আলোচনা-সমালোচনা

আল্লামা আলবানী সম্পর্কে শায়খ শু‘আইব আরনাঊত্বের সমালোচনার জবাব (৩)

পূর্বের অংশ: আল্লামা আলবানী সম্পর্কে শায়খ শু‘আইব আরনাঊত্বের সমালোচনার জবাব (২)

তৃতীয় হাদীছ :

শায়খ শু‘আইব (রহঃ) তাঁর উক্ত দাবীর প্রমাণে শায়খ আলবানী (রহঃ) ‘মতনের সমালোচনার’ প্রতি মনোনিবেশ করতেন না মর্মে অভিযোগের প্রেক্ষিতে তৃতীয় এ হাদীছটি উল্লেখ করেছেন- أُمَّتِي أُمَّةٌ مَرْحُومَةٌ، لَيْسَ عَلَيْهَا عَذَابٌ فِي الْآخِرَةِ عَذَابُهَا فِي الدُّنْيَا ‘আমার উম্মতের উপর আল্লাহ তা‘আলার খাছ রহমত রয়েছে। তাদের জন্য পরকালে কোন আযাব নেই। তাদের আযাব দুনিয়াতে’।

‘শায়খ আলবানী (রহঃ) ছহীহা (হা/৯৫৯) গ্রন্থে এ হাদীছটি লিপিবদ্ধ করেছেন। শায়খ তাছহীহ-এর কারণ বর্ণনা করার চেষ্টা করেছেন যে, উম্মত দ্বারা উদ্দেশ্য উম্মতের অধিকাংশ মানুষ। এজন্য যে, এ কথাটা তো অকাট্য যে, কিছু মানুষ পাপ থেকে পবিত্রতা অর্জন করার জন্য জাহান্নামে প্রবেশ করবে। অথচ ইমাম বুখারী ‘আত-তারীখুল কাবীর’ (১/৩৮, ৩৯) গ্রন্থে এজন্য এর যঈফ হওয়ার প্রতি ইঙ্গিত করেছেন যে, এর সনদগুলিতে ‘ইযত্বিরাব’ (অসঙ্গতি) রয়েছে। উপরন্তু শাফা‘আত ও কিছু মানুষকে শাস্তি প্রদান করে জাহান্নাম থেকে বের করার হাদীছগুলি অনেক বেশী ও স্পষ্ট। আমরা মুসনাদে আহমাদের (হা/১৯৬৭৯) টীকায় একে যঈফ বলেছি’।[1]

এ হাদীছটি আবুদাঊদ (হা/৪২৭৮, ৪/১৬৯, আওনুল মা‘বূদ সহ), হাকেম (৪/৪৪৪), আহমাদ (৪/৪১০, ৪১৮) ইত্যাদি গ্রন্থে أَبو بُرْدَةَ عَنْ أَبِي مُوسَى ‘সনদে বর্ণিত আছে। যেমনটি আল্লামা আলবানী (রহঃ) ‘ছহীহাহ’ (হা/৯৫৯) গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন এবং বলেছেন যে, ইমাম হাকেম (রহঃ) একে صَحِيحُ الاِسنَادِ ‘বিশুদ্ধ সনদ’ এবং হাফেয ইবনু হাজার (রহঃ) ‘বাযলুল মা‘ঊন’ (পৃঃ ২১৩) গ্রন্থে এর সনদকে হাসান বলেছেন। হাফেয সুয়ূত্বী (রহঃ)ও একে ছহীহ বলেছেন।[2]

এর দ্বারা স্পষ্ট হয়ে যায় যে, আল্লামা আলবানী (রহঃ) একাই একে ছহীহ বলেননি।

আমরা শায়খ শু‘আইবের ইঙ্গিতের ভিত্তিতে মুসনাদে আহমাদের টীকাও অধ্যয়ন করেছি। যেখানে তিনি মুসনাদে আহমাদ (৪/৪১০)-এর রেওয়ায়াত সম্পর্কে বলেছেন, ইয়াযীদ বিন হারূণ ও হাশেম বিন ক্বাসেম উভয়েই মাস‘ঊদী আব্দুর রহমান বিন আব্দুল্লাহ হ’তে ইখতিলাতের[3] পর শ্রবণ করেছেন। কিন্তু মাস‘ঊদী হ’তে বর্ণনাকারীদের মধ্যে মু‘আয বিন আম্বারীর নাম মুসনাদুশ শিহাব-এর সূত্রে তিনি নিজেই উল্লেখ করেছেন। আর মু‘আয মাস‘ঊদী হ’তে ইখতিলাতের পূর্বে শ্রবণ করেছেন। যেমনটি ‘আল-কাওয়াকিবুন নাইয়িরাত’ (পৃঃ ২৯৫) গ্রন্থে আছে। কিন্তু শায়খ শু‘আইব এ সত্য বিষয়টা বর্ণনা করা থেকে বিরত থেকেছেন। তিনি-ই তাঁর এই অনুসৃত পদ্ধতি বা হিকমতের কারণ ব্যাখ্যা করতে পারবেন।

