সংবাদ

মুসলমানদের থামাতে বন্দুকে বাইবেল

বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে যুদ্ধ আর সংঘাতে যত অস্ত্র ব্যবহৃত হচ্ছে, তার একটি বড় অংশ ব্যবহার করছে মুসলমানরা। ইসলামপন্থীদের উত্থানে এ হার ক্রমে বাড়ছে। তাই মুসলমানদের অস্ত্র ব্যবহার কমাতে এক ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের একটি অস্ত্রকারখানা। তবে উদ্যোগের কারণে তীব্র সমালোচনাও সামলাতে হচ্ছে প্রতিষ্ঠানটিকে।

ফ্লোরিডার আপোপকা শহরে অবস্থিত স্পাইকস ট্যাকটিক্যাল নামের অস্ত্র নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইটে ‘এআর‑১৫ ক্রুসেডার’ নামের রাইফেলটির একটি ছবিতে দেখা গেছে অস্ত্রটির গায়ে খোদাই করে একটি প্রতীক আঁকা রয়েছে। প্রতীকটি হলো একটি ঢালের গায়ে আটকানো ক্রুশ। এ প্রতীকটি মধ্যযুগের ধর্মযুদ্ধের সময় খ্রিস্টান যোদ্ধারা ব্যবহার করত।

বন্দুকটির আরেক গায়ে লেখা রয়েছে বাইবেলের স্তোত্র ১৪৪:১: ‘কৃতজ্ঞতা আমার প্রভুর জন্য, যিনি আমার হাতকে গড়েছেন যুদ্ধের জন্য, আর আঙুল লড়াইয়ের জন্য।’

অরলান্ডো সেনটিনেল নামের এক পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে স্পাইকস ট্যাকটিক্যালের মুখপাত্র এবং যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীর বিশেষ দলের সাবেক সদস্য বেন মুকি থমাস বলেন, তিনি এমন একটি রাইফেল চাইছিলেন, যেটি কোনো ধর্মভীরু মুসলমান স্পর্শ করতে পারবে না। ‘এক কথায়, এমন একটি রাইফেল চাইছিলাম, যা কোনো মুসলমান সন্ত্রাসী হাতে নেওয়ামাত্র বজ্রপাতের মতো আঘাত পাবে, আর সেখানেই মারা যাবে।’

যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে মাত্র এক হাজার ৩৯৫ ডলার দামের রাইফেলটির নিরাপত্তা নিশ্চিতের তিনটি ধাপের নাম দেওয়া হয়েছে ‘পিস’ [শান্তি], ‘ওয়্যার’ [যুদ্ধ] এবং ‘গড উইলস ইট’ [এটা ঈশ্বরের ইচ্ছা]।

ইসলামী সম্পর্ক পরিষদের ফ্লোরিডা শাখা বলেছে, এ বছর যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে ২৫০টি গণহত্যার ঘটনা ঘটেছে। এগুলোর মধ্যে মাত্র একটিতে একজন স্বঘোষিত মুসলমান জড়িত ছিল। ‘দুঃখজনক হলো, যা সত্যিই আমারিকার জন্য হুমকি, অর্থাৎ বন্দুক ঘটিত ক্রমবর্ধমান সংঘাত, তাকে এই নতুন বাহারি বন্দুকটি থামাতে পারবে না।… ঘৃণা, বিভক্তি এবং সহিংসতাকে আশ্রয় করে মুনাফা লোটার এ এক নতুন নির্লজ্জ বিপণন তৎপরতা।’

 

এনটিভি অনলাইন

আরও দেখুন:  বাংলাদেশ সরকারকে জাকির নায়েকের চ্যালেঞ্জ

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

Back to top button