Download App
Domain/Hosting
Bangla InfoHub

আরো দেখুন...

34 টি মন্তব্য

  1. 10

    sohag

    যদি এমনি হয়, তা হলে ক্লিয়ার করে বলে দিন,যে পির বলতে কোন কিছু নেই,তার পর যোক্তিদিয়ে বোঝিয়েদন।

    Reply
  2. 9

    এম· শরীফ আহমদ

    পীর তন্ত্র বিষয়ে পোষ্টটির ভিন্নরূপ ব্যাখ্যা করা হয়েছে ৷ যা পোষ্টকারির বিদ্যা ও গবেষণার কমতি আছে বলে মনে হচ্ছে ৷ পোষ্ট লেখার সময় তার মাথায় পীরের প্রতি হিংসা বিদ্বেষ ছিল বলে তার শুধু একটি চোখ খোলা ছিল ৷ সে পীরদের কথা নিয়ে একটু ভাবার চেষ্টা করেনি ৷ সে শুধুই তার মনোভাব প্রমাণ করার জন্য ব্যাস্ত ছিল ৷ যে ব্যাক্তি কথার সিয়াক -সাবাক বুঝেনা সে কি করে কলামিস্ট হতে চায় আমার বুঝে আসে না ৷

    Reply
    1. 9.1

      nasrul

      আরে ভাই তা হলে তুই বলে দে পীর কেন মানবো কুরানে কোন জায়গায় পীর মানার কথা বলা হয়েছে

      Reply
  3. 8

    Md.Nazrul Islam

    মহান আল্লাহ পাক আপনার মঙ্গল করুন. এই লিখা পরে আমি অনেক অনেক উপকৃত হয়েছি, শুকরিয়া জনাব. Amin.