এরপর আবূ বুরদা থেকে বর্ণনাকারীদের সনদসমূহ সম্পর্কে আলোচনা করেছেন এবং ইমাম বুখারী থেকে উদ্ধৃত করেছেন যে, তিনি এতে ইযত্বিরাবের[4] কথা উল্লেখ করেছেন। ইমাম বুখারী ‘আত-তারীখুল কাবীর’ (১/৩৮, ৩৯) গ্রন্থে নিঃসন্দেহে আবূ বুরদাহ থেকে বর্ণনাকারীদের মতানৈক্য উল্লেখ করেছেন। একই বর্ণনা তিনি ‘আত-তারীখুল আওসাত্ব’ (যা আত-তারীখুছ ছাগীর নামেও মুদ্রিত) গ্রন্থেও উল্লেখ করেছেন এবং এই মতভেদটিই উল্লেখ করেছেন। এ প্রসঙ্গে প্রথমে তিনি আবূ বুরদাহ হ’তে আব্দুল্লাহ বিন ইয়াযীদের বর্ণনাটি উল্লেখ করেছেন। এরপর তিনি বলেছেন,

وَيُرْوَى عَنْ طَلْحَةَ بْنِ يَحْيَى وَعَبْدِ الْمَلِكِ بْنِ عُمَيْرٍ وَمُحَمَّدِ بْنِ إِسْحَاقَ بْنِ طَلْحَةَ وَعُمَارَةَ الْقُرَشِيِّ وَسَعِيدِ بْنِ أَبِي بُرْدَةَ وَعَوْنٍ وَعَمْرِو بْنِ قيس والبختري بْنِ الْمُخْتَارِ وَمُعَاوِيَةَ بْنِ إِسْحَاقَ وَلَيْثٍ وَالْوَلِيدِ بن عِيسَى أَبُو وهب عَن أبي بردة عَن أَخِيه عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ وَفِي أَسَانِيدِهَا نَظَرٌ وَالْأَوَّلُ أَشْبَهُ-[5]

আপনারা লক্ষ্য করেছেন যে, ইমাম বুখারী (রহঃ) أَبو بُرْدَةَ عَنْ أَبِي مُوسَى ‘এর সনদগুলি সমালোচনা করেছেন এবং বলেছেন,فِي أَسَانِيدِهَا نَظَرٌ  ‘এর সনদগুলিতে আপত্তি রয়েছে’। কিন্তু আবূ বুরদাহ আব্দুল্লাহ বিন ইয়াযীদের রেওয়ায়াতকে بالصواب أَشْبَهُ ‘সঠিকের অধিক নিকটবর্তী’ বলেছেন। যার দ্বারা এ বিষয়টি প্রতীয়মান হয় যে, ইমাম বুখারী (রহঃ) আবূ বুরদাহ (রহঃ)-এর সকল বর্ণনাকে আপত্তিজনক বলেননি। যেমনটি শায়খ শু‘আইব বুঝাতে চেয়েছেন। আর এটা বাহ্যতঃ অসম্ভব যে, তিনি আত-তারীখুছ ছাগীর সম্পর্কে অবগত ছিলেন না। আল্লামা হায়ছামী আব্দুল্লাহ বিন ইয়াযীদের এই বর্ণনাটি উল্লেখ করে বলেছেন, رِجَالُهও ثِقَاتٌ ‘এর রাবীগণ নির্ভরযোগ্য’।[6]

শায়খ শু‘আইবের স্ববিরোধিতা :

