অধিকার ও মর্যাদা

মানবাধিকার ধারনার উৎপত্তি ও ক্রমবিকাশ

যতদূত জানা যায়, সর্বপ্রাচীন লিপিবদ্ধ আইন হচ্ছে রাজা হামুরাবি কর্তৃক প্রণীত বেবিলনীয় কোড (প্রায় ২১৩০-২০৮৮ খ্রীঃপূঃ) বা হামুরাবি কোড। লিখিত আইনের সূচনা হিসাবে এই ‘কোড’ খুব মূল্য বহন করে এবং পরবর্তীতে মানুষের অধিকার সংরক্ষণে রীতি-নীতি ও প্রথার চেয়ে লিপিবদ্ধ আইন অধিকতর ফলপ্রসূ হিসাবে বিবেচিত।[18]

এরপর সর্বপ্রথম যে আইনে মানুষের অধিকার যৎকিঞ্চিত হ’লেও ব্যক্ত করা হয়, তা হ’ল সিংহরাজের রাজত্বকালে সাইবেরীয়ান ব-দ্বীপে প্রণীত আইন। তবে এই আইনে জনগণের মৌলিক অধিকারের কথা উল্লেখ না থাকলেও তার সামনে দেশে সামন্ত প্রভু ও অভিজাত ব্যক্তিদের একটি সভা ডাকা হ’ত, যা বর্তমান কালের সাথে কিছুটা তুলনাযোগ্য। ১১৮৮ খৃষ্টাব্দে রাজা নবম আলফানসের নিকট থেকে এই সভা অভিজাত শ্রেণীর জন্য বেশ কিছু অধিকার আদায় করে নেয়। এসব অধিকারের একটি তালিকা প্রণয়ন করা হয়। সেগুলোর মধ্যে ছিল ব্যক্তি স্বাধীনতা, জীবনের নিরাপত্তা, জীবনের মর্যাদা, বাসস্থান ও সম্পদের অলংঘনীয়তা। অর্থাৎ আইন ব্যতিরেকে তাদেরকে শারীরিকভাবে আটক, নির্যাতন, অসম্মান বা আইনানুগ বিচার ছাড়া কাউকে শাস্তি প্রদান বা কারও প্রাণ হরণ করা চলবে না; আইনসঙ্গত উপায় ব্যতিরেকে নিজ বসতবাটিতে তাদের বসবাসে অসুবিধা সৃষ্টি করা চলবে না বা উচ্ছেদ করা যাবে না ইত্যাদি।[19] পরবর্তীতে হাঙ্গেরীর রাজা ২য় এন্ড্রু ১২২২ সালে স্বর্ণা আদেশ দ্বারা রাজকীয়ভাবে ‘সিংহসাম্রাজ্যের’ মত ঘোষণা দেন যে, কোন রাজা বা আমীরকে প্রথমে কোন আইনে অভিযুক্ত করা ছাড়া আটক বা হত্যা করা চলবে না। এখানে আদালত কর্তৃক নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে আমীরকে বিচার কার্যের কথা স্বীকার করা হয়েছে। রুডলফ ভন ঝেরিং (১৮৫২-১৮৭৮) প্রায় সোয়াশ’ বছর আগে উল্লেখ করেছেন যে, প্রাচীন রিপাবলিকান রোমে রাষ্ট্র কর্তৃক রোমান নাগরিকদের (বিদেশী বা দাসদের জন্য এ আইন নয়) সরকারের অংশগ্রহণে, সরকার নির্বাচনে, ফৌজদারী বিচার ব্যবস্থায় অংশগ্রহণ করার, সরকারী কর্মকর্তা নির্বাচন করার এমনকি পুলিশ প্রশাসনে অংশগ্রহণ করার অধিকার দেয়া হয়েছিল।

