ইতিহাস

পলাশীর মর্মান্তিক ট্র্যাজেডি ও আমাদের শিক্ষা


ড. এ এস এম আযীযুল্লাহ

কোন জাতির ইতিহাস-ঐতিহ্য না থাকা যেমন দুঃখজনক, তেমনি ইতিহাস থাকার পরও যে জাতি আপন ইতিহাস-ঐতিহ্য সম্পর্কে অজ্ঞ সে জাতি নিঃসন্দেহে হতভাগ্য। কেননা ইতিহাস শুধু অতীতের ফেলে আসা হাসি-কান্না, সুখ-দুঃখ, আনন্দ-বেদনার ঘটনাই প্রকাশ করে না; সাথে সাথে অতীত থেকে শিক্ষা নিয়ে ভবিষ্যৎ চলার পথের প্রেরণার উৎস ও সঠিক দিশা দিতে মুখ্য ভূমিকা পালন করে থাকে। বাংলার মুসলমানদের ইতিহাস যেমন দীর্ঘ তেমনি গৌরবময়। অথচ বাঙালী মুসলমানরা আজ তাদের সে গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস বেমালুম ভুলতে বসেছে।
ভারতবর্ষের বিচিত্র ইতিহাসের মধ্যে পলাশীর মর্মান্তিক ট্র্যাজেডি একটি উল্লেখযোগ্য স্থান দখল করে আছে। ১৭৫৭ সালের ২৩শে জুন মীর জাফর আর জগৎশেঠদের মত এদেশীয় কিছু ক্ষমতালিপ্সু স্বার্থান্বেষী বিশ্বাসঘাতকের চরম বিশ্বাসঘাতকতায় সুচতুর বৃটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানীর হাতে বাংলার শেষ স্বাধীন নবাব সিরাজুদ্দৌলার পরাজয়ের মধ্য দিয়ে বাংলার স্বাধীনতার সূর্য অস্তমিত হয়। সাথে সাথে এদেশের আকাশে নেমে আসে দুর্যোগের ঘনঘটা; বাংলার জমিনে নেমে আসে দুর্ভেদ্য অমানিশা; এদেশের মানুষের উপর চেপে বসে পরাধীনতার জগদ্দল পাথর। সেই থেকে সমগ্র ভারতবর্ষ ১৯০ বছর ধরে পরাধীনতার শৃঙ্খলে আবদ্ধ ছিল। তাই প্রতি বছর জুন মাস আসলেই এদেশের স্বাধীনচেতা মানুষের অন্তরে জেগে উঠে পলাশীর আম্রকাননের বিভীষিকা। দুঃখজনক হ’লেও সত্য যে, শুরু থেকেই ভারতবর্ষের মুসলমানদের হেয় করার লক্ষ্যে এবং বাঙালী মুসলমান নেতাদের নামে কালিমা লেপনের উদ্দেশ্যে সুস্থ মস্তিষ্কে পলাশীর প্রকৃত ইতিহাস বিকৃত করে উপস্থাপন করা হয়েছে। সময়ের ব্যবধানে সে চাপাপড়া ইতিহাস অনেকাংশে স্পষ্ট হয়ে গেছে। তাই নতুন প্রজন্মকে প্রকৃতপক্ষে ইতিহাস সচেতন করে গড়ে তোলার লক্ষ্যেই আলোচ্য নিবন্ধে ঐতিহাসিক পলাশীর ট্র্যাজেডি সংক্ষিপ্তাকারে আলোকপাত করার চেষ্টা করা হয়েছে।
বাংলা, বিহার ও উড়িষ্যার স্বাধীন নবাব ছিলেন আলীবর্দী খাঁ (১৭৪০-১৭৫৬)। তাঁর প্রকৃত নাম মীর্জা বন্দি বা মীর্জা মুহাম্মাদ আলী। তাঁর বড় ভাইয়ের নাম হাজী আহমাদ। তাঁদের পিতামহ ছিলেন আরব বংশোদ্ভূত, আর মাতা ছিলেন আফগান-তুর্কি বংশোদ্ভূত। সেই সুবাদে তাঁরা ছিলেন সুজাউদ্দীন খাঁর আত্মীয়। সুজাউদ্দীন ছিলেন বাংলার প্রথম নবাব মুর্শিদকুলি খাঁর জামাতা। শ্বশুরের মৃত্যুর পর তিনি বাংলা, বিহার ও উড়িষ্যার নবাবী লাভ করেন। এদিকে ১৭০৭ সালে সংঘটিত জজুর যুদ্ধে যুবরাজ আজম শাহ নিহত হ’লে মীর্জা মুহাম্মাদ আলী ও বড় ভাই হাজি আহমাদ নিরুপায় হয়ে আত্মীয় সুজাউদ্দীন খাঁর দরবারে আসেন। সুজাউদ্দীন খাঁ তাঁদের দুই ভাইকে সরকারী চাকরীতে নিযুক্ত করেন। দুই ভাই সরকারী চাকরী পেয়ে অত্যন্ত দক্ষতা ও বুদ্ধিমত্তার সাথে রাজকার্য পরিচালনা করতে থাকেন। তাদের কাজে সন্তুষ্ট হয়ে সুজাউদ্দীন খাঁ মীর্জা মুহম্মদকে রাজমহলের ফৌজদার নিযুক্ত করেন। তখন থেকে মীর্জা মুহম্মদ আলী ‘আলীবর্দী খাঁ’ উপাধিতে ভূষিত হন। এরই ধারাবাহিকতায় এক পর্যায় আলীবর্দী খাঁ বিহারের সহকারী শাসনকর্তা নিযুক্ত হন (১৭৩৩)। সুজাউদ্দীন খাঁর মৃত্যুর পর তাঁর পুত্র সরফরাজ খাঁ সিংহাসনে আরোহণ করেন। তখন মারাঠা ও বর্গীদের লুণ্ঠন দমনের জন্য গভর্ণর আলীবর্দী খাঁ নবাবের অনুমতি প্রার্থনা করলে নবাব সেক্ষেত্রে গুরুত্ব না দেওয়ায় বীর আলীবর্দী খাঁ নবাব সরফরাজ খাঁর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে নবাবকে পরাজিত ও নিহত করে আপন বুদ্ধিমত্তা ও রণকৌশলের বলে বাংলার নবাবী লাভ করেন।
