বিদ্বানগণের উক্তি

সুফিয়ান ছাওরী (রহঃ)-এর অছিয়ত

শায়খুল ইসলাম, ইমামুল হুফফায এবং ইবাদতগুযার আলেমদের নেতা হিসাবে পরিচিত প্রখ্যাত তাবে তাবেঈ আবু আব্দুল্লাহ সুফিয়ান বিন সাঈদ আছ-ছাওরী (রহঃ) ৯৭ হিজরীতে কূফার বনু তামীম গোত্রে জন্মগ্রহণ করেন। প্রবল জ্ঞানান্বেষী এই মুহাদ্দিছের শিক্ষকের সংখ্যা প্রায় ছয়শ’ এবং ছাত্র প্রায় বিশ হাযার। তাঁর সম্পর্কে সুফিয়ান ইবনু উয়ায়না (রহঃ) বলেন, ‘সুফিয়ান ছাওরীর মত হালাল-হারাম সম্পর্কে অভিজ্ঞ ব্যক্তি আমি আর কাউকে দেখিনি’ (যাহাবী, সিয়ারু আ‘লামিন নুবালা ৭/২৩৮)

আববাসীয় খলীফা মানছূর তাঁকে বিচারকের দায়িত্ব পালনের আহবান জানালে তিনি তা প্রত্যাখ্যান করে কূফা ছেড়ে মক্কা-মদীনায় চলে যান এবং সেখানেই অবস্থান করতে থাকেন। পরবর্তীতে খলীফা মাহদী তাঁকে ডেকে পাঠালে তিনি আত্মগোপন করেন এবং বছরায় চলে যান। অতঃপর ১৬১ হিজরীতে সেখানেই মৃত্যুবরণ করেন (যিরিকলী, আল-আ‘লাম ৩/১০৪)

সুফিয়ান ছাওরী (রহঃ) একদা আলী ইবনুল হাসান আস-সালামীকে উদ্দেশ্য করে নিম্নোক্ত অছিয়ত করেন-

তোমার কর্তব্য হ’ল- সদা সত্যবাদিতা অবলম্বন করা। আর মিথ্যা, বিশ্বাসঘাতকতা, লৌকিকতা ও দাম্ভিকতা পরিহার করা। কেননা সৎকর্মকে আল্লাহ তা‘আলা এ সকল জিনিস দিয়ে বেষ্টন করে রেখেছেন।

তুমি এমন ব্যক্তির নিকট থেকে দ্বীনকে গ্রহণ কর, যে স্বীয় দ্বীনের ব্যাপারে সতর্ক। তোমার সঙ্গী যেন এমন ব্যক্তি হয়, যে তোমাকে দুনিয়ার প্রতি অনাগ্রহী করে তুলবে। তুমি মৃত্যুকে বেশী বেশী স্মরণ করবে এবং বেশী বেশী ক্ষমা প্রার্থনা করবে। আর তোমার যতটুকু আয়ুষ্কাল বাকি আছে তার জন্য আল্লাহ্র কাছে সুস্থতা কামনা করবে। যখন তোমাকে কেউ কোন দ্বীনী বিষয়ে জিজ্ঞেস করবে তখন তুমি প্রত্যেক মুমিনকে সদুপদেশ দিবে, আর কোন মুমিন ব্যক্তির সাথে বিশ্বাসঘাতকতা থেকে বিরত থাকবে। কেননা যে ব্যক্তি কোন  মুমিনের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করল, সে আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের সাথেই বিশ্বাসঘাতকতা করল। তুমি ঝগড়া ও অনর্থক বিতর্ক থেকে বেঁচে থাকবে এবং যা তোমাকে সন্দেহে নিপতিত করে এমন বিষয় ছেড়ে দিয়ে সন্দেহাতীত বিষয় গ্রহণ করবে। তাহ’লেই তুমি নিরাপদ থাকবে। সৎকাজের আদেশ করবে এবং অসৎকাজ থেকে নিষেধ করবে। তাহ’লে তুমি আল্লাহ্র বন্ধু হ’তে পারবে।

তুমি তোমার গোপন বিষয়গুলোকে সুন্দর কর, তাহ’লে আল্লাহ তোমার প্রকাশ্য বিষয়গুলোকে সুন্দর করে দিবেন। আর যে তোমার নিকট কোন বিষয়ে ওযর পেশ করে, তার ওযর গ্রহণ কর।