প্রখ্যাত আমেরিকান মনীষী ইয়ানটেমান (১৯৫৮) দেখিয়েছেন যে, রোমান আইন ব্যবস্থা রোমান পন্ডিত ও আইনজ্ঞদের দ্বারা প্রণীত। এ আইন ব্যবস্থায় মানুষের অধিকার প্রয়োগ ও সংরক্ষণের যৌক্তিক উপায় রাখা হয়েছিল, যাতে করে সর্বসাধারণ তাদের অধিকার বাস্তবায়নের জন্য আদালতের শরণাপন্ন হ’তে পারে। সর্বপ্রথম রোমান সমাজেই ব্যাপকভাবে সাধারণ মানুষের মৌলিক অধিকার সম্পর্কে কার্যকর ব্যবস্থা গৃহীত হয়েছিল। ইয়ানটেমানের এই অভিমত বর্তমানে ইউরোপ এবং যেসব দেশে কমন ‘ল’ চালু আছে সেসব দেশে গুরুত্ব সহকারে প্রযোজ্য। রোমান সমাজে যেগুলো মানুষের অধিকার বলে স্বীকৃত ছিল, তার প্রকাশ ও প্রতিফলন ইংলিশ ম্যাগনাকার্টাতে দেখা যায়। ইংল্যান্ডের রাজা জন রানীমেড নামক স্থানে ১২১৫ সালে এই ঐতিহাসিক দলীল গ্রহণ করতে বাধ্য হন।[20]

তবে একথা অবশ্যই স্বীকার করতে হবে যে, মানুষের অধিকার সংরক্ষণের ক্ষেত্রে ৬ষ্ঠ ও ৭ম শতকে ইসলাম ধর্ম অগ্রণী ভূমিকা পালন করে। যার ভিত্তিতে পরবর্তীতে বিশ্বমানবতার মুক্তি ও কল্যাণের জন্য মানব অধিকার বিষয়ক শব্দটি প্রাতিষ্ঠানিক রূপ গ্রহণ করে। তবে সমকালীন প্রেক্ষাপটে ‘মানবাধিকার’ যে অর্থ বহন করে, কয়েকশতক আগেও এর অর্থ এরূপ ছিল না। তাই সংজ্ঞা হিসাবে মানবাধিকার শব্দটি কলাবিদ্যায় ও আইন বিজ্ঞানে খুব সাম্প্রতিক সংযোজন। সেজন্য বিংশ শতাব্দীর তৃতীয় শতকে ‘মানবাধিকার’, ‘মানুষের অধিকার’, ‘মৌলিক অধিকার’ কথাগুলো দ্বারা আসলে ঐ সমস্ত অধিকারকেই বোঝানো হয়, যেগুলো ১৮ শতকের শেষ ভাগ থেকে ঐতিহাসিক ক্রমবিকাশের মাধ্যমে সৃষ্ট এবং ফরাসী (১৭৮৯) ও আমেরিকান (১৭৭৬) বিপ্লবের মাধ্যমে সুপ্রতিষ্ঠিত।[21] প্রকৃতপক্ষে ঐ বিপ্লব দু’টির মাধ্যমেই ‘মানবাধিকার’ শব্দের আধুনিক অর্থের আনুষ্ঠানিক গোড়াপত্তন হয়। যা নিয়ে আজ বিশ্বব্যাপী ব্যাপক সরগরম।

ইসলামের দৃষ্টিকোণে মানবাধিকারের উৎপত্তি ও ক্রমবিকাশ :