শুধু এটাই নয়। বরং বিস্ময়ের কথা এই যে,أبو برده عن عبد الله بن يزيد ‘আবূ বুরদাহ আব্দুল্লাহ বিন ইয়াযীদ হ’তে’-সূত্রের বর্ণনাটি আল্লামা ত্বাহাবী ‘মুশকিলুল আছার’ (হা/২৬৮, ১/২৪৪) গ্রন্থেও উল্লেখ করেছেন। শায়খ শু‘আইব এর তাখরীজে বলেছেন, اِسْنَادُه صَحِيْحٌ عَليَ شَرْطِ الْبُخَارِيْ ‘বুখারীর শর্তে এর সনদ ছহীহ’। ইমাম হাকেম (রহঃ) থেকেও উদ্ধৃত করেছেন যে, صَحِيْحٌ عَليَ شَرْطِ الشَّيْخَيْنِ ‘শায়খায়নের শর্তে ছহীহ’। কিন্তু মুসনাদে আহমাদের টীকায় ইবনু আবী হাতেমের ‘আল-মারাসীল’ গ্রন্থের উদ্ধৃতিতে ইমাম আহমাদ (রহঃ) থেকে এর সমালোচনা করেছেন যে, ‘আব্দুল্লাহ বিন ইয়াযীদের নবীর সাহচর্য লাভের বিষয়টি সঠিক নয়। তিনি আবুবকর বিন আইয়াশ আবূ হুছায়ন হ’তে, তিনি আবূ বুরদাহ হ’তে, তিনি আব্দুল্লাহ বিন ইয়াযীদ হ’তে বর্ণনা করেছেন। আর আমি তাকে কিছুই মনে করি না’।

আরও দেখুন:  আল্লামা আলবানী সম্পর্কে শায়খ শু‘আইব আরনাঊত্বের সমালোচনার জবাব (৪)

ইমাম আহমাদের এই অবস্থান কেমন সে সম্পর্কে শায়খ শু‘আইব নিশ্চুপ। অথচ ‘মুশকিলুল আছার’-এ এই উদ্ধৃতিতে ইমাম ত্বাহাবীর এই স্পষ্ট বক্তব্য মওজুদ রয়েছে- وَذَكَرَهُ محمد بن سَعْدٍ في كِتَابِ الطَّبَقَاتِ وقال عبد اللهِ بن يَزِيدَ الْخِطْمِيُّ من أَصْحَابِ رسول اللهِ صلى الله عليه وسلم مِمَّنْ نَزَلَ الْكُوفَةَ ‘আব্দুল্লাহ বিন ইয়াযীদকে মুহাম্মাদ বিন সা‘দ আত-ত্বাবাক্বাত গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন এবং তিনি বলেছেন, আব্দুল্লাহ বিন ইয়াযীদ আল-খাত্বমী রাসূলুল্লাহ (ছাঃ)-এর ঐ সকল ছাহাবীর অন্তর্ভুক্ত যারা কূফায় চলে গিয়েছিলেন’।[7]

শায়খ শু‘আইব টীকায় যথারীতি ‘আত-ত্বাবাক্বাত’ (৬/১৮) গ্রন্থের উদ্ধৃতি দিয়েছেন। এখন আমরা শায়খ শু‘আইবের দ্বিমুখী নীতিকে কি মনে করব? বিশেষত যখন তিনি এটা ভাল করেই বুঝেন যে, আব্দুল্লাহ বিন ইয়াযীদ খাত্বমীর বর্ণনাসমূহ বুখারী ও মুসলিমেও আছে। যেমনটি ‘তুহফাতুল আশরাফ’ (৭/১৮৪) থেকে সুস্পষ্ট হয়। বরং বুখারীতে (হা/১০২২) তার ছাত্র আবূ ইসহাকের এই স্পষ্ট বক্তব্যও রয়েছে- وَرَأَى عَبْدُ اللهِ بْنُ يَزِيْدَ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ ‘আব্দুল্লাহ বিন ইয়াযীদ নবী করীম (ছাঃ)-কে দেখেছেন’।

শুধু এটাই নয়, ইমাম আহমাদ মুসনাদে (৪/৩০৭) তার হাদীছ বর্ণনা করেছেন। আর হাফেয ইবনু হাজার আসক্বালানী (রহঃ) ইমাম আহমাদের কিতাবুয যুহদ গ্রন্থে তার পুত্র আব্দুল্লাহ হ’তে অতিরিক্ত বর্ণনা করেছেন যে, كان عبد الله بن يزيد- يعني صاحب رسول الله صلى الله عليه وآله وسلّم ‘আব্দুল্লাহ বিন ইয়াযীদ অর্থাৎ রাসূলুল্লাহ (ছাঃ)-এর ছাহাবী’।[8]