আরও দেখুন:  ‘আমানতদারিতা’ বিষয়ক উক্তি

তুমি কোন মুসলিমকে ঘৃণা করবে না। যে তোমার সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করে, তার সাথে সুসম্পর্ক বজায় রাখবে, আর যে তোমার প্রতি যুলুম করবে তাকে তুমি ক্ষমা করে দিবে, তাহ’লে নবীগণের বন্ধু হ’তে পারবে। তোমার গোপন ও প্রকাশ্য প্রত্যেকটি বিষয় যেন আল্লাহ্র নিকট ন্যস্ত করা হয়। তুমি আল্লাহ্কে ভয় করবে ঐ ব্যক্তির মত, যে জানে যে সে মৃত্যুবরণ করবে, পুনরুত্থিত হবে, হাশরের ময়দানে যাত্রা করবে এবং মহাপরাক্রমশালী আল্লাহ্র সামনে দন্ডায়মান হবে। দু’টি আবাসস্থলের যে কোন একটিকে তোমার প্রত্যাবর্তনস্থল হিসাবে স্মরণ করবে। হয় তা সুউচ্চ জান্নাত অথবা জাহান্নামের উত্তপ্ত আগুন (আবু নু‘আইম, হিলয়াতুল আওলিয়া)

সন্তানের প্রতি উমায়ের বিন হাবীব (রাঃ)-এর অছিয়ত

আনছার ছাহাবী উমায়ের বিন হাবীব (রাঃ) স্বীয় সন্তানকে অছিয়ত করে বলেন, ‘হে বৎস! মূর্খদের সাথে মেলামেশা থেকে বিরত থাকবে। কেননা তাদের সাথে ওঠাবসা করা এক প্রকার ব্যাধি। যে মূর্খের সঙ্গ থেকে ধৈর্যধারণ করে, সে তার ধৈর্যের কারণে আনন্দিত হয়। আর যে তার সঙ্গকে পসন্দ করে, সে তিরষ্কৃত হয়। যে ব্যক্তি কোন মূর্খের সামান্য কাজকে স্বীকৃতি দেয়না, সে তার সাথে ওঠাবসার কারণে তার সবকিছুকেই স্বীকৃতি দেয়।

তোমাদের কেউ যদি সৎকাজের আদেশ এবং অসৎ কাজ থেকে নিষেধ করতে চায়, তবে সে যেন এর পূর্বে নিজেকে কষ্টসহিষ্ণু হিসাবে গড়ে তোলে এবং মহান আল্লাহ্র পক্ষ থেকে এর প্রতিদান লাভের ব্যাপারে যেন দৃঢ় বিশ্বাসী হয়। কারণ যে ব্যক্তি আল্লাহ্র পক্ষ থেকে পুণ্য লাভের ব্যাপারে দৃঢ় বিশ্বাসী হবে, সে কোন কষ্টই অনুভব করবে না’ (বায়হাক্বী, শু‘আবুল ঈমান হা/৮৪৪৯)

মদীনার জনৈক শাসকের প্রতি ইমাম মালেক (রহঃ)-এর অছিয়ত

হাদীছ শাস্ত্রের উজ্জ্বল নক্ষত্র, ইমাম চতুষ্টয়ের অন্যতম মালেক বিন আনাস (রহঃ) ৯৩ হিজরীতে মদীনায় জন্মগ্রহণ করেন। ১৭৯ হিজরীতে তিনি মদীনায় মৃত্যুবরণ করেন এবং বাক্বীউল গারক্বাদ কবরস্থানে তাঁকে দাফন করা হয়।

আরও দেখুন:  অমুসলিমদের যবানীতে হযরত মুহাম্মাদ (ছাঃ) - ২

একদা ইমাম মালেক (রহঃ)-এর সামনে মদীনার গভর্ণরের প্রশংসা করা হ’লে তিনি রাগান্বিত হন এবং গভর্ণরের দিকে তাকিয়ে বলেন, ‘সাবধান! লোকেরা যেন আপনার উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করে আপনাকে ধোঁকায় না ফেলে। কেননা যে আপনার প্রশংসা করল এবং আপনার সম্পর্কে এমন ভালো কথা বলল যা আপনার মাঝে নেই, সে অচিরেই আপনার এমন দোষ বলে বেড়াবে, যা আপনার মাঝে নেই।

আত্মপ্রশংসার ব্যাপারে আল্লাহকে ভয় করুন। যখন কেউ আপনার মুখের উপরে আপনার প্রশংসা করবে, তখনও আপনি আল্লাহকে ভয় করুন। কেননা আমার নিকটে এ মর্মে হাদীছ পৌঁছেছে যে, রাসূলের সামনে এক ব্যক্তির প্রশংসা করা হলে তিনি বলেন, তুমি ধ্বংস হও! তুমি তোমার ভাইয়ের গর্দান উড়িয়ে দিলে (বুখারী হা/২৬৬২, মুসলিম হা/৩০০০)। তিনি আরও বলেন, ‘তোমরা প্রশংসাকারীদের মুখমন্ডলে মাটি নিক্ষেপ কর’ (মুসলিম, মিশকাত হা/৪৮৩২)

 

সংকলনে : বযলুর রশীদ

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

Back to top button