    Reply
    1. 8.1

      এম এ আই হানিফ গনিপুরী

      কুরআন হাদীসে পীর মুরিদীর প্রমাণঃ-
      আল্লাহ তাআলা পবিত্র কুরআনে ইরশাদ
      করেছেন-
      ﻳَﺎ ﺃَﻳُّﻬَﺎ ﺍﻟَّﺬِﻳﻦَ ﺁَﻣَﻨُﻮﺍ ﺍﺗَّﻘُﻮﺍ ﺍﻟﻠَّﻪَ ﻭَﻛُﻮﻧُﻮﺍ ﻣَﻊَ ﺍﻟﺼَّﺎﺩِﻗِﻴﻦَ
      #অনুবাদ -হে মুমিনরা! আল্লাহকে ভয়
      কর, আর সৎকর্মপরায়নশীলদের সাথে
      থাক। {সূরা তাওবা-১১৯)
      এ আয়াতে কারীমায় সুষ্পষ্টভাবে
      বুযুর্গদের সাহচর্যে থাকার নির্দেশ
      দেয়া হয়েছে।
      ﺍﻫْﺪِﻧَﺎ ﺍﻟﺼِّﺮَﺍﻁَ ﺍﻟْﻤُﺴْﺘَﻘِﻴﻢَ ﺻِﺮَﺍﻁَ ﺍﻟَّﺬِﻳﻦَ ﺃَﻧْﻌَﻤْﺖَ ﻋَﻠَﻴْﻬِﻢْ
      অনুবাদ- আমাদের সরল সঠিক পথ
      [সীরাতে মুস্তাকিম] দেখাও। তোমার
      নিয়ামতপ্রাপ্ত বান্দাদের পথ। {সূরা
      ফাতিহা-৬,৭}
      সূরায়ে ফাতিহায় মহান রাব্বুল
      আলামীন তাঁর নিয়ামাতপ্রাপ্ত
      বান্দারা যে পথে চলেছেন সেটাকে
      সাব্যস্ত করেছেন সীরাতে মুস্তাকিম।
      আর তার নিয়ামত প্রাপ্ত বান্দা হলেন-
      ﺍﻟَّﺬِﻳﻦَ ﺃَﻧْﻌَﻢَ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻋَﻠَﻴْﻬِﻢْ ﻣِﻦَ ﺍﻟﻨَّﺒِﻴِّﻴﻦَ ﻭَﺍﻟﺼِّﺪِّﻳﻘِﻴﻦَ ﻭَﺍﻟﺸُّﻬَﺪَﺍﺀِ ﻭَﺍﻟﺼَّﺎﻟِﺤِﻴﻦَ
      #অনুবাদ -যাদের উপর আল্লাহ তাআলা
      নিয়ামত দিয়েছেন, তারা হল নবীগণ,
      সিদ্দীকগণ, শহীদগণ, ও নেককার
      বান্দাগণ। {সূরা নিসা-৬৯}
      এ দু’ আয়াত একথাই প্রমাণ করছে যে,
      নিয়ামতপ্রাপ্ত বান্দা হলেন নবীগণ,
      সিদ্দীকগণ, শহীদগণ, আর নেককারগণ,
      আর তাদের পথই সরল সঠিক তথা
      সীরাতে মুস্তাকিম। অর্থাৎ তাদের
      অনুসরণ করলেই সীরাতে মুস্তাকিমের
      উপর চলা হয়ে যাবে।
      যেহেতু আমরা নবী দেখিনি, দেখিনি
      সিদ্দীকগণও, দেখিনি শহীদদের। তাই
      আমাদের সাধারণ মানুষদের কুরআন
      সুন্নাহ থেকে বের করে সীরাতে
      মুস্তাকিমের উপর চলার চেয়ে একজন
      পূর্ণ শরীয়তপন্থী হক্কানী বুযুর্গের
      অনুসরণ করার দ্বারা সীরাতে
      মুস্তাকিমের উপর চলাটা হবে সবচেয়ে
      সহজ। আর একজন শরীয়ত সম্পর্কে প্রাজ্ঞ
      আল্লাহ ওয়ালা ব্যক্তির সাহচর্য গ্রহণ
      করার নামই হল পীর মুরিদী।
      রাসূলে কারীম (সাঃ) একাধিক স্থানে
      নেককার ব্যক্তিদের সাহচর্য গ্রহণ করার
      প্রতি গুরুত্বারোপ করেছেন। যেমন-
      ﻋﻦ ﺃﺑﻲ ﻣﻮﺳﻰ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻋﻦ ﺍﻟﻨﺒﻲ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭ ﺳﻠﻢ
      ﻗﺎﻝ ‏( ﻣﺜﻞ ﺍﻟﺠﻠﻴﺲ ﺍﻟﺼﺎﻟﺢ ﻭﺍﻟﺴﻮﺀ ﻛﺤﺎﻣﻞ ﺍﻟﻤﺴﻚ ﻭﻧﺎﻓﺦ ﺍﻟﻜﻴﺮ
      ﻓﺤﺎﻣﻞ ﺍﻟﻤﺴﻚ ﺇﻣﺎ ﺃﻥ ﻳﺤﺬﻳﻚ ﻭﺇﻣﺎ ﺃﻥ ﺗﺒﺘﺎﻉ ﻣﻨﻪ ﻭﺇﻣﺎ ﺃﻥ ﺗﺠﺪ ﻣﻨﻪ
      ﺭﻳﺤﺎ ﻃﻴﺒﺔ ﻭﻧﺎﻓﺦ ﺍﻟﻜﻴﺮ ﺇﻣﺎ ﺃﻥ ﻳﺤﺮﻕ ﺛﻴﺎﺑﻚ ﻭﺇﻣﺎ ﺃﻥ ﺗﺠﺪ ﺭﻳﺤﺎ
      ﺧﺒﻴﺜﺔ )
      #অনুবাদ – হযরত আবু মুসা রাঃ থেকে
      বর্ণিত। রাসূল (সাঃ) ইরশাদ করেছেন-
      সৎসঙ্গ আর অসৎ সঙ্গের উদাহরণ হচ্ছে
      মেশক বহনকারী আর আগুনের পাত্রে
      ফুঁকদানকারীর মত। মেশক বহনকারী হয়
      তোমাকে কিছু দান করবে কিংবা তুমি
      নিজে কিছু খরীদ করবে। আর যে ব্যক্তি
      আগুনের পাত্রে ফুঁক দেয় সে হয়তো
      তোমার কাপড় জ্বালিয়ে দিবে, অথবা
      ধোঁয়ার গন্ধ ছাড়া তুমি আর কিছুই পাবে
      না।
