ইতিহাস-ঐতিহ্য

এই মুদ্রাগুলো নিতে ওরা কি আবারও আসবে!

To Desired Deals

ইসরায়েলের স্বপ্নদ্রষ্টা, ইয়াহুদি ধর্মগুরু, অস্ট্রিয়ান সাংবাদিক থিওডোর হারজেল উসমানি সুলতান দ্বিতীয় আবদুল হামিদের কাছে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ফিলস্তিনে ইয়াহুদিদের ভূমি গড়ার লক্ষ্যে এক টুকরো জমি কেনার প্রস্তাব পেশ করেছিলেন। কারণ, ফিলিস্তিনে ইয়াহুদিদের বসবাসের ব্যাপারে সুলতান খুবই কঠোর ছিলেন।

মরণোন্মুখ উসমানি খিলাফতের এই সুলতানই ইয়াহুদিদের স্বপ্ন বাস্তবায়নের পথে বাধা ছিলেন! সুলতান দ্বিতীয় আবদুল হামিদ যে উত্তর দিয়েছিলেন, তা আজও ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লিখিত রয়েছে।

তিনি বলেছিলেন-

থিওডোর হারজেলকে জানিয়ে দাও, এ ব্যাপারে সে যেন আর এক কদমও সামনে বাড়ার দুঃসাহস না দেখায়। আমি পবিত্র ভূমি ফিলিস্তিনের এক ইঞ্চি মাটিও বিক্রি করতে রাজি নই!
ফিলিস্তিন আমার ব্যক্তিগত সম্পদ নয় যে, আমি এটা বিক্রি করে দেব। এটা পুরো মুসলিম উম্মাহর আমানত। আমার পূর্বসূরিরা বছরের পর বছর জিহাদ করে রক্তের বিনিময়ে এই ভূমি অর্জন করেছেন।

ইয়াহুদিদের টাকা তাদের গাঁটেই থাক। ফিলিস্তিনের মাটি এমন কোনো সওদা নয়, যা অর্থমূল্যে বিক্রিত হবে। তবে হ্যাঁ, কোনদিন যদি আমি মারা যাই, তাহলে তোমরা ফিলিস্তিন মাগনা পেয়ে যাবে। ফিলিস্তিনের একটুকরো মাটি নিয়ে যাওয়া আমার শরীরে তলোয়ার দিয়ে এফোঁড়ওফোঁড় করে দেয়ার চেয়েও সহজ!

ব্যস, ইয়াহুদিরা পথের কাঁটা সরানোর চিন্তা করল। ১৯০৯ সালে সুলতান দ্বিতীয় আবদুল হামিদকে খিলাফতের পদ থেকে অপসারণ করতে সক্ষম হল। মূলতঃ এখানেই উসমানি খিলাফতের কবর রচনা হয়ে যায়। এরপর ছলেবলে, কলে ও কৌশলে উসমানি খিলাফতকে প্রথম বিশ্বযুদ্ধে জড়িয়ে একেবারে নাজেহাল করে ফেলা হয়।

১৯১৭ সালে ব্রিটিশ সেনারা দখল করে নেয় ফিলিস্তিন। ব্রিটিশের ছত্রছায়ায় ফিলিস্তিনে ইয়াহুদি বসত গড়ে উঠতে শুরু করে। ফিলিস্তিনে থাকা উসমানি সৈন্যরা সামান্য প্রতিরোধ করে ব্যর্থ হয়ে ফিলিস্তিন ছাড়ে। ৪০০ বছর শাসনের পর ফিলিস্তিন উসমানিদের হাতছাড়া হয়ে যায়। সুলতান দ্বিতীয় আবদুল হামিদের ভবিষ্যৎবাণী ফলে যায়।

ফিলিস্তিন ছাড়ার আগে উসমানি সৈন্যরা এই উসমানি মুদ্রাগুলো ফিলিস্তিনের প্রসিদ্ধ ব্যবসায়ী রাগিব হিলমি আলুলের পরিবারের কাছে আমানত হিসেবে রেখে যায়।
যাওয়ার সময় তারা বলে যায় যে, আমরা আবার যখন ফিলিস্তিনে ফিরে আসব, তখন এই মুদ্রাগুলো ফিরিয়ে নেব।

আহ! ১৯১৭ থেকে ২০১৭ এক শতাব্দী পার হয়ে যায়, আজ ১০৪ বছর অতিক্রান্ত হয়ে যায়, তবুও ফিলিস্তিনে আর উসমানি সৈন্যরা ফিরে আসে না! মুদ্রাগুলো আজও সেই দূর্বিসহ সময়ের দুঃসহ স্মৃতি হয়ে বেঁচে রয়!

সূত্র: محمد خليف ثنيان- এর টুইট অবলম্বনে…
সংগ্রহ: আলী হাসান তৈয়ব

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

Back to top button