‘মানবাধিকার’ (Human Rights) শব্দটি আধুনিক জগতে অতি পরিচিত ও ব্যবহারগত একটি শব্দ হিসাবে স্থান করে নিলেও এর মৌলিক ধারণা ও ব্যবহার কিন্তু বহু প্রাচীন। বাইবেল, কুরআন ও বিজ্ঞানের আলোকে জানা যায় পৃথিবী সৃষ্টির রহস্য কি? কেউ কেউ বলেছেন, মহাবিশ্ব সৃষ্টি হয়েছিল ১,৬০০ কোটি বছর আগে। অর্থাৎ এটা পৃথিবী সৃষ্টির ৪৬০ কোটি বছর আগে। এতে প্রাণের উদ্ভব ঘটে সম্ভবত ৩৫০ কোটি বছর আগে। আর মানুষ এসেছে ১ লক্ষ বছর আগে।[1] কারও মতে, পৃথিবীতে মানুষের আগমন কয়েক লক্ষ বছর পূর্বে। কেউ বলেন, আদম (আঃ) থেকে ইবরাহীম (আঃ)-এর সময়কালের ব্যবধান মোটামুটি ভাবে ঊনিশ শত বছর। অধুনা হিসাব করে দেখা গেছে যে, হযরত ইবরাহীম (আঃ) খৃষ্টপূর্ব ১৮৫০ সালের দিকে জীবিত ছিলেন। প্রাপ্ত এই হিসাবের সাথে বাইবেলের হিসাব যোগ করে নিলে দেখা যায়, দুনিয়াতে প্রথম মানুষ (আদম আঃ)-এর আবির্ভাব ঘটেছিল খৃষ্টপূর্ব মাত্র ৩৮ শত বছর আগে।[2] ইসলামী পন্ডিতগণ এই সময়কালকে অধিক যুক্তিসঙ্গত কাল হিসাবে ধরে নিয়েছেন। যদি তাই-ই হয় তাহ’লে এ বিশ্বজগতের সৌভাগ্যবান ও বিরাট দেহাবয়বের অধিকারী যাঁর উচ্চতা ছিল ৬০ হাত[3] আদম (আঃ)-এর সময়কালে অথবা তৎপরবর্তীতে মানবাধিকারের কোন ঘটনা আমাদের দৃষ্টিগোচর হয় কি-না। প্রকৃতপক্ষে মহান আল্লাহ তা‘আলা আদম (আঃ) ও বিবি হাওয়া (আঃ)-কে পৃথিবীতে পাঠিয়েছিলেন দুনিয়াতে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য। তাঁর পরে নূহ (আঃ), ইবরাহীম (আঃ) প্রমুখ থেকে শেষ নবী মুহাম্মাদ (ছাঃ)-এর আগমন ঘটেছিল। এরকম ৩১৫ জন রাসূল সহ ১ লক্ষ ২৪ হাযার[4] পয়গম্বর ধরাধামে প্রেরিত হন মানবতা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে। যার পরিপূর্ণ ইতিহাস ও ঘটনা কুরআন ও হাদীছ বিশ্লেষণ করলে জানা যায়। যেমন- কুরবানী কবুল হওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে শয়তানের প্ররোচনায় কাবিল তার সহোদর ভাই হাবিলকে নির্মমভাবে হত্যা করেছিল। পরে কাবিল তার কৃতকর্মের জন্য অনুতপ্ত হয়েছিল। কিন্তু অন্যায়ভাবে হত্যাকান্ড ঘটানোর জন্য পৃথিবীতে সংঘটিত অন্যায় হত্যাকান্ডের পাপের একটা অংশ তার উপর বর্তাবে। এ সম্পর্কে রাসূল (ছাঃ) বলেন, ‘অন্যায়ভাবে কোন মানুষ নিহত হ’লে তাকে খুন করার পাপের একটা অংশ আদম (আঃ)-এর প্রথম পুত্র কাবিলের আমলনামায় যুক্ত হয়। কেননা সেই প্রথম হত্যার সূচনা করে’।[5] তিনি আরও বলেন, ‘যে ব্যক্তি তার ভাইয়ের সম্মান হানি বা অন্য কোন প্রকারের যুলুম করেছে, সে যেন তার থেকে আজই তা মিটিয়ে নেয়। সেই দিন আসার আগে যেদিন তার নিকটে দীনার ও দিরহাম (স্বর্ণ ও রৌপ্য মুদ্রা) কিছুই থাকবে না। যদি তার নিকটে কোন সৎকর্ম থাকে, তার যুলুম পরিমাণ নেকী সেখান থেকে নিয়ে নেওয়া হবে। আর যদি কোন নেকী না থাকে, তাহ’লে মযলূমের পাপ সমূহ নিয়ে যালিমের উপর চাপিয়ে দেওয়া হবে।[6]

আরও দেখুন:  মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় রাসূলুল্লাহ (সা.) -এর অবদান