নবাব আলীবর্দী খাঁর তিন কন্যা ছাড়া কোন পুত্র সন্তান ছিল না। তিনি তাঁর তিন কন্যাকে আপন বড় ভাই হাজী আহমাদের তিন পুত্রের সঙ্গে বিবাহ দেন। তাঁর তিন জামাতাই তিনটি পর্গনার শাসনকর্তা ছিলেন। একজন ঢাকার, একজন পূর্ণিয়ার এবং ছোট জামাতা জৈনুদ্দীন ছিলেন বিহারের নায়েবে-নাযিম। এদিকে নবাব আলীবর্দী খাঁ কর্তৃক পদচ্যুত সমসের খাঁ ও সরদার খাঁ নামে দুই আফগান বীর বিদ্রোহ করলে তাদেরকে বশ্যতা স্বীকার করার জন্য রাজ দরবারে ডেকে পাঠানো হয়। তারা বশ্যতা স্বীকারের ছলে ১৭৪৮ সালের ২৯শে ফেব্রুয়ারী যথাযোগ্য সমাদরে জৈনুদ্দীনের নিকটে উপস্থিত হয়ে অতর্কিতে তাঁর উপর আক্রমণ চালায়। জৈনুদ্দীন নিজ তরবারী কোষমুক্ত করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। মুহূর্তের মধ্যে তাঁর ছিন্নমুন্ডু মসনদের উপর লুটিয়ে পড়ে। হাজী আহমাদ বন্দী দশায় নিদারুণ উৎপীড়ন সহ্য করতে না পেরে সতের দিনের মাথায় ভগ্নহৃদয়ে বন্দীশালায় মৃত্যুবরণ করেন। সিরাজুদ্দৌলার মাতা ও নবাব আলীবর্দী খাঁর ছোট মেয়ে আমেনা বেগম সন্তান-সন্ততিসহ আফগান শিবিরে বন্দী হ’লেন। এই মর্মান্তিক ও হৃদয়বিদারক সংবাদ পাওয়া মাত্রই নবাব আলীবর্দী খাঁ আফগান বিদ্রোহ দমন এবং তাদের হাত থেকে দুহিতার বন্ধন মোচন করতে বিহারের উদ্দেশ্যে সসৈন্যে যাত্রা করেন। এক্ষেত্রে তিনি পদচ্যুত ও পদগৌরবান্বিত সকল সেনাপতিকে সম্মিলিত করে কাতর কণ্ঠে যখন এই শোকাবহ কাহিনী বর্ণনা করেন, তখন সকলে একে একে কুরআন স্পর্শ করে নাঙ্গা তরবারী হাতে নিয়ে তাঁর সঙ্গে প্রাণ-বিসর্জ্জনের শপথ করেন। এ উপলক্ষে পূর্বের সকল কলহ-বিবাদ মিটে গেল, মীরজাফর পুনরায় সেনাপতি পদে নিযুক্ত হ’লেন। সিরাজুদ্দৌলা তখন বয়সে বালক হ’লেও এই আকস্মিক দুর্ঘটনায় অতিমাত্রায় ব্যাকুল হয়ে উঠেন। কারণ তাঁর পিতা ও পিতামহ শত্রুর হাতে নিহত এবং মাতা বন্দিনী। এমত পরিস্থিতিতে তিনিও তরবারী হাতে মাতামহের সাথে যুদ্ধে যাত্রা করলেন। অতঃপর ১৭৪৮ সালের ১৬ই এপ্রিল গঙ্গার তীরবর্তী কালাদিয়ারা নামক স্থানে উভয় পক্ষের মধ্যে তুমুল লড়াইয়ে বিদ্রোহী সমসের খাঁ নিহত হয় এবং তার সহযোগী বাহিনীকে  বিধ্বস্ত  করে আলীবর্দী খাঁ বন্দী কন্যা ও তাঁর সন্তানদের মুক্ত করার মাধ্যমে বিহার পুনরুদ্ধার করেন। নবাব আলীবর্দী খাঁ তখন নিজ স্ত্রী শরফুন্নেসার সাথে পরামর্শ করে নিহত জামাতা জৈনুদ্দীনের সুযোগ্য উত্তরসূরী ও নবাবের প্রিয় দৌহিত্র সিরাজুদ্দৌলাকে বিহারের পরবর্তী নায়েবে-নাযিম নিযুক্ত করেন। এটা ছিল তাঁর সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনার একটা অংশ। যেহেতু সিরাজুদ্দৌলা তখন বয়সে বালক, তাই রাজা জানকীরামকে বিহারে সিরাজের নায়েব নিয়োগ করা হ’ল।
যেহেতু নবাব আলীবর্দী খাঁর কোন পুত্র সন্তান ছিল না, তাই তিনি মৃত্যুর পূর্বেই তাঁর কনিষ্ঠ কন্যার পুত্র প্রিয় দৌহিত্র সিরাজুদ্দৌলাকে বাংলার পরবর্তী নবাব মনোনীত করে যান।১০ এদিকে হঠাৎ করে খুব অল্প সময়ের ব্যবধানে তাঁর অন্য এক দৌহিত্র এবং দুই জামাতার (ও ভ্রাতুষ্পুত্র) মৃত্যুতে তিনি খুবই শোকাভিভূত হয়ে পড়েন এবং শারীরিক ও মানসিকভাবে অত্যন্ত দুর্বল হয়ে যান। যার ফলে মাত্র দুই বছরের ব্যবধানে ১৭৫৬ সালের ১০ই এপ্রিল ৮০ বছর বয়সে নবাব আলীবর্দী খাঁ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।১১ অবশ্য নবাব আলীবর্দী খাঁর জীবদ্দশাতেই তাঁর তিন জামাতাই মৃত্যুবরণ করেন। নানার মৃত্যুর পর তাঁরই মনোনীত প্রাণপ্রিয় দৌহিত্র সিরাজুদ্দৌলা বাংলার সিংহাসনে আরোহণ করেন। তখন তাঁর বয়স ছিল মাত্র তেইশ বছর।