আর শায়খ শু‘আইব নিজেই মুসনাদের টীকায় আব্দুল্লাহ বিন ইয়াযীদের মুসনাদে আল্লামা সিন্ধী থেকে উদ্ধৃত করেছেন- عبد الله بن يزيد، أنصاري خَطْمي، له ولأبيه صحبة، شهد بيعة الرضوان وهو صغير- ‘আব্দুল্লাহ বিন ইয়াযীদ আনছারী খাত্বমী ও তার পিতা নবীর সাহচর্য লাভ করেছেন। তিনি ছোট বয়সে বায়‘আতে রিযওয়ানে উপস্থিত ছিলেন’।[9]

এজন্য যখন স্বয়ং তার নিকটে আব্দুল্লাহ বিন ইয়াযীদের ছাহাবী হওয়া প্রমাণিত, তখন ইমাম আহমাদ (রহঃ)-এর অস্বীকৃতির ব্যাপারে তার নীরব থাকা অপরাধীর মত চুপ থাকা নয় কি?

আব্দুল্লাহ বিন ইয়াযীদ (রাঃ)-এর হাদীছগুলি মুসনাদে তো আছেই; ইমাম আহমাদ আল-ইলাল ওয়া মা‘রিফাতুর রিজাল (ক্রমিক ৫৮৭৪, ৩/৪৪১) গ্রন্থেও ‘শু‘বাহ আদী বিন ছাবেত হ’তে, তিনি আব্দুল্লাহ বিন ইয়াযীদ হ’তে’ সনদে বর্ণনা করেছেন। যার শব্দগুলি হ’ল- انه نهي النهبة والمثلة ‘তিনি কোন বস্ত্তকে বিকৃত করতে ও অঙ্গহানি করতে নিষেধ করেছেন’। আর এই বর্ণনাটি বুখারীতেও (হা/২৪৭৪, ৫৫১৪) আছে। আল্লামা ছালাহুদ্দীন আলাঈ ইমাম আহমাদ (রহঃ)-এর এই অস্বীকৃতি জ্ঞাপন সম্পর্কে লিখেছেন,أخرج له البخاري أن النبي صلى الله عليه وسلم نهى عن المثلة والنهبة وذلك يقتضي صحة سماعه وقد قيل إنه شهد الحديبية وهو ابن سبع عشرة سنة ‘ইমাম বুখারী (রহঃ) তার এই হাদীছটি বর্ণনা করেছেন যে, নবী করীম (ছাঃ) কোন বস্ত্তকে বিকৃত করতে ও অঙ্গহানি করতে নিষেধ করেছেন। এটা আব্দুল্লাহ বিন ইয়াযীদের নবী করীম (ছাঃ)-এর কাছ থেকে শ্রবণ করা সঠিক হওয়ার দাবী রাখে। বলা হয়েছে যে, তিনি হুদায়বিয়ার সন্ধিতে উপস্থিত ছিলেন। তখন তার বয়স ছিল সতের বছর’।

ইমাম দারাকুৎনীও বলেছেন যে, ‘তিনি ও তার পিতা (নবীর) সাহচর্য লাভের মর্যাদা লাভ করেছেন’। ইমাম আবূ নু‘আইম, ইমাম বাগাবী, আল্লামা ইবনে আব্দুল বার্র, হাফেয ইবনুল আছীর, হাফেয যাহাবী ও হাফেয ইবনু হাজার আসক্বালানী (রহঃ)ও তাঁর ছাহাবী হওয়ার স্বীকৃতি দিয়েছেন।[10]

ইমাম আহমাদ (রহঃ) নিঃসন্দেহে তার ছাহাবী হওয়া অস্বীকার করেছেন। কিন্তু স্বয়ং মুসনাদ ও যাওয়ায়েদুয যুহদ গ্রন্থে তার পুত্র আব্দুল্লাহর বক্তব্য তার (ইমাম আহমাদ) বিপরীত। ইমাম বুখারী (রহঃ)ও তাঁর সাথে একমত নন। তিনি তো এই বর্ণনাকে أشبه بالصواب ‘সঠিকের অধিক নিকটবর্তী’ বলেছেন।

হযরত আবূ হুরায়রা (রাঃ)-এর বক্তব্য : 

মারফূ বর্ণনাগুলির সমর্থন হযরত আবূ হুরায়রা (রাঃ)-এর নিম্নোক্ত উক্তি থেকেও হয়-إِنَّ هَذِهِ الْأُمَّةَ أَمَّةٌ مَرْحُومَةٌ، لَا عَذَابَ عَلَيْهَا إِلَّا مَا عَذَّبَتْ هِيَ أَنْفُسَهَا ‘এই উম্মত আল্লাহর রহমতপ্রাপ্ত উম্মত। তাদেরকে কোন শাস্তি দেওয়া হবে না। তবে তা দেওয়া হবে যা তারা নিজেরাই নিজেদেরকে দিয়েছে’।[11]