উক্ত মর্মে কুরআনে বর্ণিত হয়েছে وَلَيَحْمِلُنَّ أَثْقَالَهُمْ وَأَثْقَالاً مَّعَ أَثْقَالِهِمْ وَلَيُسْأَلُنَّ يَوْمَ الْقِيَامَةِ عَمَّا كَانُوْا يَفْتَرُوْنَ ‘আর তারা অবশ্যই নিজের পাপ ভার বহন করবে ও তার সাথে অন্যদের পাপ ভার এবং তারা যেসব মিথ্যারোপ করে, সে সম্পর্কে ক্বিয়ামতের দিন অবশ্যই জিজ্ঞাসিত হবে’ (আনকাবুত ২৯/১৩)। অতএব অন্যায়ভাবে মানুষ হত্যা করা জঘন্য অপরাধ বা পাপ, যা মানব সৃষ্টির প্রথম দিকের কাহিনী থেকেই বুঝা যায়। সম্ভবত অপরাধের বিচার ও শাস্তির ব্যবস্থার জন্য আইন আদালত এরই ধারাবাহিকতা ছাড়া কিছুই নয়। আধুনিক মানবাধিকারের উৎপত্তি ও ধারণা এভাবেই এসেছে সন্দেহ নেই। কেননা মানুষ শিখেছে যে কেউ কাউকে অন্যায়ভাবে হত্যা করলে, কেউ কারও উপর যুলুম করলে বা অত্যাচার করলে তার জন্য নিজেকে যেমন পরকালে চূড়ান্ত জবাবদিহি করতে হয়, অনুরূপে ইহকালেও তার কৃতকর্মের দরুণ শাস্তি ও জবাবদিহিতার চরম ব্যবস্থা রয়েছে এবং তা কেবল একটি পদ্ধতি মোতাবেক প্রয়োগ করা হয়।

এদিকে দুনিয়াবী ব্যবস্থাপনার সকল জ্ঞান আদমকে দেওয়া হয়েছিল এবং তার মাধ্যমেই পৃথিবীতে প্রথম ভূমি আবাদ ও চাকা চালিত পরিবহণের সূচনা হয়। আর সব কিছুই সৃষ্টি হয়েছে মানুষের সেবার জন্য। আর মানুষ সৃষ্টি হয়েছে আল্লাহর দাসত্বের জন্য।[7] অন্য এক ঘটনায় বিধৃত হয়েছে ‘কওমের অবিশ্বাসী নেতারা জনগণকে বিভ্রান্ত করার জন্য নূহ (আঃ)-এর বিরুদ্ধে পাঁচটি আপত্তি উত্থাপন করেছিল, এর মধ্যে অন্যতম একটি হ’ল আপনার অনুসারী হ’ল আমাদের মধ্যে নিতান্তই হীন ও গরীব, তাও আবার কম বুদ্ধি সম্পন্ন, আর আমাদের ওপর তোমাদের কোন শ্রেষ্ঠত্বও আমরা দেখছি না, তাদের  এই আপত্তির জবাবে নূহ (আঃ) বলেন, وَيَا قَوْمِ لاَ أَسْأَلُكُمْ عَلَيْهِ مَالاً إِنْ أَجْرِيَ إِلاَّ عَلَى اللهِ وَمَا أَنَاْ بِطَارِدِ الَّذِيْنَ آمَنُواْ إِنَّهُم مُّلاَقُو رَبِّهِمْ وَلَـكِنِّيَ أَرَاكُمْ قَوْماً تَجْهَلُوْنَ، وَيَا قَوْمِ مَنْ يَنْصُرُنِيْ مِنَ اللهِ إِنْ طَرَدتُّهُمْ أَفَلاَ تَذَكَّرُوْنَ-

‘আমি কোন (গরীব) ঈমানদার ব্যক্তিকে তাড়িয়ে দিতে পারি না। তারা অবশ্যই তাদের পালনকর্তার দীদার লাভে ধন্য হবে। বরং আমি তোমাদের মূর্খ দেখছি। হে আমার কওম! আমি যদি ঐসব লোকদের তাড়িয়ে দেই, তাহ’লে কে আমাকে আল্লাহর পাকড়াও থেকে রক্ষা করবে? তোমরা কি উপদেশ গ্রহণ করবে না? (হূদ ১১/২৯-৩০; শো‘আরা ২৬/১১১-১১৫)