১২ তাঁর নিকট আত্মীয়ের মধ্যে অনেকেই নবাব আলীবর্দী খাঁর মৃত্যুর পর সিংহাসন লাভের আশায় বুক বেঁধে ছিলেন। তাই তিনি যখন সিরাজুদ্দৌলাকে পরবর্তী নবাব মনোনীত করেন, তখন স্বভাবতই অন্যদের অন্তরে চাপা অসন্তোষ সৃষ্টি হয়। যার ফলে তারা মনে-প্রাণে সিরাজকে নবাব হিসাবে মেনে নিতে পারেনি। তাই নবাব আলীবর্দী খাঁর জ্যেষ্ঠা কন্যা এবং ঢাকার ভূতপূর্ব শাসনকর্তার বিধবা পত্নী মেহেরুন্নেসা ওরফে ঘসেটি বেগম পূর্ণিয়ার ভূতপূর্ব শাসনকর্তার পুত্র শওকত জঙ্গ সিরাজের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু করে। এই সুযোগে ধূর্ত বৃটিশ কোম্পানী নিজেদের স্বার্থ উদ্ধারের নিমিত্তে গোপনে শওকত জঙ্গ ও ঘসেটি বেগমের পক্ষাবলম্বন করে। এমনকি নতুন নবাব হিসাবে ইংরেজগণ সিরাজকে উপঢৌকন প্রেরণের চিরাচরিত রীতিও অমান্য করে।১৩ এ সময় রাজা রাজবল্লভ ঢাকার দেওয়ান ছিলেন। নবাব সিরাজুদ্দৌলা তাকে হিসাব দাখিল করতে বললে সে নবাবের নির্দেশ অমান্য করে নিজ পুত্র কৃষ্ণদাস মারফত প্রচুর ধনরত্নসহ কলকাতায় পাঠায়। এ সংবাদ নবাব সিরাজ জানতে পেরে কৃষ্ণদাসকে গ্রেফতারের আদেশ দিলে ইংরেজরা তাকে আশ্রয় দেয়।
নবাবের বিরুদ্ধে ঘসেটি বেগম, রাজা রাজবল্লভ প্রভৃতির ষড়যন্ত্রে যে ইংরেজরাও জড়িত, তাতে সন্দেহের কোন অবকাশ ছিল না। এমতাবস্থায় ইউরোপে সপ্তবর্ষব্যাপী যুদ্ধের (১৭৫৬-১৭৬৩) অজুহাতে ইংরেজও ফরাসি বণিকরা বাংলায় দুর্গ নির্মাণ শুরু করে। নবাব এ সংবাদ জানতে পেরে তাদেরকে নিরস্ত্র হ’তে এবং দুর্গ নির্মাণ বন্ধ করার আদেশ দেন। ফরাসিগণ নবাবের নির্দেশ মত দুর্গ নির্মাণ বন্ধ করলেও উদ্ধত বৃটিশ বণিকরা নবাবের আদেশ তো মানেইনি; উপরন্তু তাঁর দূতকে তারা অপমান করতেও দ্বিধা করেনি। এমনকি নবাব কৃষ্ণদাসের সমর্পণ দাবী করলেও তারা তা অমান্য করে। এ প্রসঙ্গে ইংরেজ কর্মচারী রিচার্ড বেচারের মন্তব্য প্রণিধানযোগ্য। তিনি বলেন, ‘এটা কি কখনও কল্পনা করা যায় যে, কোন নৃপতির প্রজাকে একদল বিদেশী বণিক আশ্রয় দেবে? কিংবা তাঁর দূতকে অপমানিত করলে রাজা সে অপমান নির্দ্বিধায় মেনে নেবেন? দূতকে ফেরত দেওয়াটা পুরো দুনিয়াতে রাজার অবমাননা বলে মনে করা হবে’।১৪
ইত্যবসরে বুদ্ধিমান সিরাজ বিনা রক্তপাতে সুকৌশলে বড় খালা অর্থাৎ ঘসেটি বেগমকে নিজ প্রাসাদে আনতে সমর্থ হন। নবাব বিরোধী ষড়যন্ত্রের প্রধান হোতা এভাবে সিরাজের হাতে বন্দী হয়েছে, জানতে পেরে বৃটিশ বণিকেরা ঘসেটি বেগমের সাথে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকার বিপদ অাঁচ করতে পারে। এতে তড়িঘড়ি করে পূর্বের আচরণের জন্য সিরাজের নিকট অনুতাপ প্রকাশ করে। নবাব তখন ইংরেজদেরকে অবিলম্বে দুর্গ নির্মাণ বন্ধ এবং নির্মিত অংশ ভেঙ্গে ফেলার আদেশ দেন।
এদিকে ঘসেটি বেগমকে রাজদরবারে অন্তরীণ রেখে অপর ষড়যন্ত্রকারী শওকত জঙ্গকে দমনের উদ্দেশ্যে নবাব ১৭৫৬ সালের ১৬ই মে মুর্শিদাবাদ থেকে সসৈন্যে পূর্ণিয়ার দিকে অগ্রসর হন। ২০শে মে নবাব যখন রাজমহল পৌঁছেন তখন রোজার ড্রেকের পত্র তাঁর হস্তগত হয়। এ পত্রে ড্রেক অত্যন্ত বিনম্র ভাষায় ইংরেজদের সদিচ্ছার কথা জানালেও তাতে দুর্গ নির্মাণ বন্ধ কি-না সে বিষয়ের উল্লেখ না থাকায় নবাব অত্যন্ত ক্রুদ্ধ হন। এতে নবাব পূর্ব সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে পূর্ণিয়ার দিকে না গিয়ে মুর্শিদাবাদে ফিরে এসে ইংরেজদেরকে উপযুক্ত শাস্তিদানের উদ্দেশ্যে সসৈন্যে কলকাতার উদ্দেশ্যে রওয়ান হন। পথিমধ্যে