সংবাদ

দেশে প্রযুক্তির উল্লেখযোগ্য যত ঘটনা – ২০১২

২০১২ সালে বাংলাদেশে প্রযুক্তি ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য বেশ কিছু ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনার মধ্যে কয়েকটি নেতিবাচক হলেও অধিকাংশ ক্ষেত্রেই প্রযুক্তি ক্ষেত্রে বাংলাদেশের উন্নতির ধারা প্রকাশ করেছে। ২০১২ সালে প্রযুক্তি ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য ঘটনার মধ্যে রয়েছে সাইবার-যুদ্ধ, ইউটিউব বন্ধ, থ্রি-জি চালু, গুগলের কার্যক্রম চালু, আউটসোর্সিংয়ের উন্নতি, ই-কমার্স ও প্রযুক্তিপণ্যে নতুনত্ব।

সাইবার যুদ্ধ
বাংলাদেশের কয়েকটি সরকারি সংস্থার ওয়েবসাইট ভারতীয় হ্যাকারদের দ্বারা হ্যাক হওয়ার পর ভারতীয় ওয়েবসাইটে পাল্টা হ্যাকিং শুরু করে ‘বাংলাদেশ ব্ল্যাক হ্যাট হ্যাকারস’ নামের একটি হ্যাকার গ্রুপ। এভাবেই শুরু হয়েছিল ‘সাইবার-যুদ্ধ’। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো ওয়েবসাইট হ্যাকিংয়ের এ সাইবার-যুদ্ধের বিষয়টি বেশ গুরুত্ব দিয়েই প্রচার করা শুরু করেছিল। ৯ ফেব্রুয়ারি থেকে পরবর্তী ১০ দিনে ঘটে যাওয়া পাল্টাপাল্টি এ যুদ্ধ বছরের অন্যতম আলোচিত ঘটনা। ভারতের ‘ইন্ডিশেল’ নামের একটি হ্যাকার গ্রুপ বাংলাদেশের সরকারি সংস্থার কয়েকটি ওয়েবসাইট হ্যাক করার পর শুরু হয়েছিল এ সাইবার-যুদ্ধের। এরপর মাঠে নামে ‘ব্ল্যাক হ্যাট হ্যাকারস’। তাদের সহযোগী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে ‘থ্রিএক্সপায়ারথ্রি সাইবার আর্মি ও বাংলাদেশ সাইবার আর্মি নামের আরও দুটি দল।

ইউটিউব বন্ধ
২০১২ সালে বাংলাদেশে প্রযুক্তি ক্ষেত্রে বড় ঘটনার একটি ছিল ইউটিউব বন্ধ হয়ে যাওয়া। ইউটিউব থেকে মহানবী হজরত মুহাম্মদকে (সা.) কটাক্ষ করে নির্মিত মার্কিন চলচ্চিত্র না সরানোয় গত ১৭ সেপ্টেম্বর রাতে বাংলাদেশে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) দেশে গুগলের ভিডিও সেবা ইউটিউব বন্ধ করে দেয়, যা এখনো চালু হয়নি। সরকারের নির্দেশে বিটিআরসি প্রথমে চিঠি দিয়ে চলচ্চিত্রটি সরিয়ে ফেলার অনুরোধ জানিয়েছিল। এতে কাজ না হওয়ায় বিটিআরসি বাংলাদেশে ইউটিউব বন্ধ করে দেয়। চলচ্চিত্রটির ভিডিও ইউটিউবে প্রচারের পর থেকেই বিষয়টি নিয়ে মধ্যপ্রাচ্যসহ সারা বিশ্বের মুসলমানরা বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। সর্বশেষ গুগল বাংলাদেশকে সহযোগিতা করছে বলেই জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। শিগগিরই এ সাইটটি খুলে দেওয়ার আশা করছেন তারা।

