সংবাদ

নিউ ইয়র্কে দুই ঈদে ছুটি থাকবে

মুসলমানদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহায় স্কুল ছুটির ঘোষণা দিয়েছেন নিউ ইয়র্ক সিটি মেয়র ডি ব্লাসিও।

গত সোমবার নিউ ইয়র্কের ব্রুকলিনের একটি পাবলিক স্কুলে আনুষ্ঠানিকভাবে এ ঘোষণা দেন তিনি। একে ঐতিহাসিক ঘোষণা বলে মন্তব্য করেছেন মুসলমানরা। মেয়র ব্লাসিও বলেন, ‘আমি ঘোষণা করছি যে, স্কুল হলিডে হিসেবে নিউ ইয়র্ক সিটিতে ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহার দিন অন্তর্ভুক্ত হবে।’

এ ঘোষণার ফলে বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতাদের সমালোচনার মুখে পড়বেন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি এই স্বীকৃতি দিয়েছি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান অনুসারে। ঘোষণা অনুসারে এ বছর সেপ্টেম্বর থেকে ছুটি কার্যকর হবে। সেই হিসেবে আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর ঈদুল আযহার দিন নিউ ইয়র্কের স্কুল ক্যালেন্ডারের পাতায় প্রথমবারের মতো ঈদ হলিডে অন্তর্ভুক্ত হবে। আর ঈদুল ফিতরের ছুটি হবে ২০১৬ সালের গ্রীষ্মকালে।’ মেয়র ব্লাসিও বলেন, ‘এটা অত্যন্ত সাধারণ বিষয় যে আমরা আজ বিকাশমান মুসলিম কমিউনিটিকে স্বীকৃতি দিতে পেরেছি এবং নিউ ইয়র্ক সিটিতে তাদের অবদানের মর্যাদা দিতে পেরেছি।’ এ সময় চ্যান্সেলর ফ্রানকা বলেন, নতুন এই ছুটির ঘোষণা শিক্ষণীয় একটি বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। যাতে করে ক্লাসে শিক্ষার্থীরা অন্য ধর্ম সম্পর্কে জানতে এবং সহনশীল হতে উৎসাহিত হবে।

উল্লেখ্য, নিউ ইয়র্কে প্রতি আটজন শিক্ষার্থীর মধ্যে একজন মুসলিম পরিবার থেকে আসা। ব্লাসিও’র এ ঘোষণা মুসলিম কমিউনিটিতে আনন্দের বার্তা নিয়ে আসে। তারা এটিকে ঐতিহাসিক ঘোষণা বলে উল্লেখ করে। কমিউনিটি এক্টিভিস্ট শাহানা মাসুম জানান, দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রাম আর প্রচেষ্টার ফসল এটি। যখন ঘোষণা হচ্ছিল তখন শুধু কেঁদেছি। আর আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করেছি। নিউ ইয়র্কের জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারের পরিচালক ইমাম শমসে আলী অনুভূতি জানাতে গিয়ে বলেন, নিউ ইয়র্কের অধিবাসী হিসেবে আজ আমি গর্বিত। নিউ ইয়র্কের পাঁচটি ব্যুরোর স্কুল শিক্ষার্থীদের ধর্মীয় অনুশাসন মানতে গিয়ে এখন আর স্কুল বাদ দিতে হবে না।

আরও দেখুন:  মালয়েশিয়ায় কুরআন হেফজকে জাতীয় শিক্ষায় অর্ন্তভুক্ত করা হচ্ছে

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

Back to top button