অর্থনীতি/ব্যবসা-বাণিজ্য

ইসলামী ব্যাংকসমূহে মুরাবাহায় বিনিয়োগ

আমানত গ্রহণ ও এর সুষ্ঠু বিনিয়োগই ব্যাংকের মূল কাজ। এ দুটি কাজ সম্পূর্ণ ইসলামী শরিয়াভিত্তিক করা গেলেই ব্যাংক হবে ইসলামী। ইসলামী ব্যাংকিংয়ে বিনিয়োগ চার ধরনের হতে পারে।
১. ব্যাংক নিজেই ব্যবসা করতে পারে।
২. অন্যকে ব্যবসার জন্য অর্থায়ন করতে পারে।
৩. কেনাবেচা করতে পারে।
৪. কোনো জিনিস কিনে তা ভাড়ায় খাটাতে পারে।

বর্তমানে ইসলামী ব্যাংকগুলোতে বহুল প্রচলিত বিনিয়োগের ধরন হলো কেনাবেচা (বাই)। বাই বা কেনাবেচার মধ্যেও সবচেয়ে প্রচলিত পদ্ধতি হলো “মুরাবাহা”। মুরাবাহা শব্দের উৎপত্তি ‘রিবহুন’ থেকে। এর আভিধানিক অর্থ হলো- অতিরিক্ত, বাড়তি, লাভ ইত্যাদি। পরিভাষায় মুরাবাহা হলো কোনো পণ্য ক্রয়ের পর ক্রয়মূল্যের ওপর নির্দিষ্ট পরিমাণ লাভ সংযোজন করে তা বিক্রি করা। যেমন কারও একটি গাড়ি প্রয়োজন। সে গাড়িটি কিনতে ব্যাংক থেকে সুদি ঋণ না নিয়ে ব্যাংকের সঙ্গে এ মর্মে চুক্তি করল যে, ব্যাংক গাড়িটি ক্রয় করে ক্রয়কৃত মূল্যের ওপর ১০ শতাংশ মুনাফায় তা তাকে সরবরাহ করবে। হাদিসেও এমন কেনাবেচার বৈধতার প্রমাণ রয়েছে। যেমন- হজরত হাকিম বিন হিজাম (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) তাকে এক দিনার দিয়ে একটি ছাগল কিনতে বাজারে পাঠালেন। তিনি গিয়ে এক দিনার দিয়ে একটি দুম্বা কিনে তা দুই দিনারে বিক্রি করে বাড়ি ফিরলেন। আবার গিয়ে এক দিনার দিয়ে একটি কোরবানির পশু কিনে অতিরিক্ত এক দিনারসহ পশুটি রাসুলুল্লাহ (সা.) এর কাছে পেশ করেন। সুদি ঋণ থেকে বাঁচার জন্য মুরাবাহা হলো একটি বিকল্প পন্থা।