তিনি কাশিম বাজারের ইংরেজ কুঠি দখল করে নিয়ে ১৬ই জুন কলকাতার উপকণ্ঠে পৌঁছেন। যদিও সংবাদ পেয়ে নবাবের গতিরোধ করতে হলওয়েল যথাসাধ্য প্রস্ত্ততি গ্রহণ করেছিল, তথাপি কলকাতাস্থ ইংরেজ ঘাঁটি ফোর্ট উইলিয়াম দখল করতে নবাবকে বেগ পেতে হয়নি। যুদ্ধে ইংরেজ পক্ষের বেশ কিছু সৈন্য নিহত হয়। গভর্নর হলওয়েল আত্মসমর্পণ করেন এবং রোজার ড্রেকসহ অপরাপর ইংরেজরা দুর্গ ত্যাগ করে নদী পথে পলায়ন করে ফুলতায় আশ্রয় নেয়। এমনি পরিস্থিতিতে ২০শে জুন নবাব সিরাজুদ্দৌলা বিজয়ী বেশে কলকাতা দুর্গে প্রবেশ করেন। অতঃপর কলকাতার অভিযান সমাপ্ত করে মাণিক চাঁদের উপর কলকাতার ভার অর্পণ করে নবাব পুনরায় মুর্শিদাবাদ ফিরে আসেন।
ইতিমধ্যে শওকত জঙ্গ নবাব সিরাজুদ্দৌলাকে মসনদ থেকে অপসারণের লক্ষ্যে যুদ্ধযাত্রা শুরু করেন। এদিকে নবাবও কলকাতা থেকে মুর্শিদাবাদ ফিরে এসে শওকত জঙ্গকে দমনের জন্য ১৭৫৬ সালের সেপ্টেম্বর মাসের শেষ দিকে সসৈন্যে পূর্ণিয়া অভিমুখে অগ্রসর হন। ১৭৫৬ সালের ১৬ই অক্টোবর নবাবগঞ্জের মনিহারী গ্রামে দু’পক্ষের মধ্যে যুদ্ধ শুরু হয়। এ যুদ্ধে শওকত জঙ্গ পরাজিত ও নিহত হন।১৫ ক্ষমতা গ্রহণের মাত্র ছয় মাসের মধ্যে নবাব সিরাজুদ্দৌলা ঘসেটি বেগম, ইংরেজ ও শওকত জঙ্গের মত তিনটি প্রধান ষড়যন্ত্রকারীকে কঠোর হস্তে মোকাবেলা করতে সমর্থ হন।
এদিকে নবাব কর্তৃক কলকাতা অধিকারের সংবাদ মাদ্রাজে পৌঁছলে বৃটিশ সেনাপতি রবার্ট ক্লাইভ সঙ্গে সঙ্গে সৈন্য-সামন্ত নিয়ে কলকাতা পুনরুদ্ধারে বেরিয়ে পড়েন। একই সাথে এডমিরাল ওয়াটসনের নেতৃত্বে এক নৌবহরও কলকাতার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। প্রথমে তারা ফুলতায় এসে বিনা বাধায় উদ্বাস্ত্ত ইংরেজদের সাথে মিলিত হয়। অতঃপর সম্মিলিতভাবে কলকাতার দিকে যাত্রা করে। মানিক চাঁদের নেতৃত্বে কিছু সৈন্য অতর্কিতে তাদের উপর হামলা চালালে ইংরেজদের বেশ কিছু সৈন্য নিহত হয়। কিন্তু অর্থের প্রলোভনে শেষ পর্যন্ত মানিক চাঁদ ইংরেজ সৈন্যদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ না করে পালিয়ে যান। এই সুযোগে ইংরেজরা নবাবের বজবজ দুর্গ ধ্বংস করে এবং ১৭৫৭ সালের ২রা জানুয়ারী কলকাতা অধিকার করে ফোর্ট উইলিয়াম দুর্গ সুরক্ষিত করে। এক্ষেত্রে মানিক চাঁদ গোপনে ইংরেজদের পক্ষাবলম্বন করে চরম বিশ্বাসঘাতকতার পরিচয় দেয়। অথচ কলকাতা পতনের পর যদি উমিচাঁদ, নবকিষেণ, জগৎশেঠ, রায়দুর্লভ, মানিক চাঁদের মত হিন্দু-প্রধানরা রজার ড্রেক, হলওয়েল, ক্লাইভ, ওয়াটসনদের সাহায্য না করত, তাহ’লে ইংজেদের আত্মসমর্পণ ছাড়া আর কোন গত্যন্তর ছিল না।
কলকাতা অধিকার করেই ইংরেজরা পরের দিন ৩রা জানুয়ারী নবাবের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে। অপর দিকে নবাবও এ সংবাদ জানতে পেরে ইংরেজদের বিরুদ্ধে যুদ্ধযাত্রা করেন। ইতিমধ্যে ক্লাইভ ১০ই জানুয়ারী হুগলী অধিকার করে শহর লুণ্ঠন করে এবং পার্শ্ববর্তী বহু গ্রাম পুড়িয়ে দেয়। ১৯শে জানুয়ারী নবাব হুগলী পৌঁছলে ইংরেজরা পিছু হটে কলকাতায় প্রস্থান করে। ৩রা ফেব্রুয়ারী নবাব কলকাতার শহরতলীতে উমিচাঁদের বাগানে শিবির স্থাপন করলে ৫ই ফেব্রুয়ারী শেষ রাতে ক্লাইভ ও ওয়াটসন অকস্মাৎ নবাব শিবিরে অতর্কিতে আক্রমণ চালিয়ে নবাবের পক্ষের প্রায় ১৩০০ সৈন্য হত্যা করে। কিন্তু সকালেই নবাবের সৈন্য সুসজ্জিত হয়ে পাল্টা আক্রমণ চালালে ক্লাইভ প্রস্থান করে। সেদিন কলকাতা জয়ের মত নবাবের যথেষ্ট সৈন্য ও শক্তি থাকার পরও ৯ই ফেব্রুয়ারী’৫৭ সেনাপতির পরামর্শে ও ষড়যন্ত্রে নবাব ইংরেজদের সাথে এক অপমানজনক সন্ধি স্থাপনে সম্মত হন। যে সন্ধি ‘আলিনগর সন্ধি’ নামে অভিহিত হয়।১৬ এই সন্ধির ফলে নবাবের প্রতিপত্তি অনেকাংশে হরাস পায় এবং ইংরেজের শক্তি, প্রতিপত্তি ও ঔদ্ধত্য বহুগুণ বৃদ্ধি পায়। এ ক্ষেত্রে ইংরেজদের পক্ষে কাজ করেন বঙ্গের বিখ্যাত ধনী জগৎশেঠ, কলকাতার বড় ব্যবসায়ী উমিচাঁদ ও রাজা রাজবল্লভ, মানিক চাঁদ প্রমুখ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।