থ্রি-জি চালু
দীর্ঘদিন ধরেই মানুষের মনে প্রশ্ন ছিল, বিশ্বে যেখানে ৪-জি আর ৫-জি নিয়ে কাজ চলছে, সেখানে কবে আমাদের দেশে আসবে থ্রি-জি বা তৃতীয় প্রজন্মের নেটওয়ার্ক-সুবিধা? এ বছরের ১৪ অক্টোবর আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হয়েছে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন মুঠোফোন অপারেটর টেলিটকের বহু প্রতীক্ষিত থ্রি-জি (থার্ড জেনারেশন) ফোনের সেবা। থ্রি-জি চালুর মাধ্যমে দেশের টেলিযোগাযোগ খাতে উন্মোচিত হয়েছে নতুন দিকের, জেগেছে নতুন সম্ভাবনা। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে থ্রি-জি প্রযুক্তির পরীক্ষামূলক বাণিজ্যিক সেবার উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা বলেন, ‘মুঠোফোন খাতে থ্রি-জির সংযোজন করে বাংলাদেশ এক নতুন মাইলফলক স্থাপন করল। এর ফলে মুঠোফোনে দ্রুতগতির ইন্টারনেট-সুবিধা পাওয়া যাবে এবং তথ্য-উপাত্ত আদান-প্রদান দ্রুত ও সহজ হবে। আগামী বছর দেশের অন্যান্য মুঠোফোন অপারেটরদের কাছেও থ্রি-জি লাইসেন্স দেওয়ার পরিকল্পনা করেছে সরকার।’

আরও দেখুন:  ভারতে গর্ভস্থ সন্তান ছেলে না মেয়ে তা নির্ধারণ নিয়ে জমজমাট ব্যবসা

গুগলের কার্যক্রম শুরু
বিশ্বের বৃহত্তম ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান গুগল আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশে তাদের কার্যক্রম শুরু করেছে। ভারতের পর দক্ষিণ এশিয়ার দ্বিতীয় দেশ হিসেবে বাংলাদেশে সরাসরি কার্যক্রম শুরু করল সার্চ ইঞ্জিন খ্যাত গুগল। গুগলে বাংলাদেশের প্রতিনিধি হিসেবে যোগ দিয়েছেন কাজী মনিরুল কবির। গত ৫ নভেম্বর বাংলাদেশের ‘কান্ট্রি কনসালট্যান্ট’ পদে গুগলে আনুষ্ঠানিকভাবে যোগদান করেন তিনি। তবে এখনই ঢাকায় অফিস স্থাপন করছে না গুগল। আপাতত গুগলের সিঙ্গাপুর অফিস থেকেই বাংলাদেশের সব কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। তবে বাংলাদেশে দ্রুতগতিতে বাড়তে থাকা ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের নিয়ে গুগল খুবই আশাবাদী বলে জানা গেছে। বর্তমানে বিশ্বের ৪৯টি দেশে গুগল তার কার্যালয় পরিচালনা করেছে। এসব দেশে গুগল বিভিন্ন বাণিজ্যিক সেবা দেওয়ার পাশাপাশি নিজস্ব মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম (অ্যান্ড্রয়েড), স্মার্টফোন-সম্পর্কিত বিভিন্ন সেবা সরাসরি দিয়ে থাকে।

দেশে আউটসোর্সিং প্রতিষ্ঠানগুলো কার্যক্রম শুরু
চলতি বছর বাংলাদেশে আনুষ্ঠানিকভাবে কাজ শুরু করেছে অনলাইন মার্কেটপ্লেস হিসেবে পরিচিত ‘ইল্যান্স’। বাংলাদেশে ফ্রিল্যান্সিং সাইটের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু করার ঘটনা এটাই প্রথম। বিশ্বের তৃতীয় দেশ হিসেবে আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য বাংলাদেশকে বেছে নিয়েছে ইল্যান্স। ফ্রিল্যান্সিং কাজের ক্ষেত্রে অনলাইন মার্কেটপ্লেস ইল্যান্সে বাংলাদেশের অবস্থান সপ্তম। ইল্যান্সারের তথ্য অনুযায়ী, সাইটটিতে ২৮ হাজারের বেশি বাংলাদেশি ফ্রিল্যান্সারের কাজ করেন। ৪ ডিসেম্বর বেসিস অডিটোরিয়ামে বাংলাদেশে ইল্যান্সের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম উদ্বোধন করেছেন প্রতিষ্ঠানটির ইউরোপীয় শাখার ভাইস প্রেসিডেন্ট জেতিল জে ওলসেন। ইল্যান্স ছাড়াও বিশ্বের বৃহত্তম অনলাইন মার্কেটপ্লেস ফ্রিল্যান্সার ডটকম বাংলাদেশি ফ্রিল্যান্সারদের সুবিধার্থে তাদের ওয়েবসাইটটির একটি বাংলাদেশি সংস্করণ চালু করেছে। বিশ্বে অনলাইনে কাজের দিক থেকে যুক্তরাষ্ট্র ও ভারতের পরই বাংলাদেশের অবস্থান।