মুরাবাহার ক্ষেত্রে গ্রাহককে শুধু পণ্যই সরবরাহ করা যাবে। যদি পণ্য না দিয়ে গ্রাহকের হাতে টাকা দিয়ে দেয় তাহলে তা অর্থায়নে পরিণত হয়ে যাবে। অথচ মুরাবাহা কোনো অর্থায়ন পদ্ধতি নয়; বরং তা হলো বিশেষ ধরনের ক্রয়-বিক্রয়। ইসলামে অর্থায়নের জন্য যেসব পদ্ধতির পথ খোলা রেখেছে তা হলো ‘মুদারাবা’ ও ‘মুশারাকা’। কয়েকজনের পুঁজি যৌথভাবে খাটিয়ে যে লাভ হয় তা নিজেদের মাঝে পূর্বনির্ধারিত হারে বণ্টন করে নেয়াই মুশারাকা। আর মুদারাবা হলো এক পক্ষের মূলধন আরেক পক্ষের শ্রমের সমন্বয়ে ব্যবসা করে যে লাভ হয় তা পূর্বনির্ধারিত হারে বণ্টন করে নেয়া। এ নিয়মে অর্থায়ন করলে ব্যাংক হবে সাহিবুল মালের (অর্থের জোগানদাতা) ভূমিকায়। আর মুরাবাহাভিত্তিতে বিনিয়োগ করলে ব্যাংকগুলো হবে ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের ভূমিকায়। সাধারণ ব্যাংকগুলো কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে অর্থায়ন করলে তা থেকে সুদ গ্রহণ করে থাকে। এতে সে ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের লোকসান হলেও ব্যাংককে দিতে হবে সুদ। কিন্তু ইসলামী অর্থনীতিতে অর্থায়নের যে সুযোগ রয়েছে তাতে নির্দিষ্ট হারে নিশ্চিত লাভ নেয়ার কোনো সুযোগ নেই। বরং তা হলো পুঁজি খাটিয়ে যদি লাভ হয় তা পূর্বনির্ধারিত হারে বণ্টন করে নেয়া। এ ক্ষেত্রে ব্যাংক যদি কোনো প্রতিষ্ঠানকে এক লাখ টাকা দেয় তাহলে এর বিপরীতে নির্দিষ্ট হারে কোনো লাভ নিতে পারবে না। বরং সে প্রতিষ্ঠান ব্যবসা করে যে মুনাফা অর্জন করবে তা থেকে পূর্বনির্ধারিত হারে ব্যাংক মুনাফা নেবে। প্রতিষ্ঠানের লাভ বেশি হলে ব্যাংকও হার অনুযায়ী বেশি পাবে। কম হলে কম পাবে। না হলে কোনো মুনাফাই পাবে না। লোকসান হলে তাও মেনে নিতে হবে ব্যাংককে। মুরাবাহার শর্ত না মানায় ক্রয়-বিক্রয় যদি অর্থায়ন হয়ে যায় তাহলে এ থেকে নির্দিষ্ট হারে লাভ করায় তা সুদে পরিণত হতে বাধ্য। মুরাবাহা বিক্রি নগদেও হতে পারে বাকিতেও হতে পারে। নগদে মূল্য পরিশোধ করলে ক্রয় মূল্যের ওপর শতকরা যত টাকা লাভ সংযোজন করা হবে বাকিতে মূল্য পরিশোধ করলে তাতে সংযোজিত লাভের হার অবশ্যই বেশি ধার্য করা যাবে।

আরও দেখুন:  পুঁজিবাদের পতনের যুগ

মুরাবাহার শর্তগুলো পূর্ণভাবে অনুসরণ না করা হলে সামান্য কারণেই তা পরিণত হবে সুদে। তাই মুরাবাহার পূর্ণ অনুশীলন প্রয়োজন। অনেক সময় দেখা যায় মুরাবাহার অনুশীলন শুধু কাগজে-কলমেই সীমাবদ্ধ থাকে। গ্রাহক কিছু ভাউচার জমা দিয়ে দেয়, আর ব্যাংক তাকে টাকা দিয়ে দেয়। গ্রাহকের হাতে যদি পণ্য না দিয়ে টাকা দেয়া হয় তাহলে তা কেনাবেচা না হয়ে হবে অর্থায়ন। এটি হবে মুরাবাহার নামে প্রতারণা।

অনেক সময় বাস্তবে মুরাবাহা চুক্তি হলেও ক্রয়কৃত পণ্যটি ব্যাংক নিজের দখলে না নিয়ে কোম্পানি থেকেই তা গ্রাহককে সরবরাহ করে দেয়। এটিও মুরাবাহাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে নিশ্চিতভাবে। কারণ ক্রয়-বিক্রয় বৈধ হওয়ার জন্য ওই পণ্যে বিক্রেতার মালিকানা প্রতিষ্ঠা প্রয়োজন। আবার অনেক সময় ব্যাংক মুরাবাহায় বিনিয়োগ করতে গিয়ে গ্রাহককে প্রদেয় পণ্যটির মূল্য যা হয় সেই পরিমাণ অর্থ বরাদ্দ করার পর ব্যাংক নিজে ওই পণ্যটি ক্রয়ের ঝামেলা এড়াতে গিয়ে খোদ গ্রাহককেই তা ক্রয়ের জন্য উকিল (প্রতিনিধি) নিয়োগ করে। গ্রাহকও সে পণ্যটি ব্যাংকের প্রতিনিধি হিসেবে ক্রয় করে ব্যাংককে তা বুঝিয়ে না দিয়েই গ্রাহক হিসেবে তা নিজের দখলে নিয়ে নেয়। এটিও জায়েজ নয়। হ্যাঁ, যদি গ্রাহক উকিল (প্রতিনিধি) হিসেবে ক্রয়ের পর তা ব্যাংককে বুঝিয়ে দেয়, ব্যাংকও তা গ্রাহকের কাছ থেকে বুঝে নেয়- উকিল হিসেবে তার দায়িত্ব শেষ হওয়ার পর ব্যাংক তাতে মালিকানা প্রতিষ্ঠা করে ফের যদি গ্রাহকের সঙ্গে ইজাব-কবুলের মাধ্যমে তার মুরাবাহা সম্পন্ন করে তাহলে তা জায়েজ হবে। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘কেউ কোনো জিনিস ক্রয় করার পর তা ভালোভাবে মেপে হস্তগত করার আগেই যেন তা বিক্রি না করে।’ হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘কেউ কোনো খাদ্যদ্রব্য ক্রয়ের পর তা কব্জ না করে যেন অন্যত্র বিক্রি না করে। হজরত ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, এ ক্ষেত্রে সব জিনিস খাদ্যদ্রব্যের মতোই।’

