জীবন দর্শন

আল্লাহ মানুষের আকুল ডাক শুনতে চান, নিখাদ ডাক

ধরুন, আপনি সুদী ব্যাংকে চাকরি করেন। মাস গেলে বেতন নিশ্চিত। আপনি অনেক দিন ধরেই বোঝেন সুদ হারাম, সুদের হিসাবকারী আল্লাহর লানতপ্রাপ্ত–তাও আপনি চাকরিটা ছাড়তে পারছেন না।

আপনি একোনমিক্স বোঝেন। আপনি জানেন সুদের প্রভাবে গরীব মানুষ গরীব হতে থাকে। আজ থেকে ২৫ বছর আগে রাস্তায় এত উদ্বাস্তু দেখা যেত না। এত লোক ফুটপাথে পলিথিনের ঘর বানিয়ে থাকত না।

সুদের প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ প্রভাব এই বৈষম্যের জন্য দায়ী। এই গরিবীর জন্য দায়ী।

আপনি রাতে ঘুমাতে পারছেন না। আপনার মেজাজ খিটমিট হয়ে থাকে। অসহ্য লাগে সবকিছু।

আপনি হয়ত নামাযে নিয়মিত বলছেন, আল্লাহ সুদী প্রতিষ্ঠান থেকে বের হওয়ার তাওফিক দেন।

কিন্তু কাজ হচ্ছে না।

আপনার চিন্তা–মাস গেলে বাড়ি ভাড়া দেব কীভাবে?

আপনি একটা কাজ করুন, চাকরিটা ছেড়ে দেন।

যে আল্লাহ বিল গেটসকে ট্রিলিয়ন ডলার দিতে পারেন তাকে ডেকে আকুল গলায় বলেন, আল্লাহ বাড়িওয়ালার কাছে বেইজ্জত কোরেন না। না খেয়ে না হয় থাকলাম, কিন্তু ছেলের শিক্ষকের বেতনটা যেন দিতে পারি।

আপনি একটা চাপে থাকবেন–প্রচন্ড চাপ। এই চাপে হয় আপনি চাকরি খুঁজে নেবেন নয়ত নতুন কাজ শিখে ফেলবেন। নয়ত দেখা যাবে আপনি অনেক বছর ধরে ব্যবসা করতে চেয়েছিলেন–সেটা শুরু হয়ে গেছে।

বান্দা এক এগিয়ে এলে আল্লাহ দুই পা এগিয়ে যাবেন–এটা আল্লাহর ওয়াদা।

আপনি প্রথম পা-টা ফেলে দেখেন। আকুল কন্ঠে ডেকে দেখেন। সেই আকুলতা যা শোনার জন্য আল্লাহ অপেক্ষা করছেন।

কে তাকে ডাকে? তিনি তাকে দেবেন। তিনি দেবেন বলেই তিনি মালিক। তিনিই দেয়ার ক্ষমতা রাখেন। একমাত্র তিনিই দেন।

তিনি আল্লাহ! সারা পৃথিবী, আকাশ আর মাটির সব পশু-পাখীকে তিনিই প্রতিপালন করেন।

আল্লাহর কসম, যে আল্লাহর ওপর ভরসা করে আল্লাহ তাকে ফেলে দেন না। না খাইয়ে রাখেন না। অসম্মান করেন না।

আরও দেখুন:  তাওহীদ দর্শন

– শরীফ আবু হায়াত অপু

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

১টি মন্তব্য

  1. আস্সালামুআলাইকুম !
    আল্লাহ্ সুবহানা হুওয়া তা’আলা ভাল জানেন, কিভাবে আমার লিখা শরীফ আবু হায়াত অপু ভাই এর কলম দিয়ে লিখা হোল ? শুধুমাত্র দুই রাকা’ত তাহাজ্জুত নামাজ সেজদা দিয়ে বলেছিলাম, ইয়া রাব্ব তুমি ছাড়া আমাকে কোন শক্তি নেই আমার এই ঘোর অমানিশা থেকে উদ্ধারকারী ! যদি আমার fb তে status পড়েন লক্ষ্য করবেন কত মাস থরে প্রায় বুধবার লিখতাম ‘উফ কাল আবার সেই ভয়ংকর বৃহশ্পতিবার ‘
    আজ বলি কারন ছিল, বকেয়া বিল ! অনঅভ্যস্ত এই তাহাজ্জুতের মাধ্যমে আকুল ভাবে চাইলাম ,প্রমান দিলেন ” কল্পনাও করিনাই কোথাথেকে সাহায্য করলেন রহমানুর রাহিম,যার কোন শরিক নাই সেই আল্লাহ্ সুবহানা হু ওয়া তা’য়ালা ! আল্লাহু আকবার ‘
    আজ পরিশোধ করা বিল ২৬০০০০/ দুই ল্ক্ষ ষাট হাজার টাকা, বিশ্বাস করেন আমার অন্তর হাসে ! এই সেইদিন ভবেছি কিকি জিনিস ( কাগজ পত্র,কিছু কাপড় ) সাথে নিব কারন ছিল কিছু ঘটমান ঘটনা ! এক আত্মীয় রীতিমত রাস্তায় কি রকম হেনস্তা করলো,স্ত্রী মামলা উকিল এর হুমকি দেয় যেহেতু তার নামে বাড়ী ¡ এক ভাড়াটিয়া তো ৭০০০/টাকা বাচ্চাদের স্কুলে ভর্তির জন্য চাইলে তার ১ বাচ্চা ভর্তির ৪৯ হাজার টাকার গল্প শুনালেন খাটে পা দুলাতে দুলাতে ওফ্ ভাই,শুধু এই শেষ নয় ২৫০০/ টাকা দেয়ার কারনে তারাস্কুলে যায় কিন্তু ছোট নাম ডাকেনা এই অভিযোগ শশুরকুলে যাবার পর যেহেতু সবাই আমার জন্য আফসোশ করে তাই সবাই মিলে ‘যে যা পারেন ভিত্তিতে বাকি টাকা পরিশোধ করে নাম ডাকার ব্যবস্থা করেন একজন এর মন্তব্য ” বাচ্চা গুলোর জন্য কি একটু মায়াও লাগেনা ?
    তারপর সর্বশেষ পন্থা হিসাবে চাইলাম আকুল ভাবে ! আলহামদুলিল্লাহ্ ! সাথে এই সাহস অর্জন করেছি,(অসুস্থ আব্বাকে যে বাসায় দেখতে গেলে পান্জাবি নাপরার কারনে প্রশ্নের সম্মুখিন হতাম) তাদের কাছ থেকে শরিয়ত মোতাবেক আমার প্রাপ্য হক্ব আদায় করার ! জিবন্ত প্রমান দেখতে সূদী ব্যাংক এর শীর্ষ পদে অবসর গ্রহনের পর জাকির নায়েক স্টাইল এর কাপড় পরিধান করলে, মুমিন বান্দা হওয়া যায়না এখন অনেকেই সূদী বলে ডাকে !! জিজ্ঞাসা করব তাকে,যেই বিশালমাদ্রাসার মসজিদে বুকে হাত বেধে নামাজ পড়ার কারনে বিভিন্ন রকম ব্যঙ্গাত্ব মন্তব্য শুনেছি,সেই মাদ্রাসার মোহতামেম ৪৭ডিসিমেল জমি কিভাবে চাষ করে খায়,শরিয়তের কোন মাসলা অনুযায়ী যাহা এই আমার হক্ব !!! (চলবে এই লিখার অনুপ্রেরনায়)

মন্তব্য করুন

Back to top button