সাম্প্রতিক প্রসঙ্গ

নিহত আবরার নিহত দেশপ্রেম

কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপযেলার কয়া ইউনিয়নের রায়ডাঙ্গা গ্রামে শত শত মুছল্লীর অশ্রুবন্যার মধ্যে তৃতীয় জানাযা শেষে ছাত্রলীগের হাতে নিহত বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ২য় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদের দাফন সম্পন্ন হয়। এই নিষ্ঠুর হত্যাকান্ডে কেঁদেছে সারা দেশ, কেঁদেছে সকল দরদী প্রাণ। কুষ্টিয়া শহরের পিটিআই সড়কে নিজ বাড়িতে সে তার পিতা-মাতা ও ছোট ভাইয়ের সাথে বসবাস করত। দাদার আমল থেকে তার পুরা পরিবার আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবূবুল আলম হানীফের প্রতিবেশী তারা। তার পিতা বরকতুল্লাহ ব্র্যাকের অডিটর এবং মা রোকেয়া খাতুন কিন্ডারগার্টেনের শিক্ষিকা। আবরারের ছোট ভাই আবরার ফাইয়ায ঢাকা কলেজে এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। ভাই নিহত হ’লে সে আর ঢাকায় পড়বেনা বলে বাপ-মাকে জানিয়ে দিয়েছে। বুয়েটের শেরে বাংলা হলে আবরারকে তার ১০১১ নং কক্ষ থেকে বড় ভাইদের ২০১১ নং কক্ষে ডেকে নিয়ে বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের ২৩ জন নেতা নামধারী দুর্বৃত্ত ঠান্ডা মাথায় ৭ই অক্টোবর রাত ৮-টা থেকে ৩-টা পর্যন্ত সাত ঘণ্টা ধরে পিটিয়ে হত্যা করে সিঁড়িতে লাশ ফেলে রাখে। মৃত্যুর আগে পানি খেতে চাইলেও এই নিষ্ঠুররা তাকে পানি পর্যন্ত দেয়নি। অষ্টম ও দশম শ্রেণীতে বিশেষ বৃত্তিধারী, এসএসসি ও এইচএসসি-তে গোল্ডেন জিপিএ-৫ ধারী, ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় ২য় স্থান অধিকারী, একই সাথে মেডিকেল ও বুয়েটে ভর্তির সুযোগ লাভকারী, অসাধারণ মেধাবী এই নম্র-ভদ্র পাঁচ ওয়াক্ত ছালাতে অভ্যস্ত তরুণ ছাত্রটি মাত্র ২১ বছর বয়সে পশু শক্তির হাতে নিহত হ’ল। একটি উদীয়মান নক্ষত্রের পতন হ’ল। আগের দিন কুষ্টিয়া থেকে ঢাকায় এসে সন্ধ্যা ৫-টা ১০ মিনিটে সে মাকে মোবাইলে পৌঁছানোর সংবাদ দিয়েছিল। কিন্তু রাতেই সব শেষ। এই সাথে ধ্বসে পড়ল তাকে হত্যাকারী বুয়েট ছাত্রদের পিতা-মাতাদের স্বপ্নচূড়া। আবরার অমর হ’ল। কিন্তু নিহত হ’ল দেশপ্রেম। নিহত হ’ল বাকস্বাধীনতা। পরদিন আবরারের প্রাণহীন লাশ মায়ের কাছে এসে পৌঁছে। অপরাধ, দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে সে ফেসবুকে নিজস্ব মতামত ব্যক্ত করেছিল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৪ঠা অক্টোবরের দিল্লী সফরের উপর মন্তব্য করে সে লিখেছিল,