এ বর্ণনাটি হাফেয ইবনু হাজার (রহঃ)-এর ‘বাযলুল মা‘ঊন’ (পৃঃ ২১৪) গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন এবং বলেছেন, ‘এর সনদটি ছহীহ’। এই বর্ণনাটি ‘আল-মাতালিবুল আলিয়া’ গ্রন্থেও তিনি উল্লেখ করেছেন। আর এর মুহাক্কিক্ব বলেছেন,اسناده صحيح وهو في حكم المرفوع ‘এর সনদটি ছহীহ। এটা মারফূ-এর হুকুমে’।[12]

আরও দেখুন:  আল্লামা আলবানী সম্পর্কে শায়খ শু‘আইব আরনাঊত্বের সমালোচনার জবাব (৫)

এই সনদের রাবী ছিক্বাহ (নির্ভরযোগ্য)। ‘বাযলুল মাঊন’ গ্রন্থে অতিরিক্ত এটাও বলেছেন যে,وهذا معني حديث ابي موسي، عذابها في الدنيا : الفتن والزلال والقتل، فهو شاهد قوي له، ومثله لا يقال بالرأي ‘এই অর্থ ও মর্ম আবূ মূসার হাদীছে রয়েছে যে, উম্মতের উপর দুনিয়াতে আযাব হ’ল ফিৎনা, ভূমিকম্প ও খুনাখুনি। আর এটা তার শক্তিশালী সমর্থক হাদীছ। আর এমন কথা রায়-ক্বিয়াস দ্বারা বলা যায় না’।

যেমন আবূ হুরায়রা (রাঃ)-এর এটা বর্ণনা করা মারফূ হাদীছের হুকুমে। হযরত আবূ হুরায়রা (রাঃ)-কে তাঁর ছাত্র আবূ হাযেম জিজ্ঞেস করেছিলেন যে, ‘উম্মতের স্বয়ং আযাবের মধ্যে আসার বিষয়টি কি’? তিনি বললেন, নাহরাওয়ানের যুদ্ধ, উষ্ট্রের যুদ্ধ, ছিফফীনের যুদ্ধ কি আযাব নয়’?

এই মওকূফ বর্ণনাটি যা মারফূ-এর হুকুমে, এর দ্বারাও আবূ মূসা এবং আব্দুল্লাহ বিন ইয়াযীদ (রাঃ)-এর হাদীছের সমর্থন মেলে। এজন্য এই বর্ণনাকে যঈফ বলা কতটুকু বাস্তবসম্মত তার ফায়ছালা সম্মানিত পাঠকগণ নিজেরাই করতে পারবেন।

একই মর্মের একটি হাদীছ رجل من المهاجرين ‘একজন মুহাজির হ’তে’ বর্ণিত, যার শব্দগুলি নিম্নরূপ-عُقُوْبَةُ هَذِهِ الْأُمَّةِ بِالسَّيْفِ ‘এই উম্মতের আযাব হ’ল তরবারি’।[13] এর সনদও ছহীহ। যেমনটা এর মুহাক্কিক্ব শায়খ সা‘দ বিন নাছের বলেছেন। এই বর্ণনা ইমাম ইবনু আবী আছেম ‘আল-আহাদ ওয়াল মাছানী’ (৫/৩৪৭) গ্রন্থেও উল্লেখ করেছেন। উক্ত শব্দেই এই বর্ণনাটি উক্ববা বিন মালেক (রাঃ) হ’তে তারীখে বাগদাদ (১/৩১৭) গ্রন্থে আছে। আর এর সনদ হাসান। শায়খ আলবানী ছহীহাহ (হা/১৩৪৭) গ্রন্থে সেটি উল্লেখ করেছেন।

এই বর্ণনাটি হযরত তারেক বিন আশয়াম (রাঃ) হ’তে বর্ণিত। যার শব্দগুলি হ’ল-بحسب أصحابي القتل  ‘আমার ছাহাবীদের জন্য যুদ্ধই যথেষ্ট’। বর্ণনাটি মুসনাদে আহমাদে (৩/৪৭২) আছে। আল্লামা আলবানী একে ছহীহাহ (হা/১৩৪৬) গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন। আর তিনি আল্লামা হায়ছামী হ’তে বর্ণনা করেছেন যে, ‘এর রাবী ছহীহ’।[14]