উপরোক্ত আয়াত থেকে স্পষ্ট হয় যে, মহান আল্লাহ গরীব-ধনী ব্যক্তিদের মধ্যে কোন পার্থক্য করেননি; বরং তাদের (দ্বীনী গরীব-মিসকীন)-কে অনেক মর্যাদা দিয়েছেন, যা প্রায় সাড়ে পাঁচ হাযার বছর পূর্বে নূহ (আঃ) মারফত ঘোষিত হয়েছে। বর্তমান জগতের রাজা-বাদশাহ ধনী-গরীব, উচু-নিচু বলে মানুষে মানুষে কোন ভেদাভেদ নেই(?) বলে যে আওয়াজ তোলা হয়, তা এরই অতি প্রাচীনতম ঐতিহাসিক দলীল বলে স্বীকৃত। খৃষ্টপূর্ব ত্রয়োদশ শতাব্দীতে মিশরের তৎকালীন সম্রাট ফেরাউন যখন আদেশ দিলেন, কোন ইহুদী পরিবারে পুত্র সন্তান জন্মগ্রহণ করলেই যেন হত্যা করা হয়। পরিকল্পনা অনুযায়ী ফেরাউন ও তার মন্ত্রীরা সারা দেশে একদল ধাত্রী মহিলা ও ছুরিধারী জল্লাদ নিয়োগ করে। মহিলারা বাড়ী বাড়ী গিয়ে বনু ইসরাঈলের গর্ভবতী মহিলাদের তালিকা করত এবং প্রসবের দিন হাজির হয়ে দেখত, ছেলে না মেয়ে। ছেলে হ’লে পুরুষ জল্লাদকে খবর দিত। সে এসে ছুরি দিয়ে মায়ের সামনে সন্তানকে যবেহ করে ফেলে রেখে চলে যেত।[8] এভাবে বনু ইসরাঈলের ঘরে ঘরে কান্নার রোল পড়ে যেত। এ ঘটনাটি মূসার পূর্ব শিশু অবস্থায়। অতঃপর মূসা (আঃ) বড় হ’লে স্বৈরাচারী শাসক ফেরাঊনের এসব লোমহর্ষক হত্যা, নির্যাতন-নিপীড়নের প্রতিবাদে দীপ্তকণ্ঠে বললেন, لاَ تُعَذِّبْهُمْ قَدْ جِئْنَاكَ بِآيَةٍ مِّن رَّبِّكَ وَالسَّلَامُ عَلَى مَنِ اتَّبَعَ الْهُدَى- إِنَّا قَدْ أُوحِيَ إِلَيْنَا أَنَّ الْعَذَابَ عَلَى مَن كَذَّبَ وَتَوَلَّى- ‘বনু ইসরাঈলদের উপরে নিপীড়ন করো না। আমরা আল্লাহর নিকট থেকে অহী লাভ করেছি যে, যে ব্যক্তি মিথ্যারোপ করে ও মুখ ফিরিয়ে নেয় তার উপরে আল্লাহর আযাব নেমে আসে’ (ত্ব-হা ২০/৪৭-৪৮)। এখান থেকে বুঝা যায় যে, সে সময়ের মানবতা বিরোধী অন্যায় অত্যাচারের প্রতিবাদ করা হয়েছিল।

এর পরই দেখা যায় ইবরাহীম (আঃ) আল্লাহর একত্ববাদকে ধরে রাখার জন্য পিতা আযরের আদেশ অমান্য করলে পিতা বললেন, হে ইবরাহীম! তুমি কি আমার উপাস্যদের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছ? যদি তুমি বিরত না হও, তবে আমি অবশ্যই পাথর মেরে তোমার মাথা চূর্ণ করে দেব। তুমি আমার সম্মুখ হ’তে চিরদিনের জন্য দূর হয়ে যাও’ (মারিয়াম ১৯/৪৬)