১. ৪৭-এ দেশভাগের পর দেশের পশ্চিমাংশে কোন সমুদ্রবন্দর ছিল না। তৎকালীন সরকার ছয় মাসের জন্য কলকাতা বন্দর ব্যবহারের জন্য ভারতের কাছে অনুরোধ করল। কিন্তু দাদারা নিজেদের রাস্তা নিজেদের মাপার পরামর্শ দিচ্ছিল। বাধ্য হয়ে দুর্ভিক্ষ দমনে উদ্বোধনের আগেই মংলা বন্দর খুলে দেয়া হয়েছিল। ভাগ্যের নির্মম পরিহাস আজ ইন্ডিয়াকে সে মংলা বন্দর ব্যবহারের জন্য হাত পাততে হচ্ছে। ২. কাবেরি নদীর পানি ছাড়াছাড়ি নিয়ে কানাড়ি আর তামিলদের কামড়াকামড়ি কয়েকবছর আগে শিরোনাম হয়েছিল। যে দেশের এক রাজ্যই অন্যকে পানি দিতে চায় না সেখানে আমরা বিনিময় ছাড়া দিনে দেড়লাখ কিউসেক মিটার পানি দেব। ৩. কয়েক বছর আগে নিজেদের সম্পদ রক্ষার দোহাই দিয়ে উত্তর ভারত কয়লা-পাথর রফতানী বন্ধ করেছে। অথচ আমরা তাদের গ্যাস দেব। যেখানে গ্যাসের অভাবে নিজেদের কারখানা বন্ধ করা লাগে, সেখানে নিজের সম্পদ দিয়ে বন্ধুর বাতি জ্বালাব। হয়তো এসুখের খোঁজেই কবি লিখেছেন- ‘পরের কারণে স্বার্থ দিয়া বলি’ ‘এ জীবন মন সকলি দাও, ‘তার মত সুখ কোথাও কি আছে’ ‘আপনার কথা ভুলিয়া যাও?’

লাশ ও খুনী তৈরীর ছাত্র রাজনীতি :

সব সরকারই বলে থাকেন, হত্যার সঙ্গে জড়িত কেউ ছাড় পাবে না। কিন্তু পরিসংখ্যান তাঁদের এ বক্তব্য সমর্থন করে না। স্বাধীনতার পর থেকে এযাবৎ দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে ১৫১ জন শিক্ষার্থী খুন হয়েছে বলে পত্রিকান্তরে প্রকাশ। যদিও প্রকৃত হিসাব এবং যখম পরবর্তী মৃত্যুর হিসাব ও পঙ্গুত্বের শিকার ছাত্রদের হিসাব জানা যায়না। নিহতদের মধ্যে ঢাবিতে ৭৪ জন, রাবিতে ২৯, চবিতে ১৯, বাকৃবিতে ১৯, জাবিতে ৭, ইবি ও বুয়েটে ২ জন করে, টাঙ্গাইল মাওলানা ভাসানী বিপ্রবি এবং সিলেট শাহজালাল বিপ্রবিতে ১ জন করে শিক্ষার্থী খুন হয়। বর্তমান সরকারের টানা গত ১০ বছরে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৪ জন শিক্ষার্থী খুন হয়। খুনীরা ক্ষমতাসীন দলের হওয়ায় কোনটারই বিচার হয়নি। আর বিচার হ’লেও কারু শাস্তি কার্যকর হয়নি। ২০০৯ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত সময়ে ছাত্রলীগের নিজেদের কোন্দলে নিহত হয় ৩৯ জন। আর এই সময়ে ছাত্রলীগের হাতে প্রাণ হারায় অন্য সংগঠনের ১৫ জন’ (প্রথম আলো, ৮ই অক্টোবর ২০১৯)