      {সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৫২১৪, সহীহ
      মুসলিম, হাদীস নং-৬৮৬০, মুসনাদুল
      বাজ্জার, হাদীস নং-৩১৯০, সুনানে আবু
      দাউদ, হাদীস নং-৪৮৩১, সহীহ ইবনে
      হিব্বান, হাদীস নং-৫৬১, মুসনাদে আবী
      ইয়ালা, হাদীস নং-৪২৯৫, মুসনাদে
      আহমাদ, হাদীস নং-১৯৬৬০, মুসনাদুল
      হুমায়দী, হাদীস নং-৭৭০, মুসনাদুশ
      শামীন, হাদীস নং-২৬২২, মুসনাদুশ
      শিহাব, হাদীস নং-১৩৭৭, মুসনাদে
      তায়ালিসী, হাদীস নং-৫১৫}
      :
      এছাড়াও অনেক হাদীস নেককার ও বুযুর্গ
      ব্যক্তিদের সাহচর্য গ্রহণের প্রতি
      তাগিদ বহন করে।
      আর সবচে’ বড় কথা হল-বর্তমান সময়ে
      অধিকাংশ মানুষই দ্বীন বিমুখ। যারাও
      দ্বীনমুখী, তাদের অধিকাংশই কুরআন
      হাদীসের আরবী ইবারতই সঠিকভাবে
      পড়তে জানে না, এর অর্থ জানবেতো
      দূরে থাক।
      আর যারাও বাংলা বা অনুবাদ পড়ে
      বুঝে, তাদের অধিকাংশই আয়াত বা
      হাদীসের পূর্বাপর হুকুম, বা এ বিধানের
      প্রেক্ষাপট, বিধানটি কোন সময়ের জন্য,
      কাদের জন্য ইত্যাদী বিষয়ে সম্যক
      অবহিত হতে পারে না। তাই বর্তমান
      সময়ে একজন সাধারণ মানুষের পক্ষে
      কুরআন সুন্নাহ থেকে নিজে বের করে
      আল্লাহ তাআলার উদ্দিষ্ট সীরাতে
      মুস্তাকিমে চলা বান্দার জন্য
      কষ্টসাধ্য। তাই আল্লাহ তাআলা সহজ পথ
      বাতলে দিলেন একজন বুযুর্গের পথ অনুসরণ
      করবে, তো সীরাতে মুস্তাকিমেরই
      অনুসরণ হয়ে যাবে।
      কিন্তু কথা হচ্ছে যার অনুসরণ করা হবে
      সে অবশ্যই সীরাতে মুস্তাকিমের পথিক
      হতে হবে। অর্থাৎ লোকটি {মুরশীদ বা
      পীর} এর মাঝে থাকতে হবে শরীয়তের
      পূর্ণ অনুসরণ। বাহ্যিক গোনাহ থেকে
      হতে হবে মুক্ত। কুরআন সুন্নাহ সম্পর্কে
      হতে হবে প্রাজ্ঞ। রাসূল সাঃ এর
      সুন্নাতের উপর হতে হবে অবিচল। এমন
      গুনের অধিকারী কোন ব্যক্তি যদি
      পাওয়া যায়, তাহলে তার কাছে গিয়ে
      তার কথা মত দ্বীনে শরীয়ত মানার
      নামই হল পীর মুরিদী। এরই নির্দেশ
      আল্লাহ তাআলা কুরআনে দিয়েছেন-
      ﻳَﺎ ﺃَﻳُّﻬَﺎ ﺍﻟَّﺬِﻳﻦَ ﺁَﻣَﻨُﻮﺍ ﺍﺗَّﻘُﻮﺍ ﺍﻟﻠَّﻪَ ﻭَﻛُﻮﻧُﻮﺍ ﻣَﻊَ ﺍﻟﺼَّﺎﺩِﻗِﻴﻦَ
      অনুবাদ-হে মুমিনরা! আল্লাহকে ভয় কর,
      আর সৎকর্মপরায়নশীলদের সাথে থাক।
      {সূরা তাওবা-১১৯)
      #বিঃদ্রঃ আখেরাতে নাজাত পাওয়ার
      জন্য মুরীদ হওয়া জরুরী নয়। তবে একজন
      হক্কানী পীরের কাছে মুরীদ হলে
      শরীয়তের বিধান পালন ও নিষিদ্ধ বিষয়
      ছেড়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে নিষ্ঠা আসে
      মুরুব্বীর কাছে জবাবদিহিতা থাকার
      দরুন। সেই সাথে আল্লাহর ভয়, ইবাদতে
      আগ্রহ সৃষ্টি হয়। পক্ষান্তরে বেদআতি,
      ভন্ড, মাজারপূজারী, বেপর্দা পীরের
      কাছে মুরিদ হলে ঈমানহারা হওয়ার সমূহ
      সম্ভাবনা থাকে। বিশেষ করে আটরশী,
      দেওয়ানবাগী, কুতুববাগী,
      মাইজভান্ডারী, রাজারবাগী, ফুলতলী,
      মানিকগঞ্জী, কেল্লাবাবা ইত্যাদী
      পীর সাহেবের দরবারে গেলে
      ঈমানহারা হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা
      রয়েছে। তাই সাবধান পীর নির্ধারণের
      ক্ষেত্রে।
      :