এ ঘটনায় ইংরেজদের মনোবলও বৃদ্ধি পায়। ফলে ২৩শে এপ্রিল’৫৭ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানীর কলকাতা কাউন্সিল নবাব সিরাজুদ্দৌলাকে সিংহাসনচ্যুত করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।১৭ এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মে’৫৭-র প্রথম সপ্তাহে মুর্শিদাবাদে জগৎশেঠের বাড়িতেই উমিচাঁদ, রায়দুর্লভ, রাজা রাজবল্লভ, মহারাজা কৃষ্ণচন্দ্র, জগৎশেঠ, মীরজাফর প্রমুখ প্রভাবশালী ব্যক্তিবর্গের এক গোপন বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।১৮ উক্ত ষড়যন্ত্রমূলক গোপন বৈঠকে কলকাতা থেকে কোম্পানীর দূত হিসাবে ওয়াটসনকে স্ত্রীলোকের ছদ্মবেশে পালকীতে করে আনা হয়।১৯
বৈঠকে বসে ওয়াটসন প্রথমে সকলকে প্রলোভনের জালে অাঁটকে ফেলে। অতঃপর সিরাজুদ্দৌলার সিংহাসনচ্যুত করার কথা সুকৌশলে ব্যক্ত করে। ওয়াটসন আরো বলে, নবাব ক্ষমতাচ্যুত হ’লে সারা ভারতের মুসলমানদের উত্তেজনা প্রশমনের লক্ষ্যে তাঁরই আত্মীয় মীরজাফরকে সিংহাসনে বসাতে হবে। মীরজাফর প্রথমে এ প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন। কারণ তিনি ছিলেন পরলোকগত নবাব আলীবর্দী খাঁর ভগ্নীপতি এবং বাংলার সিপাহসালার। তিনি সিরাজুদ্দৌলা কর্তৃক ক্রমাগত অপমানিত ও পদচ্যুত হ’লেও নিজে কখনো সিরাজকে সিংহাসনচ্যুত করার কল্পনাও করেননি। তিনি বলেন, ‘আমি নবাব আলীবর্দী খাঁর আত্মীয়, অতএব সিরাজও আমার আত্মীয়, এটা কি করে সম্ভব?’ তখন উমিচাঁদ বললেন, ‘আমরা তো আর সিরাজকে মেরে ফেলছি না অথবা আমরা নিজেরাও নবাব হচ্ছি না, শুধু তাঁকে সিংহাসনচ্যুত করে আপনাকে বসাতে চাচ্ছি। কারণ শুধু আমি নই, ইংরেজ এবং মুসলমানদের অনেকেই, এক কথায় অমুসলমানদের প্রায় প্রত্যেকেই আপনাকে গভীর শ্রদ্ধার চোখে দেখে’।২০ এরপরও যখন দেখলেন, তিনি রাজি না হ’লে তারা নবাবকে হটিয়ে সেখানে ইয়ার লতিফকে বসানোর ষড়যন্ত্র করছে; তখন তিনি আর উদাসীন না থেকে তাদের প্রস্তাবে সম্মত হ’লেন। তখন ওয়াটসন বলেন, এই মুহূর্তে সিরাজের সাথে লড়তে গেলে যে বিপুল অর্থের প্রয়োজন তা আমাদের নেই। তখন জগৎশেঠ বলেন, ‘টাকা যা দিয়েছি আরও যত দরকার আমি আপনাদের দিয়ে যাব, কোন চিন্তা নেই, আপনারা প্রস্ত্ততি নিন’।২১ তখন উপস্থিত দেশীয় ষড়যন্ত্রকারীদের সাথে ইংরেজ কোম্পানীর মধ্যে শুধু নবাব বিরোধী নয়, সাথে সাথে দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব বিরোধী একটি সন্ধিপত্র রচিত হয়। উক্ত সন্ধিপত্রে ওয়াটসন ১৯শে মে স্বাক্ষর করলেও মীরজাফর স্বাক্ষর করেন ৪ঠা জুন।
এবার রবার্ট ক্লাইভ সামান্য অজুহাতে নবাবের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে। নবাবও ষড়যন্ত্রের কথা জানতে পেরে সসৈন্যে ইংরেজদের বিরুদ্ধে অগ্রসর হন। ১৭৫৭ সালের ২৩শে জুন প্রাতঃকালে ভাগীরথীর তীরে পলাশীর প্রান্তরে উভয় পক্ষের মধ্যে যুদ্ধ শুরু হয়। নবাবের সৈন্য সংখ্যা ৫০ হাজার, অপর দিকে ইংরেজ সৈন্য সংখ্যা মাত্র ৩ হাজার। মীরজাফর ও রায়দুর্লভদের চক্রান্ত্রে নবাবের সৈন্যের একটা বড় অংশ যুদ্ধ থেকে বিরত থাকে। কেবল মীর মদন, মোহনলাল