আরও দেখুন:  মহারাষ্ট্রে কৃষকের আত্মহত্যা

ঢাবি, জাবি, চবি, রাবি ও বুয়েট সহ দেশের প্রায় সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের হল সমূহে ‘পার্টি সেন্টার’ ও ‘টর্চার সেল’ নামে চিহ্নিত কক্ষ সমূহ রয়েছে। রয়েছে ‘গণরুম’ ও ‘গেস্টরুম’ নামের অঘোষিত নির্যাতন কেন্দ্র সমূহ। সেখানে বড়দের সাথে ছোটদের আচরণ ও প্রটোকল পদ্ধতিসহ শেখানো হয় মারামারির কৌশল। আবরার ফাহাদের হত্যার ঘটনায় আদালতে দেয়া যবানবন্দিতে আসামী ‘বুয়েট’ শাখা ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অনীক সরকার বলেছে, সিনিয়র-জুনিয়র যে-ই হোক, আমরা তাদের এভাবে পিটাতাম। আমাদের মতের সঙ্গে না মিললে কাউকে পিটিয়ে বের করে দিতে পারলে ছাত্রলীগের হাই কম্যান্ড আমাদের প্রশংসা করত। সিস্টেমটাই আমাদের এমন নিষ্ঠুর বানিয়েছে’। ‘ছাত্রী হলে নির্যাতনের মাত্রা কম হ’লেও গত সাত বছরে ঢাবি ক্যাম্পাস ও ছাত্রদের ১৩টি আবাসিক হলে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ৫৮টি নির্যাতনের ঘটনা ঘটিয়েছে। নির্যাতনের পর এদের কাউকে পিটিয়ে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে, কাউকে তাড়িয়ে দিয়ে সিট দখল করা হয়েছে। আবার গ্রুপিং রাজনীতির আধিপত্য বিস্তারে সংগঠনের পদধারী নেতাকেও ‘ছাত্রদল’ বা ‘শিবির’ করার মিথ্যা অভিযোগে পিটিয়ে হল থেকে বের করে দেওয়ার নযীর রয়েছে’। ‘গেস্টরুমে নবীণ শিক্ষার্থীদের প্রথম ১ মাস বড় ভাইদের সাথে আচরণ শেখানো ও পরস্পরের পরিচিতির জন্য ডাকা হয়। এসময় সালাম দেয়া, প্রটোকল পদ্ধতি, সিনিয়র-জুনিয়রের চেইন অব কম্যান্ড বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়। কয়েক সপ্তাহ পর থেকে এসব নির্দেশনা অমান্য করলে শুরু হয় শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন। গুরুত্বপূর্ণ ক্লাস, পরীক্ষা বা অন্য কোন কারণে কর্মসূচীতে যেতে না পারলে তাকে বড় ভাইদের থেকে ‘ছুটি’ নিতে হয়’ (ইনকিলাব, ১৬ই অক্টোবর ২০১৯)। শুধু পিটুনী নয়, বরং বলাৎকার ও ধর্ষণের মত নিকৃষ্টতম অভিজ্ঞতার সম্মুখীনও তাদের হ’তে হয়। যেমন ১৯৯৮ সালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্ষণের সেঞ্চুরী করে প্রকাশ্যে মিষ্টি বিতরণ করেছিল তৎকালীন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের ছাত্র সংগঠনের সেক্রেটারী জসিম উদ্দীন মানিক।