সাঈদ বিন যায়দ (রাঃ) হ’তে এর শাহেদ (সমর্থক) বর্ণনা ত্বাবারানীর বরাতেও আল্লামা হায়ছামী উল্লেখ করেছেন। আল্লামা হায়ছামী বলেছেন যে, ‘ইমাম ত্বাবারানী একে কয়েকটি সনদে বর্ণনা করেছেন। তন্মধ্যে একটি সনদের রাবী ছিক্বাহ বা নির্ভরযোগ্য। আরো বিস্তারিত আলোচনার জন্য আগ্রহীগণ ‘ছহীহা’ গ্রন্থটি দেখুন।

এখানে এই বিষয়টিও লক্ষ্যণীয় যে, এই বর্ণনাটি সম্পর্কে শায়খ শুআ‘ইব মুসনাদের টীকায় (হা/১৫/৮৮৬, ২৫/২১২, ২১৩) বলেছেন, اسناده صحيح ‘এর সনদ ছহীহ’। অতঃপর ইবনু আবী শায়বাহ (১৫/৯৭), মুসনাদে বাযযার, ত্বাবারানী কাবীর, ইবনু আছেমের আস-সুন্নাহ ও আল-আহাদ ওয়াল-মাছানী হ’তে এর তাখরীজ করেছেন এবং বলেছেন যে, সাঈদ বিন যায়দ (রাঃ) থেকেও এই রেওয়ায়াতটি ইবনু আবী আছেমের আস-সুন্নাহ, বাযযার ও ত্বাবারানী কাবীরে আছে।

সম্মানিত পাঠকগণই এখন ফায়ছালা করুন যে, এই রেওয়ায়াতটি হযরত আবূ মূসা (রাঃ)-এর রেওয়ায়াতের সমর্থক কি-না? শায়খ শু‘আইবও এগুলির মধ্য হ’তে কিছু বর্ণনাকে ছহীহ বলে মেনে নিয়েছেন। তাহ’লে কি এগুলি ও শাফা‘আতের হাদীছগুলির মধ্যে বৈপরীত্য নেই? শায়খ শু‘আইব এর কি সমাধান পেশ করেন? যদি তার নিকটে সমতা বিধানের কোন পথ থাকে তবে হযরত আবূ মূসা (রাঃ)-এর হাদীছ হ’তে সেই সমতা ও সমন্বয় সাধনের সম্ভাবনা নেই কেন?

মর্মগত জটিলতার জবাব কি ?

শায়খ শু‘আইব ইমাম বুখারী (রহঃ) হ’তে যে মর্মগত জটিলতার কথা উল্লেখ করেছেন তার জবাবে আল্লামা আলবানী (রহঃ) হ’তে শায়খ শু‘আইব নিজেই বর্ণনা করেছেন, ‘উম্মত দ্বারা উদ্দেশ্য উম্মতের অধিকাংশ মানুষ। এজন্য যে, এ বিষয়টি অকাট্য যে, কতিপয় লোক গুনাহ থেকে পবিত্রতা অর্জন করার জন্য জাহান্নামে প্রবেশ করবে’।[15]

ইমাম বুখারী শাফা‘আতের হাদীছগুলিকে নিঃসন্দেহেاكثر، ابين اشهر ‘সংখ্যায় অধিক, সুস্পষ্ট ও বেশী প্রসিদ্ধ’ বলেছেন, তাহ’লে কি ঐ বর্ণনা যেটা বাহ্যিকভাবে এর বিরোধী এবং যাকে তিনি স্বয়ং اشبه بالصواب বলেছেন, এ দু’টোর মধ্যে সমতা বিধানের কোন উপায় নেই? মুহাদ্দিছীনে কেরামের মূলনীতি অনুসারেই আল্লামা আলবানী (রহঃ) এই সমতা উল্লেখ করেছেন। বরং হাফেয ইবনু হাজার (রহঃ)ও বলেছেন,وهو محمول علي معظم الامة المحمدية لثبوة احاديث الشفاعة- ‘শাফা‘আতের হাদীছগুলি প্রমাণিত হওয়ার কারণে এই হাদীছটি উম্মতে মুহাম্মাদীর অধিকাংশের উপর বর্তায়’।[16]

এজন্য শায়খ আলবানী (রহঃ)-এর পূর্বে হাফেয ইবনু হাজার (রহঃ)ও এই হাদীছটিকে সঠিক মেনে নিয়ে এর উপর মর্মগত জটিলতার এই জবাবটিই দিয়েছেন, যা তার পরে শায়খ আলবানী (রহঃ) দিয়েছেন।