ও সিনফ্রের অধীনে মুষ্টিমেয় কিছু সৈন্য ইংরেজদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে। মীরমদন ও মোহনলালের সমরকুশলতার সম্মুখে ইংরেজ বাহিনী টিকতে না পেরে ক্লাইভের সৈন্য বাহিনী পার্শ্ববর্তী আম্রকাননে আশ্রয় নেয়। নবাব বাহিনীর জয় যখন সুনিশ্চিত, ঠিক সেই মুহূর্তে মীরমদন নিহত হন। অনন্যোপায় হয়ে নবাব তখন মীরজাফরের শরণাপন্ন হন। তিনি আলীবর্দী খাঁর আমলের আনুগত্যপূর্ণ ব্যবহারের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে নিজ উষ্ণীষ মীরজাফরের সম্মুখে নিক্ষেপ করে বললেন, ‘জাফর খাঁ, এই উষ্ণীষের সম্মান রক্ষা করুন’।২২
তখন মীরজাফর মুখে আনুগত্যের প্রতিশ্রুতি দিলেও তলে তলে সবচেয়ে বড় সর্বনাশটাই করলেন। তিনি সিরাজকে যুদ্ধ বিরতির আত্মঘাতী পরামর্শ দিলেন। অথচ মীর মদনের মৃত্যুর পর মোহনলালের প্রচেষ্টায় যুদ্ধের গতি নবাবের অনুকূলেই ছিল। কিন্তু নিজ অদূরদর্শিতা ও মীরজাফরের সর্বনাশা পরামর্শে তিনি মোহনলালকে যুদ্ধ বন্ধের আদেশ দেন। প্রথমে মোহনলাল তাঁর আদেশ মানেননি। কিন্তু নবাবের নিকট থেকে পুনঃ পুনঃ আদেশের ফলে তিনি যুদ্ধ বন্ধ করেন। এই সুযোগে রবার্ট ক্লাইভ পাল্টা আক্রমণ চালিয়ে নবাব বাহিনীকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। নবাব পালিয়ে গিয়ে কোনক্রমে প্রাণে রক্ষা পান। যুদ্ধক্ষেত্রেই রবার্ট ক্লাইভ মীরজাফরকে নতুন নবাব বলে অভিনন্দন ও কুর্নিশ করে।২৩ ২৬শে জুন তাঁর অভিষেক হয় এবং ২৯শে জুন সিংহাসনে আরোহণ করেন। নবাব সিরাজুদ্দৌলা রাজধানীতে ফিরে এসে প্রচুর অর্থ বিতরণ করে সৈন্য সংগ্রহের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। অবশেষে নিরুপায় হয়ে তিনি স্বীয় পত্নী ও কন্যাসহ পালিয়ে যান। কিন্তু ভাগ্যের কি নির্মম পরিহাস পথিমধ্যে রাজমহলে রাত কাটাতে গিয়ে ৩০শে জুন তিনি ধরা পড়েন।
২রা জুলাই রাতে সাধারণ বন্দীর মত শৃঙ্খলিত অবস্থায় সিরাজুদ্দৌলাকে নতুন নবাব মীরজাফরের সম্মুখে উপস্থিত করা হয়। ঐ রাতেই মীরজাফরের পুত্র মীরণের আদেশে মুহাম্মাদী বেগ তাঁকে নির্মমভাবে হত্যা করে।
নবাবকে হত্যা করতে মুহাম্মাদী বেগ রাযী না হ’লে তারা তার ও তার স্ত্রী-পুত্রের প্রাণনাশের হুমকী দেয়। অনন্যোপায় হয়ে অশ্রু সম্বরণ করে নিজ ইচ্ছার বিরুদ্ধে পরিকল্পনামাফিক সংকেত পাওয়া মাত্র সিরাজুদ্দৌলাকে হত্যা করতে সম্মত হন। মুহাম্মাদী বেগ যখন উলঙ্গ তরবারী নিয়ে রাতে তাঁর কক্ষে প্রবেশ করেন, তখন নবাবের আর বুঝতে বাকি ছিল না, তাঁর মৃত্যুর সময় সমাগত। তখন তিনি কাতর কণ্ঠে বললেন, ‘মুহাম্মাদী বেগ, আমাকে কি তোমরা সামান্য একটা অসহায় গরীবের মত বেঁচে থাকতেও দেবে না?’ তখন মুহাম্মাদী বেগও দৃঢ়ভাবে বললেন, ‘না তারা তা দেবে না’। তখন নবাব মুহাম্মাদী বেগকে বলে দু’রাক‘আত ছালাত আদায়ে দাঁড়িয়ে গেলেন। ইতিমধ্যে ছালাত শেষ হওয়ার আগেই দূর থেকে বাঁশি বাজিয়ে সংকেত দেওয়া মাত্র তাঁর উপরে তরবারী চালানো হয়। নবাব সঙ্গে সঙ্গে মাটিতে লুটে পড়ে ‘আল্লাহ’ ‘আল্লাহ’ শব্দ করতে করতে দুনিয়া থেকে চিরবিদায় নিলেন।২৪ এটাই হল পলাশীর প্রান্তরের নির্মম ট্র্যাজেডি।