পিছন দিকে তাকালে দেখা যায় যে, ১৯৭৪ সালের ৪ঠা এপ্রিল গভীর রাতে ছাত্রলীগের অস্ত্রধারীরা সাত জনকে মুহসিন হলের টিভি রুমের সামনে এনে ‘ব্রাশফায়ারে’ হত্যা করে। নিহত শিক্ষার্থীরা আওয়ামী যুবলীগ নেতা শেখ ফজলুল হক মণির সমর্থক ছিল। প্রতিপক্ষ গ্রুপের উস্কানিতে শফিউল আলম প্রধান (পঞ্চগড়) এ কাজ করেছে বলে অভিযোগ ওঠে। পরদিন বিচারের দাবীতে যে মিছিল হয়, তাতেও তিনি নেতৃত্ব দেন। তিন দিন পর প্রধান গ্রেফতার হন। বিচারে প্রধানের যাবজ্জীবন কারাদন্ড হয়। কিন্তু প্রেসিডেণ্ট জিয়াউর রহমান তাকে ১৯৭৮ সালে মুক্তি দিয়ে আওয়ামী লীগ বিরোধী রাজনীতিতে মাঠে নামান। এরপর ক্যাম্পাসে শুরু হয় ছাত্রদলের তান্ডব। পরে তিনি ‘জাগপা’ চেয়ারম্যান হিসাবে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের অন্তর্ভুক্ত হন। গোলাম ফারূক অভি সহ অনেক মেধাবী ছাত্রই তখন সন্ত্রাসীতে পরিণত হয়। ১৯৯৬-এর নির্বাচনে বরিশাল-২ আসনে জাতীয় পার্টি থেকে তিনি এমপি নির্বাচিত হন। ১৯৮৭ সালে ছাত্রদলের আভ্যন্তরীণ কোন্দলে নিহত হয় ঢাবির মুহসিন হলের ছাত্র মাহবূবুল হক বাবলু সহ আরও অনেক শিক্ষার্থী। ১৯৯২ সালের ১৩ই মার্চ ঢাবি ক্যাম্পাসে ছাত্রদল ও ছাত্রলীগের সংঘর্ষের সময় সন্ত্রাসবিরোধী মিছিল করেছিল ছাত্র ইউনিয়ন নেতা মঈন হোসাইন ওরফে রাজু (মেহেন্দীগঞ্জ, বরিশাল) ও তার বন্ধুরা। সেই মিছিলে সন্ত্রাসীদের গুলিতে রাজু খুন হ’লেও পুলিশ অভিযোগপত্র জমা দিতে পারেনি। রাজুর স্মরণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির সামনে ভাস্কর্য তৈরী করা হয়েছে। ১৯৯৩ সালের ১৯শে সেপ্টেম্বর শিবির ক্যাডারদের হাতে রাবি শের-ই-বাংলা হলে নিহত হয় ছাত্রমৈত্রীর তৎকালীন রাবি শাখা সহ-সভাপতি জুবায়ের চৌধুরী রিমু (সাতক্ষীরা)। কিন্তু ২৬ বছর পেরিয়ে গেলেও আজও রিমু হত্যার কোন বিচার হয়নি। ২০০১ সালে খালেদা জিয়া দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার পর ছাত্রদলের সন্ত্রাস ও হানাহানি এতটাই বেড়ে যায় যে, সরকার নাসিরউদ্দিন আহমাদ পিন্টুকে গ্রেফতার করতে বাধ্য হয়। পিন্টু তখন দলের সংসদ সদস্য ও ছাত্রদলের সভাপতি। ২০০২ সালের ৮ই জুন টেন্ডার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে ছাত্রদলের দুই গ্রুপের গোলাগুলির মধ্যে পড়ে আহসান উল্লাহ হলের সামনে বুয়েট ২য় বর্ষের ছাত্রী সাবেকুন নাহার সনি (চট্টগ্রাম) গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায়। কিন্তু সনির হত্যাকারীদের মৃত্যুদন্ড মওকূফ করে যাবজ্জীবন করা হয়। ২০১০ সালের ২রা ফেব্রুয়ারী আওয়ামী লীগ আমলে ঢাবি এফ রহমান হলে ছাত্রলীগের আভ্যন্তরীণ কোন্দলে খুন হয় শিক্ষার্থী আবুবকর (টাঙ্গাইল)। এ ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার রায়ে ২০১৭ সালের ৭ই মে ছাত্রলীগের সাবেক ১০জন নেতা-কর্মীর সবাই বেকসুর খালাস পায়। ২০১০ সালে রাবি এস এম হলে শিবিরের হাতে খুন হয় ছাত্রলীগের ফারূক (জয়পুরহাট)। খুন হয় লতিফ হলের লিপু (ঝিনাইদহ) নামের আরেক ছাত্রলীগ কর্মী। কোনটারই বিচার হয়নি। ফারূক হত্যায় পুলিশ অভিযোগপত্র দিলেও লিপু হত্যার তদন্তই শেষ হয়নি। ২০১২ সালে জাবি ছাত্রলীগের আভ্যন্তরীণ কোন্দলে অনার্স শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী জুবায়ের আহমাদ (পটুয়াখালী) নিহত হয়। ছয় বছর পর হাইকোর্ট অভিযুক্ত ছাত্রলীগের পাঁচ জন কর্মীকে মৃত্যুদন্ড দিলেও সে রায় কার্যকর হয়নি। ২০১২ সালের ৯ই ডিসেম্বর সকালে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ কর্মীরা নিরীহ দর্জি শ্রমিক বিশ্বজিৎ দাস (নড়িয়া, শরীয়তপুর)-কে বিনা কারণে প্রকাশ্য-দিবালোকে শত শত মানুষ ও আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং সাংবাদিকদের ক্যামেরার সামনে নৃশংসভাবে কুপিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। হাইকোর্ট দু’জনের মৃত্যুদন্ড বহাল রেখে ছয়জনকে রেহাই দেয়। পলাতক আছে ১৩ জন।