আরও দেখুন:  মানবাধিকার ও ইসলাম : মৌলিক অধিকার

পিতার এই কঠোর ধমকি শুনে ইবরাহীম (আঃ) বললেন, قَالَ سَلاَمٌ عَلَيْكَ سَأَسْتَغْفِرُ لَكَ رَبِّيْ إِنَّهُ كَانَ بِيْ حَفِيًّا، وَأَعْتَزِلُكُمْ وَمَا تَدْعُوْنَ مِنْ دُوْنِ اللهِ وَأَدْعُو رَبِّيْ عَسَى أَلَّا أَكُوْنَ بِدُعَاءِ رَبِّيْ شَقِيًّا- ‘তোমার উপরে শান্তি বর্ষিত হৌক! আমি আমার পালনকর্তার নিকটে তোমার জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করব। নিশ্চিয়ই তিনি আমার প্রতি মেহেরবান’ (মারিয়াম ১৯/৪৭-৪৮)। এখানে পিতা-মাতাকে যে সম্মান ও মানবতা দেখানো হয়েছে তা সুস্পষ্ট। এছাড়া পিতার সহযোগিতায় মুশরিকরা তাওহীদপন্থী ইবরাহীমের উপর অমানবিক অত্যাচার-নিপীড়ন, নিষ্ঠুর আচরণ, আগুনে নিক্ষেপ করার মত লোমহর্ষক ঘটনা ঘটালেও তিনি পিতার প্রতি অভিশাপ দেননি বরং আল্লাহর দরবারে খালেছ অন্তরে তার জন্য দো‘আ করেছেন। পিতা-মাতার প্রতি এমন মানবতা প্রদর্শনের নবী আর খুঁজে পাওয়া যায় না। এভাবে পর্যালোচনা করলে দেখা যাবে যুগে যুগে নবীগণ রেখে গেছেন মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার দৃষ্টান্ত। তবে সবশেষে শেষ ও বিশ্ব নবী মুহাম্মাদ (ছাঃ) শুধু ঐ সময়ের বর্বর নিষ্ঠুর মানুষের জন্য নয় সর্বযুগে সর্বশ্রেণীর মানুষের জন্য মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার এক অনুপম দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন, যা ৬৩১ খৃষ্টাব্দ মোতাবেক আরাফাহ ময়দানে দশম হিজরীতে প্রদত্ত বিদায় হজ্জের ঐতিহাসিক ভাষণে উল্লেখ রয়েছে। ৮ম হিজরীতে ১ লক্ষ ৪০ অথবা ৪৪ হাযার লোকের[9] সম্মুখে রাসূল (ছাঃ)-এর ভাষণ বিশ্ব মানবতা তথা মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সকল মানুষের কাছে এটা মহাকালের মহাসনদ হিসাবে স্বীকৃত।

‘বিদায় হজ্জে’র ভাষণে বিশ্বনবী (ছাঃ) মানবাধিকার সম্পর্কিত যে সনদপত্র ঘোষণা করেন, দুনিয়ার ইতিহাসে তা আজও অতুলনীয়। সেদিন তিনি দ্বীপ্ত কণ্ঠে ঘোষণা করেছিলেন। (১) হে বন্ধুগণ! স্মরণ রেখ, আজকের এদিন, এ মাস এবং এ পবিত্র নগরী তোমাদের নিকট যেমন পবিত্র, তেমনি পবিত্র তোমাদের সকলের জীবন, তোমাদের ধন-সম্পদ, রক্ত এবং তোমাদের মান-মর্যাদা তোমাদের পরস্পরের নিকট পবিত্র। কখনও কারো উপরে অন্যায় হস্তক্ষেপ করবে না (২) মনে রেখ, স্ত্রীদের উপর তোমাদের যেমন অধিকার আছে, তোমাদের ওপরও স্ত্রীদের তেমন অধিকার আছে (৩) সাবধান! শ্রমিকের ঘাম শুকাবার পূর্বেই তার উপযুক্ত পারিশ্রমিক পরিশোধ করে দিবে (৪) মনে রেখ যে পেট ভরে খায় অথচ তার প্রতিবেশী ক্ষুধার্ত থাকে, সে প্রকৃত মুসলমান হ’তে পারে না (৫) দাস-দাসীদের প্রতি নিষ্ঠুর হইও না। তোমরা যা খাবে, তাদেরকে তাই খেতে দিবে; তোমরা যা পরিধান করবে, তাদেরকে তাই (সমমূল্যের) পরিধান করতে দিবে (৬) কোন অবস্থাতে ইয়াতীমের সম্পদ আত্মসাৎ করবে না।[10]