বাহ্যিকভাবে নবাব সিরাজুদ্দৌলার চরম পরিণতির জন্য শেষ দিকের কিছু ঘটনাবলীর সাথে সরাসরি সম্পৃক্ত কয়েকজন বিশ্বাসঘাতককে দায়ী করা হ’লেও মূলতঃ পলাশীর বিয়োগান্ত ঘটনা কোন কাকতালীয় বিষয় ছিল না। এটি ছিল বৃটিশ বেনিয়াদের সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনার চূড়ান্ত পরিণতি। প্রথম থেকেই যদি জগৎশেঠের মত এদেশের নামী-দামী ধনাঢ্য এবং পরবর্তীতে ক্ষমতালোভী কিছু মীরজাফরা ইংরেজদের সহযোগিতা না করত, তাহ’লে কোন দিনই ইংরেজরা এদেশের মানুষদেরকে পরাধীনতার শৃঙ্খলে আবদ্ধ করতে সমর্থ হ’ত না। বাংলার এসব বিশ্বাসঘাতকরা কখনই উপলব্ধি করতে পারেনি যে, নবাব সিরাজুদ্দৌলার পরাজয় শুধু তাঁর একার পরাজয় নয়, শুধু বাংলার পরাজয় নয়, বরং সমগ্র ভারতবাসীর পরাজয়। তবে অতি অল্প সময়ের ব্যবধানেই, অতি সহজেই তারা এই চরম সত্য বিষয়টি মর্মে মর্মে উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন। এক্ষেত্রে মীরজাফরদের বিশ্বাসঘাতকতার চেয়ে শেঠজীদের বিশ্বাসভাতকতায় ইংরেজরা বহুগুণ বেশী উপকৃত হয়েছিল। তারা শুধু পলাশীর যুদ্ধেই নয়, বহু আগে থেকেই ইংরেজদের নানাভাবে অর্থ দিয়ে সহযোগিতা করে আসছিল। একারণেই ইংরেজ ঐতিহাসিকগণও এই বিরাট সত্যটা অকপটে স্বীকার করেছেন, The rupees of the Hindu banker equally with the sword of the English Colonel contributed to the over through of the Mahamedan power in Bengal. ‘বাংলায় মুসলমানদের শক্তিকে খর্ব করে পরাধীন করতে বৃটিশ তরবারীর সাথে হিন্দু ধনপতিদের অর্থভান্ডারও সমানভাবে সহযোগিত করেছিল’।২৫ শেঠরা শুধু ইংরেজদেরকেই টাকা দেয়নি, সিরাজুদ্দৌলার অনেক সৈন্যকে পর্যন্ত অর্থ দিয়ে নিষ্ক্রীয় রেখে বাংলার ইতিহাসকে কলঙ্কিত করেছে। আরো দুঃখের কথা হ’ল বন্দী সিরাজুদ্দৌলাকে হত্যা করার প্রস্তাব এই জগৎশেঠই দিয়েছিল।২৬ এর মাধ্যমে পবিত্র কুরআনের চিরন্তন ঘোষণা বাস্তবে প্রতিফলিত হ’ল। বিধর্মীদের সাথে মুসলমানদের সম্পর্কের বিষয়ে মহান আল্লাহ বলেন, لَا يَتَّخِذِ الْمُؤْمِنُوْنَ الْكَافِرِيْنَ أَوْلِيَاءَ مِنْ دُوْنِ الْمُؤْمِنِيْنَ وَمَنْ يَفْعَلْ ذَلِكَ فَلَيْسَ مِنَ اللهِ فِيْ شَيْءٍ. ‘মুমিনগণ যেন  মুমিন ছাড়া কোন কাফেরকে বন্ধুরূপে গ্রহণ না করে। যারা এরূপ করবে আল্লাহর সাথে তাদের কোন সম্পর্ক থাকবে না’ (আলে ইমরান ২৮)। অর্থাৎ একজন বিধর্মী কোন দিনই কোন মুসলমানের প্রকৃত বন্ধু হ’তে পারে না। সুতরাং তাদের থেকে সর্বদা সর্তক থাকা প্রত্যেক মুসলমানের ঈমানী দায়িত্ব।
পলাশীর পরাজয়ের মাধ্যমে ভারতীয় উপমহাদেশের সাড়ে পাঁচশ’ বছরের মুসলিম শাাব সিরাজুদ্দৌলার পরাজয় শুধু তাঁর একার পরাজয় নয়, শুধু বাংলার পরাজয় নয়, বরং সমগ্র ভারতবাসীর পরাজয়। তবে অতি অল্প সময়ের ব্যবধানেই, অতি সহজেই তারা এই চরম সত্য বিষয়টি মর্মে মর্মে উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন। এক্ষেত্রে মীরজাফরদের বিশ্বাসঘাতকতার চেয়ে শেঠজীদের বিশ্বাসভাতকতায় ইংরেজরা বহুগুণ বেশী উপকৃত হয়েছিল। তারা শুধু পলাশীর যুদ্ধেই নয়, বহু আগে থেকেই ইংরেজদের নানাভাবে অর্থ দিয়ে সহযোগিতা করে আসছিল। একারণেই ইংরেজ ঐতিহাসিকগণও এই বিরাট সত্যটা অকপটে স্বীকার করেছেন, The rupees of the Hindu banker equally with the sword of the English Colonel contributed to the over through of the Mahamedan power in Bengal. ‘বাংলায় মুসলমানদের শক্তিকে খর্ব করে পরাধীন করতে বৃটিশ তরবারীর সাথে হিন্দু ধনপতিদের অর্থভান্ডারও সমানভাবে সহযোগিত করেছিল’।২৫ শেঠরা শুধু ইংরেজদেরকেই টাকা দেয়নি, সিরাজুদ্দৌলার অনেক সৈন্যকে পর্যন্ত অর্থ দিয়ে নিষ্ক্রীয় রেখে বাংলার ইতিহাসকে কলঙ্কিত করেছে। আরো দুঃখের কথা হ’ল বন্দী সিরাজুদ্দৌলাকে হত্যা করার প্রস্তাব এই জগৎশেঠই দিয়েছিল।২৬ এর মাধ্যমে পবিত্র কুরআনের চিরন্তন ঘোষণা বাস্তবে প্রতিফলিত হ’ল। বিধর্মীদের সাথে মুসলমানদের সম্পর্কের বিষয়ে মহান আল্লাহ বলেন, لَا يَتَّخِذِ الْمُؤْمِنُوْنَ الْكَافِرِيْنَ أَوْلِيَاءَ مِنْ دُوْنِ الْمُؤْمِنِيْنَ وَمَنْ يَفْعَلْ ذَلِكَ فَلَيْسَ مِنَ اللهِ فِيْ شَيْءٍ. ‘মুমিনগণ যেন  মুমিন ছাড়া কোন কাফেরকে বন্ধুরূপে গ্রহণ না করে। যারা এরূপ করবে আল্লাহর সাথে তাদের কোন সম্পর্ক থাকবে না’ (আলে ইমরান ২৮)। অর্থাৎ একজন বিধর্মী কোন দিনই কোন মুসলমানের প্রকৃত বন্ধু হ’তে পারে না। সুতরাং তাদের থেকে সর্বদা সর্তক থাকা প্রত্যেক মুসলমানের ঈমানী দায়িত্ব।
