নারী অঙ্গন

ধবধবে ফরসা, কুচকুচে কালো

বিয়ের বাজারে সাদার দাম বেশি। কালো অপাংক্তেয়। ছেলের কাছে, ছেলের মায়ের কাছে। এমনকি যে নিজে কালো সেও চায় ফরসা বউ।

মানবতাবাদীরা বলবে, বর্ণভেদ মানি না – ভেতরে সবারই সমান লাল।
অথচ, এই দুনিয়ার সাদা চামড়া-কালো চামড়া আল্লাহর ইচ্ছেয় হয়েছে।
এর পেছনে কারণ আছে। মানুষকে আল্লাহ পরীক্ষা করেন।

সুন্দর মুখ নিয়ে কেউ অহংকার করে – অথচ এর পেছনে তার হাত নেই। হতে পারে ফর্সা মুখের পেছনে কুটিল একটা মন বসে আছে। হতে পারে লালচে মুখের ভেতরে খুব ধারালো একটা জিহবা আছে, শব্দে শব্দে হৃদয় চিরে দেয় হাসতে হাসতে।

মুখের সৌন্দর্য অন্তরের পবিত্রতার কোনো নিশ্চয়তা দেয় না।
কতই না কালো মানুষের অন্তরের আলোটা আমরা দেখতে পাই না।

একটা মেয়ে কত কথা শোনে কালো হলে! ইশ! অথচ যারা কথা বলে তারা আল্লাহর পছন্দকে অপছন্দ করছে।

বোনেরা, গায়ের রং নিয়ে মন খারাপ করবেন না। আল্লাহ যাকে যা দিয়েছেন তা খুশি মনে মেনে নেয়া উচিত। আপনি একজন অ্যালবিনোকে জিজ্ঞেস করুন – সে রোদে বেরুতে পারে না। সে আপনার কালো চামড়াটা পেলে আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করত।

এই পৃথিবীতে কালো-সাদা আল্লাহর ইচ্ছেয় হলেও কিয়ামাতের ব্যাপারটা তা নয়।

পরকালে সৎকর্মশীল মুমিনদের চেহারা হবে উজ্জল। আলো বের হতে থাকবে তার চামড়া থেকে। এই রং, এই সৌন্দর্য তার নিজের অর্জন।

কিয়ামতের দিন কাফিরদের, পাপীদের চেহারা হবে বীভৎস, কালো, মলিন। দুনিয়ার সাদামুখ আর থাকবে না। এই কালোত্ব তার কামাই।

ভাইয়েরা, রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বিয়ের সময় ধার্মিকতা দেখতে বলেছেন, রং না। যে ইসলাম মানার ব্যাপারে এগিয়ে থাকে তাকে ঘরে নিন ভালো থাকবেন।

ধার্মিকতা দেখা যায় না – মেনে নিচ্ছি। কিন্তু আপনি আসলে কী চান সেটা আল্লাহ ভালো জানেন। আপনি ফরসা চাইলে আল্লাহ সেটা দেবেন। ধার্মিকতা চাইলে আল্লাহ আপনাকে ফিরিয়ে দেবেন না। আল্লাহ তার বান্দাদের অন্তরের খবর জানেন। আল্লাহ তার বান্দাদের আকুল আবেদন কবুল করেন।

আরও দেখুন:  নারী নির্যাতন প্রতিরোধে ইসলামের ভূমিকা

অনন্তকালের জীবনে আপনার মুখ উজ্জ্বল হবে কিনা তার পেছনে আপনার স্ত্রীর
গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা থাকবে।

স্বল্প সময়ের দুনিয়া থেকে অনন্তকালের আখিরাত অনেক দামী। অনেক দামী।

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

Back to top button