      Reply
      1. 8.1.1

        সাকিব

        মন্তব্য… পীর মানি না। আমার পীর এর দরকার নাই। শরিয়ত মানলেই হবে।
        পীর ধইরা পাগল হতে চাইনা

        Reply
      2. 8.1.2

        ইমরান

        ভাই পীরের মধ্যেই ফিরকা আছে তাই আসুন পিতলের অনুসরণ করি যাদের কথা কিতাব আল্লাহ রাসুলের কথা বলে এবং আমরা যাচাই করে দেখি তারা আসলে ও সঠিক বর্তমানে দেখা যায় হক্কানী পীরের নামে যারা বলে আমরা হক্কানী পীর তাদের বাপ দাদার লেখা এবং তাদের লেখা বইয়ে বিভিন্ন গুজব কাহিনী লেখা থাকে তাই আমরা এসব বাদ দিয়ে নেককার সলেহিন বান্দাদের কাছ থেকে ইসলামের কিছু শিখি এবং সেগুলো যাচাই করে মিলিয়ে নেই তারা কোরআন হাদিস থেকে বলছে কি না

        Reply
  4. 7

    sahebul islam

    মন্তব্য…পীরতনতরো বইটি কি ভাবে pdf ডাউনলোড করবো

    Reply
  5. 6

    মামুন খান

    আর এ পথই আমার সরল পথ; সুতরাং তোমরা এ পথেরই অনুসরন কর। এ পথ ছাড়া অন্যান্য কোন পথের অনুসরণ করো না, অন্যথায় তোমাদেরকে তাঁর পথ থেকে বিচ্ছিন্ন করে দূরে সরিয়ে দেবে, আল্লাহ তোমাদেরকে এই নির্দেশ দিলেন, যেন তোমরা বেঁচে থাকতে পার। (সূরা আন’আম আয়াত ১৫৩)

    Reply
  6. 5

    মামুন খান

    পীর ধরা ফরজ যেমন চোর ধরা ফরজ
    যেখানেই পীর পাবেন ধরে পিটাবেন।

    Reply
  7. 4

    aminul islam

    amake onekei jigges kore….ei website kader… kara post kore thaken..? ami ki ei web site er kono alem saheb er sathe jogajog korte pari…ta kivabe ektu janale khushi hobo..

    Reply
    1. 4.1

      সহ-সম্পাদক

      এই ওয়েবসাইটের সাথে কোনো আলেম সরাসরি যুক্ত নন।

      Reply
  8. 3

    Alam Khan

    (সুরা শু’রা ২৬:১৩) এই তথ্যসুত্রটি ভুল সেটা হবে – সুরা #৪২ আয়াত #১৩

    Reply
  9. 2

    Alam Khan

    এটা পীর সম্পর্কীত আমার পড়া প্রবন্ধগুলির মধ্যে অন্যতম ভাল প্রবন্ধ। এ’টি কম কথা, বেশী উদৃতি, ব্যক্তিগত বা দলগত আক্রমনহীন, সংগ্রহে রাখার মত একটি অনবদ্য প্রবন্ধ। দেরীতে হলেও এই লেখা পড়ে আমার অনেক তৃষ্ণা মিঠেছে। লেখককে ধন্যবাদ। আল্লাহ আপনাকে আরো বেশী বেশী ইসলামের খেদমত করার তৌফিক দান করুন………আমীন…………….

    Reply
  10. 1

    Md monsur ali

    Vai kob valo lag lo.

    Amka eman. bol cha per
    Ar mored hota
    Ame taka. A bar dorbo
    Kano islam neya ato
    Volo kota bola
    .ame apnar irf neyo meto pore.
    100% WEB TE VALO
    ONAK KE CHO JANTA
    PARLAM

    Reply

মন্তব্য করুন

© ২০১১-২০ ইসলামিক অনলাইন মিডিয়া