পলাশীর পরাজয়ের মাধ্যমে ভারতীয় উপমহাদেশের সাড়ে পাঁচশ’ বছরের মুসলিম শাসন ও আধিপত্যের অবসান ঘটে। এর মাধ্যমে সকল ক্ষেত্রে ভারতের দুর্বলতা প্রকাশ পায়। ফলে এক অস্বাভাবিক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। নতুন নবাব বৃটিশ বেনিয়াদের হাতের পুতুলে পরিণত হওয়ায় এ রাষ্ট্রের প্রকৃত শাসক কে? এই প্রশ্নে এক অস্বস্তিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এক কথায় বাংলায় রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক ক্ষেত্রে এক ভয়াবহ শূন্যতার উদ্ভব হয়, যা বাংলার জনগণের জন্য এক মারত্মক ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

আরও দেখুন:  ব্রাজিলে ইসলাম: এক করুণ ইতিহাস

পরিশেষে বলা যায়, নবাব সিরাজুদ্দৌলাকে পরাজিত করে ভারতবর্ষকে গ্রাস করতে তৎকালীন ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানী যেরূপে এদেশের হিন্দু ধনিক শ্রেণীকে হাত করার পাশাপাশি স্বার্থান্বেষী মুসলমানদের মিথ্যা প্রলোভনে কাবু করে ছিল, আধুনিক বিশ্বেও সমগ্র মুসলিম বিশ্বকে সকল দিকে থেকে কোণঠাষা করতে ইসলাম বিরোধী পরাশক্তিগুলো যথাসাধ্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তাই মুসলমানদের সময় এসেছে পলাশীর মর্মান্তিক পরিণতি থেকে শিক্ষা গ্রহণের। মহান আল্লাহ আমাদের সে তাওফীক দান করেন- আমীন!!

. কে এম. রাইছউদ্দিন খান, বাংলাদেশ ইতিহাস পরিক্রমা (ঢাকা : খান ব্রাদার্স এ্যান্ড কোম্পানি, ৯ম সং., ১৯৯৯), পৃঃ ৪৭৬।
. ফারুক মাহমুদ, ইতিহাসের অন্তরালে  (ঢাকা : ওয়েসিস বুকস্, ১৯৮৯), পৃঃ ২০৩।
.   গোলাম আহমাদ মোর্তজা, চেপে রাখা ইতিহাস (ঢাকা : মুনশী মোহাম্মদ মেহেরুল্লাহ রিসার্চ একাডেমী, ২০১০), পৃঃ ১৫৫।
. বাংলাদেশ ইতিহাস পরিক্রমা, পৃঃ ৪৯৩।
. তদেব।
. অক্ষয়কুমার মৈত্রেয়, সিরাজদ্দৌলা (ঢাকা : দিব্য প্রকাশ, ২০০৩), পৃঃ ৩৪।
. সিরাজদ্দৌলা, পৃঃ ৩৪।
. বাংলাদেশ ইতিহাস পরিক্রমা, পৃঃ ৪৮১।
. সিরাজদ্দৌলা, পৃঃ ৩৭।
১০. গোলাম আহমাদ মোর্তজা, ইতিহাসের ইতিহাস, (ঢাকা : মুনশী মোহাম্মদ মেহেরুল্লাহ রিসার্চ একাডেমী, ২০০৯), পৃঃ ১৮৫।
১১. বাংলাদেশ ইতিহাস পরিক্রমা, পৃঃ ৪৮২।
১২. তদেব, পৃঃ ৪৯৩।
১৩. মোঃ আবু তাহের, ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি ও পলালীর ট্রাজেডি (ঢাকা : ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ, ২০০৯), পৃঃ ৮৫।
১৪. তদেব, পৃঃ ৮৯।
১৫. বাংলাদেশ ইতিহাস পরিক্রমা, পৃঃ ৪৯৬।
১৬. মুহাম্মদ আবদুর রহীম, বাংলার মুসলমানদের ইতিহাস (ঢাকা : আহমদ পাবলিশিং হাউস, ১৯৯৪), পৃঃ ৯।
১৭. ইতিহাসের অন্তরালে, পৃঃ ১৫৭।
১৮. তদেব।
১৯. চেপে রাখা ইতিহাস, পৃঃ ১৫৫।
২০. তদেব, পৃঃ ১৫৬।
২১. তদেব, পৃঃ ১৫৫।
২২. বাংলাদেশ ইতিহাস পরিক্রমা, পৃঃ ৫০১।
২৩. তদেব।
২৪. অক্ষয় কুমার মৈত্র, সিরাজুদ্দৌলা ও পুরানা কলকাতার কথাচিত্র (কলকাতা : ১৮৯৮), পৃঃ ৩৯৩।
২৫. চেপে রাখা ইতিহাস, পৃঃ ১৫৮।
২৬. তদেব।


এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

Back to top button