স্থলপথে ইন্টারনেট
স্থলপথে ইন্টারনেট সংযোগ স্থাপিত হয়েছে বাংলাদেশে। এর আগে টেলিযোগাযোগ সেবা শুধু আন্তর্জাতিক সাবমেরিন কেবলের মাধ্যমেই বিশ্বের সঙ্গে সংযুক্ত ছিল। ফলে সি-মি-উই ৪ এ কোনো সমস্যা দেখা দিলেই সমস্যায় পড়ত দেশের ইন্টারনেট ব্যবস্থা। স্থলপথে ইন্টারনেট সংযোগ স্থাপনের ফলে এ সমস্যা সমাধান হবে বলেই আশা প্রকাশ করেছে বাংলাদেশের টেলিযোগাযোগ কর্তৃপক্ষ। আন্তর্জাতিক টেরেস্ট্রিয়াল কেবল (আইটিসি) সঙ্গে যুক্ত হওয়ার মাধ্যমে চলতি বছরের আগস্ট মাস থেকে দেশে পরীক্ষামূলকভাবে চালু হয়েছে দ্বিতীয় ইন্টারনেট ব্যাকআপ সংযোগ। বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে স্থলপথে চালু হয়েছে এ ইন্টারনেট যোগাযোগ-ব্যবস্থা। আইটিসি প্রতিষ্ঠান ওয়ান এশিয়া কমিউনিকেশন ও অ্যালায়েন্স হোল্ডিংস লিমিটেড বাংলাদেশে যৌথভাবে এ সংযোগ চালু করেছে। বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে ভারতের প্রতিষ্ঠান টাটার সঙ্গে কেবল সংযোগের কাজ শেষ হয়েছে। স্থাপন করা হয়েছে এসটিএম-৬৪ পয়েন্ট। আইটিসির মাধ্যমে নির্বিঘ্নভাবে ভয়েস, ভিডিও এবং তথ্যসেবা পাওয়া যাবে। আইটিসির মাধ্যমে প্রতি সেকেন্ডে ১০ গিগাবাইট তথ্য স্থানান্তর করার মতো গতি পাওয়া যাবে।
চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে বাংলাদেশ সরকার সাবমেরিন কেবলের পাশাপাশি ছয়টি প্রতিষ্ঠানকে আন্তর্জাতিক টেরেস্ট্রিয়াল কেবলে (আইটিসি) সংযুক্ত হওয়ার লাইসেন্স বা অনুমতি দিয়েছে।

আরও দেখুন:  তিউনিসিয়ায় ৮০টি মসজিদ বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে

দেশে নতুন প্রযুক্তিপণ্য
এ বছর দেশের বাজারে নতুন নতুন অনেক প্রযুক্তি পণ্যের প্রাচুর্য দেখা গেছে। এ বছর দেশের তরুণদের আগ্রহ ছিল স্মার্টফোন, ল্যাপটপ ও ট্যাবলেট কম্পিউটারে। এ বছর বাজারে এসেছে স্যামসাংয়ের গ্যালাক্সি সিরিজের নতুন স্মার্টফোন। তোশিবা, এইচপি, লেনোভোর নতুন মডেলের ল্যাপটপ। ট্যাবলেটের বাজারেও অ্যান্ড্রয়েডনির্ভর অনেক ট্যাবলেটের প্রতি ঝুঁকেছেন প্রযুক্তিপ্রেমীরা। তবে মুঠোফোনের বাজারে সবচেয়ে এগিয়ে রয়েছে সিম্ফনি ব্র্যান্ড।

ই-কমার্স সাইট চালু
বাংলাদেশের এ বছর উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে ই-কমার্সভিত্তিক ওয়েবসাইট। এ বছরে সুইডেনভিত্তিক প্রতিষ্ঠান বিক্রয় ডটকম বাংলাদেশে অনলাইনে পণ্য বেচা-কেনার নতুন প্ল্যাটফর্ম চালু করেছে।

(প্রথম আলো)

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

Back to top button