কোনো কোনো ক্ষেত্রে দেখা যায়, গ্রাহকের কাছ থেকে কোনো পণ্য ক্রয় করে আবার তারই কাছে তা অধিক মূল্যে বিক্রি করা হয়। যেমন ব্যাংক আবদুল্লাহর কাছ থেকে একটি মোটরসাইকেল ৫০ হাজার টাকায় ক্রয় করে তারপর আবার আবদুল্লাহর কাছেই ৫৫ হাজার টাকায় বিক্রি করল। তা কিছুতেই বৈধ নয়। তাছাড়া মোটরসাইকেলটি যখন ব্যাংক ক্রয় করে তখনই আবার বিক্রেতার (আবদুল্লাহর) কাছেই বিক্রি করার শর্তের কারণে প্রথম ক্রয়টিই অবৈধ হয়ে যাবে।

আরও দেখুন:  ইসলামে শ্রমিক-মালিক সম্পর্ক ও শ্রমিকের অধিকার

যথাসময়ে ঋণ অনাদায়ে সুদি ব্যাংকগুলো সুদকে আসলের সঙ্গে মিলিয়ে তার ওপর পরবর্তী মেয়াদের সুদ হিসাব করে থাকে। যতদিন ঋণ আদায় না করে ততদিন চক্রবৃদ্ধি হারে সুদ বাড়তে থাকে। পরিভাষায় যা রোল ওভার হিসেবে অভিহিত। কিন্তু ইসলামী ব্যাংকিংয়ে এমনটির কোনো সুযোগ নেই। কারণ, কোনো পণ্যে মূল্য একবার নির্ধারণ করার পর সেই চুক্তি বিদ্যমান থাকা অবস্থায় পুনঃ মূল্য নির্ধারণ করা জয়েজ নেই।

মুরাবাহা কেনাবেচা পূর্ণ শরিয়াভিত্তিক করতে ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যেমন হতে হবে আন্তরিক, তেমনি গ্রাহকদেরও এগিয়ে আসতে হবে। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় গ্রাহকরাই কৌশলে অর্থায়নে বাধ্য করছেন। ব্যাংক থেকে পণ্য গ্রহণ না করে সরাসরি টাকা গ্রহণের প্রবণতা কাজ করে। ইসলামী ব্যাংকিয়ের মূল লক্ষ্য হলো সুদের গোনাহ থেকে বেঁচে থাকা। কিন্তু মুরাবাহায় পণ্য না নিয়ে কৌশলে টাকা নেয়ায় তাতে  মূল লক্ষ্যটিই ব্যাহত হচ্ছে। এতে তা আর সুদমুক্ত থাকছে না। বরং তা হয়ে যাচ্ছে সুদি ঋণ।

– যুবায়ের আহমাদ

—————–
১. আল ফিকহু আলা মাজাহিবিল আরবায়া, ২/১২০
২. তিরমিজি, আবু দাউদ
৩. আবু দাউদ
৪. বুখারী, মুসলিম
৫. ইসলামী অর্থনীতির আধুনিক রূপায়ণ, পৃষ্ঠা-৪৭০

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

Back to top button