সচুয়াল, নারী-পুরুষকে তাদের অবাধ যৌন সংস্কৃতি নির্বিঘ্ন করার কাজে ৩০ লক্ষ ডলার তহবিল গঠনের কথাও মিসেস ক্লিনটন ঘোষণা করেন।[20] এদেরকে কেবল বাংলাদেশ কেন বিশ্বের প্রায় সকল দেশই অনুকরণ করে চলেছে। বলা যায় এদেরই তৈরী UDHR ২নং অনুচ্ছেদের। তাহ’লে জাতিসংঘ মানবাধিকার সনদের উক্ত ধারাটিকে আপনারা কিভাবে ব্যবহার করবেন? নিশ্চয়ই সুন্দর, মার্জিত ও কল্যাণের পথে ব্যবহার করবেন। কিন্তু সেখানে সেটা অনুপস্থিত। পক্ষান্তরে যার সার্বজনীন দিক নির্দেশনা কুরআন ও ছহীহ হাদীছে সুস্পষ্টরূপে প্রতিভাত হয়েছে। সেখান থেকে সকলে হেদায়াত ও আলো গ্রহণ করলে মানবতা উপকৃত হবে। আল্লাহ সকলকে কুরআন-হাদীছের সে আলো নেয়ার তাওফীক দান করুন। আমীন!

মূল লেখা: মানবাধিকার ও ইসলাম

– শামসুল আলম


[8]. Dr. Borhan Uddin Khan, IDHRB, 10 December Dhaka 1998, P. 198.

[9]. মুসনাদে আহমাদ, ৫/৪১১; আবুদাঊদ, ৪/১৩২

[10]. আবুদাঊদ, ‘হুদুদ’ অধ্যায়, হা/৪৩৭৩।

[11]. ডঃ মুহাম্মাদ আত-তাহের আর-রিযভী, মানবাধিকার ও দন্ডবিধি, অনুবাদ : হাফেয মাওলানা আকরাম ফারূক (ঢাকা: ইসলামিক ল’ রিসার্চ সেন্টার এন্ড লিগ্যাল এইড বাংলাদেশ ২০০৮), পৃঃ ৫৪।

[12]. আবু দাঊদ হা/৫১১৬, সনদ হাসান; তিরমিযী হা/৩৯৫৬।

[13]. ইবনে মাযাহ ২/৮৫৯; আবুদাঊদ ৩/৮০ নং ২৭৫১

[14]. মুসলিম, মিশকাত হা/১৫২৮ ‘জানাযা’ অধ্যায়

[15]. আইয়ামে খিলাফতে রাশেদাহ পৃঃ ১০৩-১০৪

[16]. সালাহ উদ্দীন, মৌলিক মানবাধিকার, (ঢাকা : ই.ফা.বা.), পৃঃ  ১৮৪; ওমর ইবনুল খাত্ত্বাব, পৃঃ  ৩১২

[17]. মানবাধিকার আইন, সংবিধান ইসলাম এনজিও, পৃঃ  ১২১

[18]. ডঃ রেবা মন্ডল ও ডঃ মোঃ শাহজাহান মন্ডল, মানবাধিকার আইন সংবিধান ইসলাম এনজিও (ঢাকা: শামস পাবলিকেশন্স, ২য় প্রকাশ ১লা আগষ্ট, ২০০৯), পৃঃ  ১২৩

[19]. সিলসিলা ছহীহাহ হা/৭৪০; আদাবুল মুফরাদ হা/১৮৮।

[20]. ইসলামী আইন ও বিচার, ইসলামিক ফাউন্ডেশন পত্রিকা, বর্ষ ৮, সংখ্যা ২৯, (সম্পাদকীয়) ঢাকা

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

Back to top button