এমনিভাবে সেদিন তিনি মানবাধিকার সম্পর্কিত অসংখ্য বাণী বিশ্ববাসীর উদ্দেশ্যে পেশ করেন। বিশ্বনবী মুহাম্মাদ (ছাঃ) তাঁর নবুঅতের ২৩ বছরের জীবনে আরবের একটি অসভ্য ও বর্বর জাতিকে সভ্য ও সুশৃংখল জাতিতে পরিণত করেছিলেন। রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক প্রভৃতি ক্ষেত্রে আমূল সংস্কার সাধিত হয়েছিল। রাজনৈতিক ক্ষেত্রে চিরাচরিত গোত্রীয় পার্থক্য তুলে দিয়ে তিনি ঘোষণা করেন, ‘অনারবের উপর আরবের এবং আরবের উপর অনারবের, কৃষ্ণাঙ্গের উপর শ্বেতাঙ্গের এবং শ্বেতাঙ্গের উপর কৃষ্ণাঙ্গের কোন পার্থক্য নেই। বরং তোমাদের মধ্যে সেই সর্বাধিক সম্মানিত যে অধিক মুত্তাক্বী।[11] অর্থনৈতিকক্ষেত্রে তিনি সূদকে সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ করেন এবং যাকাত ভিত্তিক অর্থনীতির মাধ্যমে এমন একটি অর্থব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করেছিলেন যেখানে রাষ্ট্রের প্রতিটি নাগরিক তাদের আর্থিক নিরাপত্তা লাভ করেছিল। সামাজিক ক্ষেত্রে নারীর কোন মর্যাদা ও অধিকার ছিল না। বিশ্বনবী (ছাঃ) নারী জাতিকে সর্বোচ্চ মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করলেন এবং ঘোষণা করলেন ‘মায়ের পায়ের নিকটে সন্তানের জান্নাত’।[12] নারী জাতিকে শুধু মাতৃত্বের মর্যাদাই দেননি উত্তরাধিকারের ক্ষেত্রেও তাদের অধিকারকে করেছেন সমুন্বত ও সুপ্রতিষ্ঠিত, যা অন্য কোন ধর্মে দেখা যায় না। কৃতদাস আযাদ করাকে তিনি উত্তম ইবাদত বলে ঘোষণা করেন।[13] ধর্মীয় ক্ষেত্রে যেখানে মূর্তিপূজা, অগ্নিপূজা এবং বিভিন্ন বস্ত্তর পূজা আরববাসীদের জীবনকে কলুষিত করেছিল সেখানে তিনি আল্লাহর একত্ব প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। মোদ্দাকথা তিনি এমন একটি অপরাধমুক্ত সমাজ ও রাষ্ট্র ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, যেখানে কোন হানাহানি, রাহাজানি, বিশৃংখলা শোষণ, যুলুম, অবিচার- ব্যভিচার, সূদ-ঘুষ ইত্যাদি ছিল না।

আরও দেখুন:  মানবাধিকার ও ইসলাম : ন্যায় বিচার প্রসঙ্গ

বিশ্ব নবী (ছাঃ)-এর জীবনী লিখতে গিয়ে খৃষ্টান লেখক ঐতিহাসিক উইলিয়াম মূর বলেছেন, ‘He was the matter mind not only his own age but of all ages’ অর্থাৎ মুহাম্মাদ (ছাঃ) যে যুগে পৃথিবীতে আবির্ভূত হয়েছিলেন তাকে শুধু সে যুগেরই একজন মনীষী বলা হবে না বরং তিনি ছিলেন সর্বযুগের সর্বশ্রেষ্ঠ মনীষী।[14] শুধুমাত্র ঐতিহাসিক উইলিয়াম মূরই নন, পৃথিবীর বুকে যত মনীষীর আবির্ভাব ঘটেছে প্রায় প্রত্যেকেই মুহাম্মাদ (ছাঃ) সম্পর্কে তাঁদের অমূল্য বাণী পৃথিবীর বুকে রেখে গেছেন। পবিত্র কুরআনে বলা হয়েছে, لَقَدْ كَانَ لَكُمْ فِيْ رَسُوْلِ اللهِ أُسْوَةٌ حَسَنَةٌ لِّمَنْ كَانَ يَرْجُو اللهَ وَالْيَوْمَ الْآخِرَ وَذَكَرَ اللهَ كَثِيْراً. ‘তোমাদের জন্য আল্লার রাসূলের মধ্যে রয়েছে উত্তম আদর্শ’ (আহযাব ২১)

