সংবাদ

নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা মক্কা নগরী

আহমেদ জামাল, মক্কা, সৌদি আরব থেকে: পবিত্র নগরী মক্কা এখন নিরাপত্তা চাদরে ঢাকা। এবারের হজ মনিটরিংয়ে অত্যন্ত উচ্চ প্রযুক্তির ক্যামেরা ব্যবহার করা হচ্ছে। হাজীদের নিরাপত্তায় বসানো  হয়েছে ৪২০০ ক্যামেরা। সোমবার সংবাদ সম্মেলনে হজ পরিচালনা ও নিয়ন্ত্রণ বিভাগের কমান্ডার মেজর জেনারেল আবদুল্লাহ যাহরানী এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, এ ক্যামেরাগুলো প্রতিকূল আবহাওয়াতেও ৬০ কিমি পর্যন্ত এলাকার তথ্য সরবরাহ করতে সক্ষম। জননিরাপত্তা বিভাগের ডিরেক্টর জেনারেল (ডিজি) আমাদের সর্বোচ্চ প্রযুক্তি ব্যবহার করার জন্য দিকনির্দেশনা দিয়েছেন। আর তাই আমরা নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ক্যামেরাগুলো স্থাপন করেছি। গুরুত্ব বিবেচনা করে এ সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। হজের সময়টাতে সরকারকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দেয়াই এ বিভাগের মূল লক্ষ্য। এ কর্মকর্তা বলেন, সৌদি বিদ্যুৎ বিভাগ থেকেও হজ উপলক্ষে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। প্রতি বছর সফলভাবে হজ সম্পন্ন করার ক্ষেত্রে সৌদি বিদ্যুৎ বিভাগ একটি বড় ভূমিকা পালন করে থাকে। হজের সময় মক্কা, মীনা, আরাফাহ ও মুজদালিফায় প্রায় ২০ লাখ মানুষের উপস্থিতি ঘটে। সৌদি বিদ্যুৎ বিভাগের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার (সিইও) আলী বিন সালেহ আল বারাক হজের সময় নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ব্যবস্থার পরিকল্পনা অনুমোদন করেন। তিনি বলেন, হজের সময় মক্কা ও মদিনার ক্রমবর্ধমান বিদ্যুৎ চাহিদা পূরণে সৌদি বিদ্যুৎ বিভাগ সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে আসছে। হজ উপলক্ষে মক্কার বিদ্যুৎ ব্যবস্থা দেখার জন্য আল-বারাক সৌদি বিদ্যুৎ বিভাগের মক্কা অফিস পরিদর্শন করেন। পরে মক্কার গভর্নর প্রিন্স খালিদ আল ফয়সালের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তাদের প্রস্তুতির ব্যাপারে গভর্নরকে ওয়াকিবহাল করান। তিনি গত পাঁচ বছরে তাদের কাজের সফলতা এবং আগামী পাঁচ বছরে আরও ৮৪০৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন বৃদ্ধি করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
আর এ জন্য ৫১ বিলিয়ন রিয়ালের ২০০টি নতুন প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।
এদিকে, এ বছর আন্তর্জাতিক নও মুসলিম সংস্থা (আইওএনএম) এবং আন্তর্জাতিক তাহফিজুল কোরান সংস্থা (আইকিউএমও) ২৫ জন নও মুসলিমকে হজ করার আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। এ সংস্থা দুটি হাসান সারবাতলি ফাউন্ডেশনের আমন্ত্রণে বিভিন্ন দেশ থেকে আগত হাফেজে কোরানদেরও সহায়তা দেবে। আন্তর্জাতিক নও মুসলিম সংস্থার সেক্রেটারি জেনারেল খালিদ আল রোমাইহ বলেন, ‘আমাদের সংস্থা নতুন ইসলাম গ্রহণকারী ব্যক্তিদের হজ পালনে সহায়তা করে থাকে। আমরা চাই, অন্য মুসলিমদের সঙ্গে নও মুসলিমদের একটি সুদৃঢ় সম্পর্ক তৈরি হোক।’ হাসান সারবাতলি ফাউন্ডেশনের ডেপুটি চেয়ারম্যান ইব্রাহিম সারবাতলি হজের সময় বিভিন্ন ধরনের সামাজিক কর্মকাণ্ডের ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেন।
আগামী ১৪ই অক্টোবর সোমবার হজ অনুষ্ঠিত হবে। এ বছর হজ পালন করার উদ্দেশে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে রোববার পর্যন্ত ১১ লাখ ৫৪৪ জন মুসল্লি মক্কা ও মদিনায় অবস্থান করছেন।

আরও দেখুন:  ইয়ামনে চলতি বছর দুর্ভিক্ষে মারা গেছে ৪০ হাযার শিশু

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

Back to top button