শিক্ষামূলক গল্প

মা হাঁস ও কাকের গল্প

EWA A103 Bluetooth Speaker

মা হাঁসটির গা ছাই রংয়ের। আর ছানাগুলো হলুদ বর্ণের। তাদের ঠোঁটগুলো কালো। হাঁসটি এবার ডিমে তা দিয়ে ফুটিয়েছে পাঁচটি ছানা। আর ডিম থেকে ফুটানো ছানাগুলো নিয়ে এই প্রম নেমেছে পুকুরের পানিতে। পানি পেয়েই ছানাদের একি আনন্দ! তারা টুপটুপ করে ডুব দিচ্ছে পানিতে। গা ভেজাচ্ছে জলে। আবার কেউ কেউ ভেসে বেড়াচ্ছে এখানে সেখানে। তারা ছুটোছুটি করছে মনের আনন্দে। মা হাঁস তাদের এক জায়গায় করার জন্য তাদের পিছুপিছু ছুটছে বিরামহীন। কিন্তু কোনোমতেই পেরে উঠছে না তাদের সাথে। এক বাচ্চা যাচ্ছে এদিকে তো আরেকটা ঐদিকে। একজন ডানে তো আরেকজন বামে। তারা তাকে পাগল প্রায় করে তুলেছে। ছানাদের এমন এলোমেলো ঘুরাফেরা দেখে মা হাঁস তাদের নিয়ে চিন্তায় পড়ে যায়। প্যাকপ্যাক করে ডেকে তাদের কাছে আসতে বলে। কিন্তু কেউই তার কথা শুনে না। এভাবেই তো গতবার মা হাঁসটি তার তিনতিন ছানাকে হারিয়েছে সে। ঐ যে পুকুর পাড়ে যেই ডুমুর গাছ দেখা যাচ্ছে ঐখান থাকতো দুষ্ট এক কাক। ঐখান থেকে এক ছুঁ মেরে সে নিয়ে যায় তার ছানাগুলো। প্রম দিন একটি, তারপর আরেকটি। এর পরের দিন আরেকটি। মা হাঁস কিছু বুঝে উঠার আগেই কাকটি তিন তিনটি ছানা সাবাড় করে দিয়েছে। ঐ কথা মনে হতেই মা হাঁসের মন খারাপ হয়ে যায়। সে আরো লাফালাফি করে। ছানাগুলোকে এক করার চেষ্টা করে। কিন্তু কিছুতেই পারে না। এরই মধ্যে একটি ছানা দ্রুত ঐ ডুমুর গাছের দিকে যায়। মা হাঁস তা দেখে আঁতকে উঠে। ভয়ে সে দ্রুত ঐ ছানার দিকে যায়। মা হাঁসের পিছুপিছু ছুটে আসে বাকি চার ছানা। ডুমুর গাছের একটি ডাল হেলে পড়েছে পুকুরে। মা হাঁস ডুমুর গাছের হেলে পড়া ডালের পাতার আড়ালে দেখতে পায় একটি কাক। কাকটি পাতার আড়ালে ঘাপটি মেরে বসে আছে। কিন্তু ছানাটি তার কিছুই টের পায় না। মা হাঁস তাকিয়ে থাকে কাকের দিকে। ঐদিকে কাকটি ফন্দি আঁটে ছানাকে ছুঁ মেরে ধরার। আর তারপর মজা করে তাকে খাবার। কিন্তু মা হাঁসটি কিছুতেই ছানার আশপাশ থেকে সরে না। বাকি চার ছানাগুলো তখন সৌভাগ্যμমে তার কাছেই ছিল। মা হাঁস তাদেরও দেখে রাখে। সে যে আগের বার একটু ভুলের কারণে তিন তিনটি ছানাকে হারিয়েছে। কিন্তু এবার সে কোনোমতেই ছানাগুলোকে হারাতে চায় না। কাকটি মা হাঁসের বুদ্ধি বুঝতে পারে। সে আচমকা ডুমুর গাছ থেকে উড়ে যায় দূরের আমগাছে। সেখানে লুকিয়ে লুকিয়ে দেখে তাদের। সে মনে করে তাকে মা হাঁস দেখতে পাচ্ছে না। তার ধারণা মা হাঁস মনে করছে যে কাকটি দূরে চলে গেছে। আর এখন ছানাগুলোও যে যার মতো ঘুরে বেড়াক। ছানাগুলো এলোমেলো হয়ে গেলেই কাকটি আবার আসবে বলে ফন্দি আঁটে। আর ছুঁ মেরে একটি ছানা নিয়ে গিয়ে মজা করে খাবে বলে আড়ালে বসে বসে পাঁয়তারা করে। এবার সত্যি সত্যি ছানাগুলো এলোমেলো হয়ে যায়। মা হাঁস কোনোমতেই তাদের নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না। উপায় না দেখে সে তাদের চোখে চোখে রাখে। দুষ্ট কাক ভাবে, এই তো মা হাঁস তার ছানাগুলোকে ছেড়ে দিয়েছে। যাই, এখন একটা ছানা ধরে নিয়ে আসি। এই বলে সে দ্রুত উড়ে আসে পুকুরের ভেসে থাকা ছানাগুলোর দিকে। মা হাঁস তা টের পেয়েই উড়ে গিয়ে তাড়িয়ে দেয় কাকটি। তা দেখে ছানাগুলো ভীষণ ভয় পেয়ে যায়। তারা সবাই মায়ের পাখার নিচে লুকিয়ে পড়ে। তারা আর মায়ের কাছ থেকে দূরে যায় না। মায়ের সাথেই থাকে সবসময়। তারা বুঝতে পারে মায়ের কাছে থাকাটাই সবচেয়ে বেশি নিরাপদ।

 

সা জ্জা ক হো সে ন শি হা ব

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

Back to top button