বিশ্ব সম্প্রদায়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করে উপস্থাপন করা যায় যে, রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) কেবল একজন ধর্মীয় নেতাই ছিলেন না; বরং তিনি ছিলেন সর্বশ্রেণীর মানুষের জন্য একজন সফল রাষ্ট্রনায়ক ও মানবাধিকারের প্রতিষ্ঠাতা। যেমনটি মুহাম্মাদ (ছাঃ) মক্কা থেকে মদীনায় এসে সমাজ সংস্কার করতঃ রাষ্ট্র গঠনের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করছিলেন। তখন তিনি পৌত্তলিক, ইহুদী, নাছারা সহ সকল ধর্মের লোকের সমর্থন নিয়ে একটি ঐতিহাসিক সনদ রচনা করেন। যা ‘মদীনা সনদ’ বলে খ্যাত। পৃথিবীর ইতিহাসে এটাই ছিল প্রথম লিখিত সংবিধান বা শাসনতন্ত্র।[15] উক্ত সংবিধানে রাষ্ট্রের প্রতিটি নাগরিকের অধিকার, জান, মাল ও ইয্যতের নিরাপত্তা এবং ধর্মীয় স্বাধীনতার কথা ঘোষণা করা হয়। এই সংবিধানে বিধর্মী ও সংখ্যালঘুদের সাথে কিরূপ আচার-ব্যবহার করবে তার সুস্পষ্ট ও উত্তম নির্দেশনা দেয়া আছে। সকল ধর্মের অনুসারীদের ধর্মীয় স্বাধীনতাও প্রদান করা হয়েছে। কেউ কারও উপর জবরদস্তি করার কোন সুযোগ নেই। সুতরাং এ কথা বিশ্ববাসীর নিকট চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলা যায় যে, সকল মানবাধিকারের উৎস, উত্তম প্রয়োগ ব্যবস্থা ও সংরক্ষণকারী সর্বশ্রেষ্ঠ কিতাব হ’ল কুরআন ও ছহীহ সুন্নাহ।

মূল লেখা: মানবাধিকার ও ইসলাম

– শামসুল আলম

 


[1]. অমল দাশ গুপ্ত, মানুষের ঠিকানা, ১৩ ও ১৪ পৃঃ।

[2]. ডঃ মরিস বুকাইলি, বাইবেল, কুরআন ও বিজ্ঞান, রূপান্তর আখতার উল আলম, (ঢাকা : জ্ঞান প্রকাশনী, ১৯৮৬), ১২০-১২১ পৃঃ।

[3]. মিশকাত, হা/৫৩৩৬।

[4]. মুহাম্মাদ আসাদুল্লাহ আল-গালিব, নবীদের কাহিনী, ১ম খন্ড (রাজশাহী : হাদীছ ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ, ২০১০), পৃঃ ৯।

[5]. বুখারী হা/৩৩৩৫; মুসলিম, তিরমিযী, ইবনু মাজাহ, মিশকাত হা/২২১ ‘ইলম’ অধ্যায়।

[6]. বুখারী, হা/২৪৪৯; মিশকাত ‘শিষ্টাচার’ অধ্যায়, যুলুম অনুচ্ছেদ, পৃঃ ২১।

[7]. নবীদের কাহিনী, ১ম খন্ড, পৃঃ ৫০।

[8]. তাফসীর ইবনে কাছীর, কাছাছ ৮৯; নবীদের কাহিনী, ২য় খন্ড, পৃঃ ১৬।

[9]. ছফিউর রহমান মোবারকপুরী (রঃ), আর-রাহীকুল মাখ্তূম, পৃঃ ৫২২।

[10]. তদেব, পৃঃ ২০।

[11]. ছহীহ আত-তারগীব ওয়াত তারহীব, হা/২৯৬৩; সিলসিলা ছহীহাহ হা/২৭০০।

[12]. মিশকাত হা/৪৯৩৯।

[13]. মুসলিম, মিশকাত হা/২৫৫৫।

[14]. বিশ্বের শ্রেষ্ঠ ১০০ মনীষীর জীবনী, পৃঃ ২০।

[15]. তদেব, পৃঃ ২০।

[18]. আন্তর্জাতিক আইনের দৃষ্টিতে মানবাধিকার, পৃঃ ৮।

[19]. তদেব, পৃঃ ৯।

[20]. মানবাধিকার আইন সংবিধান ইসলাম এনজিও, পৃঃ ৭।

[21]. আন্তর্জাতিক আইনের দৃষ্টিতে মানবাধিকার, পৃঃ ৬-৭।

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

Back to top button