আরও দেখুন:  মালালার নোবেল প্রাইজ ও পশ্চিমা-মুখোশ প্রসঙ্গে

উপরের প্রসিদ্ধ রিপোর্টগুলি দেখে বুঝা যায় যে, ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনের সশস্ত্র ক্যাডাররাই ক্যাম্পাসে শিক্ষার পরিবেশ ধ্বংস করে। তারা নিজেদেরকে আইনের ঊর্ধেব মনে করে। তাই আসল রোগ হ’ল নিজেদেরকে বিচারের ঊর্ধেব মনে করা। আবরার হত্যার বিচার হবে কি হবে না, সেই প্রশ্নের উত্তর দেবে ভবিষ্যৎ। তবে যদি তর্কের খাতিরে ধরেও নেই যে ইতিপূর্বে সংঘটিত ১৫০টি খুনের বিচার না হ’লেও বর্তমান ১৫১তম খুনটির বিচার হবে। অপরাধীরা সর্বোচ্চ শাস্তি পাবে। তাতে বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে যে আইন নিজের হাতে তুলে নেওয়ার মন্দ রীতি চালু হয়েছে, তার অবসান হবে কি? বিস্মিত হ’তে হয় যে, ১৬ই অক্টোবর সব ধরনের সন্ত্রাস ও সাম্প্রদায়িক অপশক্তি রুখে দেওয়ার শপথ নিলেন বুয়েটের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। সেই সাথে শপথ নেন বুয়েট ভিসি ও প্রভোস্টরা। প্রশ্ন হ’ল, কথিত অসাম্প্রদায়িক ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরাইতো এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে। আর এখন বাঁচার জন্য পাঁচ ওয়াক্ত ছালাতে অভ্যস্ত হওয়াকে দায়ী করে তাকে ‘শিবির’ বলে রটানো হয়েছে। অথচ সে দু’বার ‘তাবলীগে’ গিয়েছে বলে প্রকাশ। তাহ’লে ‘সাম্প্রদায়িক অপশক্তি’ বলতে কাদের বুঝানো হচ্ছে? মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কি ছালাত পড়েন না? এইসব কথিত অসাম্প্রদায়িকদের পিতা-মাতারা কি ছালাত পড়েন না?  

ছাত্র রাজনীতির পক্ষে ও বিপক্ষে :

আবরার হত্যাকান্ডে সারা দেশ ফুঁসে উঠেছে। অভিভাবকরা তো বটেই, ছাত্রলীগ ও ছাত্রদল বাদে সাধারণ ছাত্ররা ছাত্র রাজনীতির বিপক্ষে সোচ্চার হয়েছে। কারণ এদেশে ছাত্র রাজনীতি অর্থ সরকারী দল ও বিরোধী দলের লেজুড় ও লাঠিয়াল বাহিনী মাত্র। অথচ কোন অভিভাবক বা ছাত্র এটা চায় না। কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সাথে সাথে তাদেরকে মূলতঃ সরকারী ছাত্র সংগঠনের সদস্য হ’তে বাধ্য করা হয়। ফলে ভাল ছাত্র হওয়ার চাইতে ভাল লাঠিয়াল হওয়াই তাদের লক্ষ্য হয়ে দাঁড়ায়। যাতে পার্টি ক্ষমতায় গেলেই দ্রুত কোটিপতি হওয়া যায়। তারা সরকারী বা বিরোধী দলের নেতাদের তোষণে ও শ্লোগানে ব্যস্ত থাকে। প্রতিপক্ষের হামলায় মরলেই এদের নামে ‘শহীদ’ তকমা লাগিয়ে দেওয়া হয়। বিচার কখনোই হয় না। ফলে এই হত্যার রাজনীতি চলতেই থাকে নিরীহ শিক্ষার্থীদের মাধ্যমে। সবকিছুর জন্য দলীয় রাজনীতি দায়ী। যারা ছাত্র রাজনীতির পক্ষে তারা বলেন, ছাত্র রাজনীতির মাধ্যমে ভবিষ্যৎ জাতীয় রাজনীতির হাতে খড়ি হয়। অতএব এর প্রয়োজন আছে। এর বিপক্ষের লোকেরা বলেন, এর প্রয়োজন নেই। কেননা ন্যায়ের আদেশ ও অন্যায়ের প্রতিবাদ করা মানুষের স্বভাবজাত বিষয়। যোগ্য ও মেধাবী ছাত্র-শিক্ষকরা তাদের কর্তব্য হিসাবে এটা করবেনই। এক্ষেত্রে শাসক ও দায়িত্বশীলদের অবশ্যই ভিন্ন মতের প্রতি সহনশীল ও শ্রদ্ধাশীল থাকতে হবে। সেই সাথে সকলের প্রতি ন্যায়বিচার থাকতে হবে। উপমহাদেশের সেরা রাজনীতিবিদরা কেউ ছাত্র রাজনীতির মাধ্যমে আসেননি। ঢাকার নবাব পরিবার, যাদের নেতৃত্বে পাকিস্তান আন্দোলন হয়েছে ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, এমনকি মাওলানা ভাসানী, সোহরাওয়ার্দী, শেরে বাংলা কেউই ছাত্র রাজনীতি করে নেতা হননি। অথচ তাঁরাই ছিলেন এ দেশের মূল নিয়ামক।

