হজ্জ ও ওমরাহ

এ বছর লিবীয় হজযাত্রীদের খরচ বহন করবে সরকার

এ বছর লিবীয় হজযাত্রীদের পুরো খরচ বহন করবে দেশটির সরকার। এ জন্য দেশটির সরকার ২০ কোটি দিনার বা ৪ কোটি ১৫ লাখ ২০ হাজার ৮০০ মার্কিন ডলার বরাদ্দ রেখেছে। খবর আরব নিউজের।

২০১৯ সালে বিশ্বের ২৫ লাখ মুসলিম হজ পালনের সুযোগ পেলেও পরবর্তী দুই বছর করোনার বিধিনিষেধের কারণে কেবল সউদীর কিছু মুসল্লি হজ পালন করতে পেরেছেন। এর মধ্যে ২০২০ সালে মাত্র এক হাজার মুসল্লি এবং ২০২১ সালে করোনার প্রকোপ কিছুটা কমে আসায় সউদীতে অবস্থানকারী বিদেশিসহ ৬০ হাজার মুসল্লি পবিত্র হজ পালনের সুযোগ পেয়েছিলেন।
তবে এ বছর করোনার টিকা নেওয়া আছে এমন মুসল্লিরা যে কোনো দেশ থেকেই সউদী আরবে এসে হজ পালনের সুযোগ পাচ্ছেন।

এ বছরের এপ্রিল থেকে সউদী আরবে করোনার বিধিনিষেধ তুলে নেওয়া হয়েছে। করোনার প্রকোপ কমে যাওয়া এ বছর সউদী আরবসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ১০ লাখ মুসল্লি পবিত্র হজ পালনের সুযোগ পাচ্ছেন। আগামী ৭ জুলাই থেকে সউদী আরবে পবিত্র হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে।

এ বছর বিশ্বের সব দেশেই বেড়েছে পবিত্র হজের ব্যয়। আরব দেশগুলোও এ বাড়তি খরচের বাইরে নয়। জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি পাওয়ায় এবং সউদী আরব হজযাত্রীদের কর ৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১৫ শতাংশ করায় এ বছর হজের খরচ বেড়েছে। অন্য বছরগুলোর তুলনায় এ বছর আরব দেশগুলোর মধ্যে হজে সবচেয়ে বেশি ব্যয় হচ্ছে কাতারের নাগরিকদের। এ বছর তাদের জনপ্রতি হজে খরচ ধরা হয়েছে ১০ হাজার ৯৭১ ডলার। এর পরই আছে আমিরাত ১০ হাজার ৮২১ ডলার এবং তিউনিসিয়া ৯ হাজার ৮৮৪ ডলার।

অন্যদিকে আরব দেশগুলোর মধ্যে এ বছর সবচেয়ে কম খরচে হজ পালনের সুযোগ পাচ্ছেন ওমানের নাগরিকরা। তাদের খরচ পড়ছে এক হাজার ৭৯৭ ডলার। এর পরই আছে জর্ডান ২ হাজার ৯৬১ ডলার ও সউদী আরব ৩ হাজার ১৯৮।
এ বছর আরব অন্য দেশগুলোর খরব যথাক্রমে, লেবানন ৯০০০ ডলার, কুয়েত ৭৫৭৮ ডলার, বাহরাইন ৭৫৫৯ ডলার, মিস ৬ হাজার ৯১০ ডলার, ফিলিস্তিন ৬ হাজার ২৩৪ ডলার, আলজেরিয়া ৫ হাজার ৮৫৩ ডলার, সুদান ৫ হাজার ৪৪৭, ইরাক ৩ হাজার ৮২৫, সিরিয়া ৩ হাজার ৭০০ ও ইয়েমেন ৩ হাজার ৪১৬ ডলার। (আরব নিউজ)

আরও দেখুন:  ৩০টি মসজিদ উদ্বোধন শারজায়

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

আরও দেখুন
Close
Back to top button