আরও দেখুন:  আল্লামা আলবানী সম্পর্কে শায়খ শু‘আইব আরনাঊত্বের সমালোচনার জবাব (২)

اگر تو ہى   نہ چاہے تو  بہانے ہزار ہيں

‘তুমি না চাইলে হাযারটা বাহানা দেখাও’।

এই হাদীছের ব্যাখ্যায় আরো বক্তব্য রয়েছে। যেমন এর দ্বারা সেই উম্মত উদ্দেশ্য যারা কবীরা গুনাহে লিপ্ত নন বা এর দ্বারা ছাহাবায়ে কেরামের নির্দিষ্ট জামা‘আত উদ্দেশ্য। অথবা তা وَيَغْفِرُ مَا دُونَ ذَلِكَ لِمَنْ يَشَاءُ ‘এ ব্যতীত আল্লাহ যাকে চান তিনি তাকে ক্ষমা করেন’ (নিসা ৪/৪৮)-এর সত্যায়ন। এ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা ‘আওনুল মাবূদ’ ও ‘মিরক্বাত’ ইত্যাদি গ্রন্থসমূহে দেখা যেতে পারে।

আরেকটি হাদীছ :

রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) উম্মত সম্পর্কে এটাও বলেছেন,لاَ يَمُوتُ رَجُلٌ مُسْلِمٌ إِلاَّ أَدْخَلَ اللَّهُ مَكَانَهُ النَّارَ يَهُودِيًّا أَوْ نَصْرَانِيًّا  ‘কোন মুসলিম মৃত্যুবরণ করে না কিন্তু তার স্থানে আল্লাহ তা‘আলা কোন ইহূদী বা নাছারাকে জাহান্নামে দাখিল করবেন’।[17]

এই বর্ণনাটিও ছহীহ মুসলিমে আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে আবূ মূসা সূত্রে বর্ণিত। ইমাম আহমাদ (রহঃ)ও এই বর্ণনাটি মুসনাদে আহমাদে (৪/৩৯১) উল্লেখ করেছেন। শায়খ শু‘আইব এই বর্ণনাটি সম্পর্কে বলেছেন, إسناده صحيح على شرط مسلم وقد أخرجه في صحيحه، رجاله ثقات رجال الشيخين، غير أن البخاريَّ أعلَّه في التاريخ الكبير ‘মুসলিমের শর্তে এর সনদ ছহীহ। তিনি একে তার ছহীহ গ্রন্থে বর্ণনা করেছেন। এর রাবীগণ ছিক্বাহ, শায়খায়নের রাবী। তবে ইমাম বুখারী আত-তারীখুল কাবীর গ্রন্থে একে ত্রুটিযুক্ত আখ্যা দিয়েছেন’।[18]

আল্লামা শু‘আইব এটাও বলেছেন যে, এই হাদীছটি মূলত إن أمتي أمة مرحومة -এর অংশ। আবার এর উপর ইমাম বুখারীর মর্মগত জটিলতা যে, শাফা‘আতের হাদীছটি এর চাইতে اكثر، ابين، اشهر বর্ণনা করে ইমাম বায়হাক্বী শু‘আবুল ঈমান (১/৩৪২) হ’তে বর্ণনা করেছেন যে, ‘এ হাদীছটি শাফা‘আতের হাদীছের বিরোধী নয়। কেননা এই হাদীছটি যদিও প্রত্যেক মুমিনের জন্য প্রযোজ্য, কিন্তু সম্ভাবনা রয়েছে যে, এর দ্বারা  ঐ মুমিন উদ্দেশ্য যার গুনাহ দুনিয়াবী জীবনে মুছীবত ও কষ্ট দ্বারা মাফ হয়ে গেছে। কেননা হাদীছগুলির শব্দাগুলি হ’ল, ‘আমার উম্মত রহমতপ্রাপ্ত। আল্লাহ তা‘আলা তাদের আযাব তার হাতে রেখেছেন। ক্বিয়ামতের দিন আল্লাহ তা‘আলা প্রত্যেক মুসলিমকে তার বিনিময়ে অন্য ধর্মের লোককে দিবেন। আর তাকে (অমুসলিম বা কাফের, মুশরিক) তার (ক্ষমাপ্রাপ্ত মুসলিমের) স্থানে জাহান্নামে নিক্ষেপ করা হবে। আর শাফা‘আতের হাদীছ তাদের ব্যাপারে প্রযোজ্য, যাদের গুনাহের কোন কাফফারা দুনিয়াতে বালা-মুছীবত রূপে হয়নি। আর এটারও সম্ভাবনা রয়েছে যে, এই পণবন্দী ও বদলা শাফা‘আতের পর হবে।