আরও দেখুন:  শাসন ও অনুশাসন

আমাদের প্রস্তাব :

সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে রাজনৈতিক দলাদলি থেকে মুক্ত রাখতে হবে। এজন্য সর্বাগ্রে শাসকদল সহ রাজনৈতিক দলগুলিকে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হ’তে হবে এই মর্মে যে, তারা তাদের লেজুড় ছাত্র ও যুবসংগঠন এবং শিক্ষক সংগঠন সৃষ্টি করবেন না। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিকে মেধা বিকাশের কেন্দ্রে পরিণত করতে হবে। এজন্য আমাদের প্রস্তাব সমূহ নিম্নরূপ :

(১) বিশ্ববিদ্যালয়ের ফ্যাকাল্টি সমূহ থেকে জ্যেষ্ঠতম ১৫ জন শিক্ষক নিয়ে একটি সিন্ডিকেট গঠিত হবে। তাঁরা বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যেষ্ঠতম তিন জন ‘প্রফেসরে’র নাম প্রেসিডেন্টের নিকটে প্রস্তাব আকারে প্রেরণ করবেন। প্রেসিডেন্ট তাঁদের মধ্য থেকে একজনকে ভাইস চ্যান্সেলর হিসাবে মনোনয়ন দিবেন। অতঃপর তিনি সিন্ডিকেটের পরামর্শ ক্রমে বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনা করবেন। প্রো-ভিসি, ট্রেজারার, রেজিস্ট্রার সহ সকল প্রশাসনিক পদ হবে ভিসি-র মনোনীত। সকল বিষয়ে ভিসি হবেন দল নিরপেক্ষ এবং সর্বোচ্চ ক্ষমতার অধিকারী। শিক্ষক, কর্মকর্তা এবং ৩য় ও ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের মধ্য থেকে জ্যেষ্ঠতর ১১ জন তাদের স্ব স্ব শ্রেণীর প্রতিনিধিত্ব করবে। ছাত্রদের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরা ছাত্রসহ প্রতি ফ্যাকাল্টির সেরা এক বা দু’জন ছাত্রকে নিয়ে সর্বোচ্চ ১৫ জনের একটি ‘ছাত্র সংসদ’ গঠিত হবে। তবে ছাত্র সংসদের ভিপি ও জিএসকে অবশ্যই মাস্টার্স ও ৪র্থ বর্ষ সম্মান শ্রেণীর ছাত্র হ’তে হবে। প্রতিটি বিভাগেও অনুরূপভাবে মেধা ও জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে ১১ জনের একটি বিভাগীয় ছাত্র সংসদ থাকতে পারে। কলেজ সহ অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও প্রয়োজনবোধে মেধা ও জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে প্রতিনিধিত্ব ব্যবস্থা চালু করা যেতে পারে। (২) সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে সর্বপ্রকারের দলাদলিমুক্ত রাখতে হবে এবং গ্রুপিং করাটাই সবচাইতে বড় অপরাধ হিসাবে গণ্য হবে। শিক্ষক ও ছাত্রদের জন্য রাজনৈতিক ও আঞ্চলিক সকল প্রকারের দলাদলি নিষিদ্ধ থাকবে। (৩) বিশ্ববিদ্যালয় সহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগের সময় মেধা ও যোগ্যতা নিরূপণের জন্য সর্বস্তরে উচ্চতর শ্রেণী ও মেধা স্তর দেখার সাথে সাথে তাদের লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা নিতে হবে এবং তাদের আক্বীদা-আমল, সদাচরণ ও দেশপ্রেম যাচাই করতে হবে। আল্লাহ আমাদের সহায় হৌন- আমীন!

প্রফেসর ড. মুহাম্মাদ আসাদুল্লাহ আল-গালিব

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

Back to top button