পরিবার/দাম্পত্য বিষয়ক

শিশু কত দিন মায়ের দুধ পান করবে?

প্রশ্ন : আমার ছেলের বয়স তিন বছর। এখনো সে মায়ের বুকের দুধ খায়। আমি জানতে চাই, মায়ের বুকে যদি দুধ থাকে এবং সন্তান যদি খেতে চায়, তাহলে সর্বোচ্চ কত দিন খেতে পারবে?

উত্তর : দুধ সন্তানকে আপনি দিতে পারেন। তবে উত্তম হচ্ছে যেটা, সেটা হলো, দুই বছর পর সন্তানের দুধ ছাড়িয়ে ফেলা। যেহেতু আল্লাহ সুবহানওয়াতায়ালা কোরআনে কারিমের মাধ্যমে দুধপানের সময় দুই বছর বলে দিয়েছেন। এখানে পিতামাতার অতি আবেগের কোনো প্রয়োজন নেই। কারণ, এটি সন্তানের জন্য খুব বেশি উপকারী হবে না। অর্থাৎ সন্তানের জন্য এই দুধ দান খুব একটা উপকারী হবে না। তাই যেটা সন্তানের জন্য উপযোগী, যেটা উপাদেয়, যেটা স্বাস্থ্যকর, সেটাই আল্লাহু রাব্বুল আলামিন বিধান দিয়েছেন। সুতরাং এ ক্ষেত্রে আপনার উচিত হচ্ছে সন্তানের দুধ ছাড়িয়ে নেওয়া। এটাই ইসলামের বিধান।

তবে যদি দুধ থাকে, সন্তান পান করলে তা হারাম হবে না। সে পান করতে পারবে। তবে যেহেতু সন্তানের বয়স তিন বছর হয়ে গেছে, যত দ্রুত সম্ভব আপনার উচিত সন্তানের দুধ ছাড়ানোর চেষ্টা করা।

 

– ড. মুহাম্মাদ সাইফুল্লাহ

আরও দেখুন:  বিবাহের মোহর নির্ধারণের শরী‘আতের নির্দেশনা কি? সমাজে ‘মোহরে ফাতেমী’ নামে একটি পরিভাষা চালু আছে। এটা কি সুন্নাত?

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

২টি মন্তব্য

  1. প্রশ্ন
    আসসালামু আলাইকুম, ভাই,

    অনৈসলামিক ব্যাংকে চাকুরী করা জায়েজ কিনা ?অনেকে ঊলামাগন বলেন বাংলাদেশের কোন ব্যাংকই শতভাগ সূদমুক্ত নয়। ইসলামী ব্যাংকগুলো সুদভিত্তিক অর্থনৈতিক ব্যবস্থার মাঝে কার্যক্রম পরিচালনা করে বিধায় তারা কিছু ক্ষেত্রে সুদমুক্ত লেনদেন করতে পারে না। যেমন-

    ১) কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাথে যে বাধ্যতামূলক সঞ্চিতি, (SRR) এবং Foreign Currency Clearing Account এ জমাকৃত বৈদেশিক মুদ্রার উপরে কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুদ দেয়।

    ২) বিদেশী ব্যাংকগুলোর সাথে ইসলামী ব্যাংকের যে Nostro Account থাকে, সেটা চলতি হিসাব হলেও Overnight lending থেকে তারা সেখান থেকে সুদ পায়।

    সেক্ষেত্রে সুধের সাথে লেন দেন তো থেকেই যাচ্ছে ।অনৈসলামিক ব্যাংকে চাকুরী করা হারাম বললে,আমাদের দেশে হাসপাতালের মালিক,কোম্পানী,গাড়ী,গার্মেন্টস এর মালিক,সরকার—- অনেকেই সুধের সাথে যুক্ত,কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাথে রিলেটেড সব প্রতিষ্ঠাণ এ চাকুরী জায়েয হয় কিভাবে? মানূষ বনে যাওয়া ছাড়া উপায় কি?

মন্তব্য করুন

Back to top button