সংবাদ

আইএসের বিরুদ্ধে ভারতের হাজার আলেমের ফতোয়া

জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট অব ইরাক ও সিরিয়ার (আইএসআইএস) বিরুদ্ধে ফতোয়া জারি করলেন এক হাজারের বেশি আলেম। মুফতি ও ইমামসহ ভারতের ১০৫০ জন আলেম ইসলামিক স্টেট (আইএস) নামে পরিচিত এই সংগঠনের বিরুদ্ধে সম্প্রতি ১৫ পাতার এই ফতোয়া জারি করেছেন।

দিল্লির জামে মসজিদের শাহী ইমাম, আজমির দরগার প্রতিনিধিরা, নিজামউদ্দিন আউলিয়া দরগা, রেজা একাডেমি, ভারতের উলামা কাউন্সিল, জামিয়াতুল উলেমা মহারাষ্ট্র, আমিল সাহেব দাওয়াদি বুহরা, জমিয়তে আহলি হাদিস মুম্বাই, অল ইন্ডিয়া তানজিম আনমে-ই-মসজিদ এবং দারুল উলুম মোহাম্মাদিয়ার ১০৫০ জন ইসলামী চিন্তাবিদের সই করা এই ফতোয়া বিশ্বের বিভিন্ন রাষ্ট্রপ্রধানদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

গত মাসে জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুনের কাছে একটি চিঠি পাঠিয়েছেন এই আলেমরা। একজন মুসলিম ও একজন ইসলামের অনুসারী মানে কী তা ভালোভাবে উপলব্ধি করার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তাঁরা।

আলেমরা বলেন, আইএসের তথাকথিত খিলাফত শাসনের এক হাজারেরও বেশি বছর আগে হজরত মোহাম্মদ (সা.)বলেছিলেন, তাঁর অনুসারীরা শিশু, নারী ও বয়স্কদের হত্যা করতে পারবে না। এমনকি তারা গাছও কাটতে পারবে না, যাজকদের ওপর অত্যাচার করতে পারবে না এবং ধর্মীয় উপাসনালয়ের ক্ষতি করতে পারবে না।

আইএসের সন্ত্রাসের রাজত্বের কথা উল্লেখ করে ফতোয়ায় আলেমরা বলেছেন, এই সংগঠন নিরপরাধ মানুষদের জঘন্যভাবে হত্যা করছে। তারা তাদের লোমহর্ষক কর্মকাণ্ডের ছবি প্রকাশ করছে। সরাসরি ভিডিওচিত্রে বিশ্ববাসীর কাছে নিজেদের উপস্থাপন করছে। ইন্টারনেটে বিভিন্ন ধরনের পোস্ট দিচ্ছে এবং ভুলবশত তারা তাদের এই কর্মকাণ্ডকে শরিয়া (ইসলামী আইন) অনুযায়ী বৈধ বলে দাবি করছে।

আইএস অথবা আইএসআইএসের এই কর্মকাণ্ড একেবারে অমানবিক উল্লেখ করে ইসলামিক চিন্তাবিদরা বলেছেন, ইসলামে কখনোই যেকোনো পরিস্থিতিতে এই ধরনের বেআইনি কাজের অনুমতি দেওয়া হয়নি। তাঁরা আইএস অথবা আইএসআইএসের খিলাফত শাসনকে ‘একেবারে অযৌক্তিক ও অভিশপ্ত’ বলে বর্ণণা করেছেন। তাদের কর্মকাণ্ড ইসলাম অথবা এর শিক্ষার সঙ্গে কোনো যোগাযোগ নেই।

আরও দেখুন:  সুচির নোবেল পুরস্কার ফিরিয়ে নিতে অনলাইনে আবেদন

তাঁরা জাতিসংঘ মহাসচিবের প্রতি এই ফতোয়াকে বিশ্বের কাছে উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরার আহ্বান জানিয়েছেন।

 

এনটিভি অনলাইন

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

Back to top button