এরপর তিনি ফাৎহুল বারীর (১১/৩৯৮) সূত্রে উল্লেখ করেছেন যে, হাফেয ইবনু হাজার ইমাম বায়হাক্বীর কথা বর্ণনা করে এর আরেকটি ব্যাখ্যা প্রদান করেছেন। আর আল্লামা নববীও এই হাদীছটির এই জবাবই দিয়েছেন। আগ্রহী পাঠকগণ উক্ত ব্যাখ্যা ও সমতা বিধান ফাৎহুল বারী ও নববীর শরহে মুসলিমে (২/৩৬০) দেখে নিতে পারেন। অথবা মুসনাদে আহমাদের টীকা (৩২/২৩৩) অধ্যয়ন করুন।

পরবর্তী অংশ: আল্লামা আলবানী সম্পর্কে শায়খ শু‘আইব আরনাঊত্বের সমালোচনার জবাব (৪)

মূল (উর্দূ) : শায়খ ইরশাদুল হক আছারী
অনুবাদ : আহমাদুল্লাহ


[1]. মাসিক বাইয়েনাত, পৃঃ ৩৩

[2]. আল-জামেউছ ছাগীর ১/৬৪।

[3]. রাবীর মুখস্থ শক্তি নষ্ট হয়ে যাওয়া, বিবেক-বুদ্ধি দুর্বল হয়ে যাওয়া, সঠিকভাবে হাদীছ মনে রাখতে না পারায় হাদীছের বাক্যে তালগোল পাকিয়ে ফেলাকে ‘ইখতিলাত’ বলা হয়। বিভিন্ন কারণে ইখতিলাত হ’তে পারে। যেমন : বয়স বেড়ে যাওয়া, বই-পুস্তক পুড়ে যাওয়া, ধন-সম্পদের ক্ষতি হওয়া কিংবা সন্তান-সন্ততির মৃত্যু ঘটার কারণে মানসিক আঘাত পাওয়া ইত্যাদি (তায়সীরু মুছত্বলাহিল হাদীছ পৃঃ ১২৫ প্রভৃতি)। ইখতিলাতে অভিযুক্ত রাবীকে ‘মুখতালিত’ বলা হয়। মুখতালিত রাবী কর্তৃক বর্ণিত হাদীছ বা বর্ণনাকে ‘মুখতালাত’ বলা হয়।-অনুবাদক

[4]. যে বর্ণনাটি বিভিন্ন সনদে পরস্পরবিরোধী ভাষ্যে সমমানের সূত্রে বর্ণিত হয়েছে, তাকে ‘মুযত্বারিব’ বলে। আর মুযত্বারিব হাদীছ বর্ণনা করাকে ‘ইযত্বিরাব’ বলে।-অনুবাদক

[5]. আত-তারীখুছ ছাগীর ১/২৮৪।

[6]. মাজমা‘উয যাওয়ায়েদ ৭/২২৪।

[7]. মুশকিল ১/২৪৬

[8]. আল-ইছাবাহ ৬/৪২৪।

[9]. তা‘লীকুল মুসনাদ ৩১/৩৭।

[10]. মা‘রিফাতুছ ছাহাবা ৪/১৮০৩; আল-ইসতী‘আব ৩/১২৩; উসদুল গাবাহ ৩/২৭৩; বাগাবী, মু‘জামুছ ছাহাবা ৪/৮৪; তাজরীদুছ ছাহাবা ১/৩৪১; তাক্বরীব, পৃঃ ১৯৩ ইত্যাদি। 

[11]. মুসনাদে আবী ইয়া‘লা হা/৬১৭৬। 

[12]. আল-মাতালিবুল আলিয়া ১৭/১২৬, ১২৭।

[13]. আল-মাতালিবুল আলিয়া ১৭/১২৫। 

[14]. মাজমা ৭/২২৩। 

[15]. মাসিক বাইয়েনাত, পৃঃ ৩৩। 

[16]. বাযলুল মা‘ঊন, পৃঃ ২১৪।

[17]. ছহীহ মুসলিম হা/৭০১১-১৩।

[18]. মুসনাদে আহমাদ ৩২/২৩৩, টীকা দ্রঃ।

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

Back to top button