বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

কৃত্রিম প্রাণ

বিজ্ঞানি মহল নিত্য নিত্য যে সব আবিষ্কারে নিজেরা চমকে যায় তার খুব কমই সায়েন্স আর নেচারের দেয়াল টপকে ‘গণ’মাধ্যমে আসে। কিন্তু যেগুলো আসে তার সিংহভাগেরই লক্ষ্য জনগণকে চমকে দেয়া, বিজ্ঞানমনষ্ক করে তোলা নয়। যুগান্তকারী বৈজ্ঞানিক আবিষ্কারের উদ্দেশ্যপ্রণোদিত সরলীকরণের মাধ্যমে হয় সাধারণ মানুষকে ভয় দেখানো হয় নয়ত অলীক কোন স্বপ্ন – যখন যা লাগে। সিনথেটিক বায়োলজির সর্বশেষ আবিষ্কারের মিডিয়া-হুজুগ সত্য থেকে বহু দূরে নিয়ে যাচ্ছে আমাদের।

সেলেরা জেনোমিক্সের প্রতিষ্ঠাতা ক্রেইগ ভেন্টারের অতীত যাই হোক, তাঁর সাম্প্রতিক কৃতিত্ব তাকে বস্তুবাদী মহলে বেশ সুখ্যাতি এনে দিয়েছে। তিনি সারা পৃথিবীর বড় বড় সরকারদের সম্মিলিত সহযোগিতায় পরিচালিত হিউম্যান জেনোম প্রজেক্টের সাথে পাল্লা দিয়ে সেটার তথ্য ব্যবহার করে মানুষের জেনোম সিকুয়েন্স করেন এবং সেটা বিজ্ঞানিদের ব্যবহারের জন্য দেয়ার বিনিময়ে মোটা অঙ্কের অর্থ দাবী করেছিলেন এটা মানুষ এখনো ভুলে যায়নি।
আমি আবিষ্কার কথাটা ব্যবহার না করে কৃতিত্ব বললাম কারণ “জীবন” তৈরি বহু দূরে থাক, তিনি আসলে নতুন কিছুই আবিষ্কার করেননি। ১৯৭০ সালে আণবিক কাঁচি নামে সমাদৃত রেস্ট্রিকশন এনজাইম (যা দিয়ে ডিএনএ অণু কাটা যায়) আবিষ্কারের পর মূলত জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এর যাত্রা শুরু হয়। সে সময় যা করা হত তা হল দু’টি ভিন্ন উৎস থেকে ডিএনএ অণু নিয়ে রেস্ট্রিকশন এনজাইম দিয়ে কেটে লাইগেস এনজাইম দিয়ে জোড়া লাগিয়ে রিকম্বিনেন্ট ডিএনএ বানিয়ে একটা অণুজীবের ভিতর ঢুকিয়ে দেয়া হত।

সুকুমার রায়ের একটা ছড়াতে হাঁস এর সাথে সজারু মিলিয়ে হাঁসজারু বানানো হয়েছিল। রিকম্বিনেন্ট কথাটা কঠিন শোনা গেলেও এটা আসলে হাঁসজারু ধরণের কিছু। এ কথার মাধ্যমে এমন কোন জীবকে বোঝায় যার ডিএনএ-তে অন্য কোন জীবের ডিএনএ-এর কিছু অংশ জোড়া লাগানো হয়েছে।
রিকম্বিনেন্ট প্রযুক্তির ফলে যে নতুন ব্যাক্টেরিয়া বা অণুজীব পাওয়া যেত তাতে আমাদের কাঙ্খিত কিছু বৈশিষ্ট্য প্রকাশ পেত। যেমন ই. কোলাই ব্যাক্টেরিয়াতে মানুষের ইনসুলিন তৈরির জিন ঢুকিয়ে ইনসুলিন তৈরি করা হয় যা মানবদেহে হুবহু মানুষের ইনসুলিনের মত কাজ করে। ভেন্টার এবার যে কাজটি করেছেন তা হল মাইকোপ্লাজমা মাইকোডেস নামে একটি অণুজীবের পুরো জিনোম (সবগুলো জীনের সমষ্টি) নিয়ে তা কম্পিউটারে একটু পরিবর্তন করে তা দিয়ে ডিএনএ তৈরির যন্ত্রে নতুন একটা জিনোম তৈরি করেছেন। ইতমধ্যে মাইকোপ্লাজমা ক্যাপ্রিকোলাম নামে কাছাকাছি আরেকটি অণুজীবের নিজস্ব জিনোমটিকে সরিয়ে ফেলা হয়। এরপর কৃত্রিমভাবে তৈরি সেই জিনোমটিকে মাইকোপ্লাজমা ক্যাপ্রিকোলাম এর একটি জীবিত কোষে সফলভাবে স্থাপন করা হয়। এর ফলে রিকম্বিনেন্ট কোষটি ‘মাইকোডেস’ ও হয়নি, ‘ক্যাপ্রিকোলাম’ ও হয়নি, হয়েছে নতুন ধরণের একটি কোষ যাকে কৃত্রিম প্রাণ বলে নির্লজ্জভাবে দাবী করা হচ্ছে। অবশ্য ১৫ বছর ধরে ৪০ মিলিওয়ন ডলারের বেশি খরচ করে যা তৈরি করা হয়েছে তা নিয়ে জোর গলায় গান না গাইলে শত কথা হবে। সামনে টাকার জোগাড়ও বন্ধ হয়ে যেতে পারে। আর হিউম্যান জেনোম প্রজেক্টে ভেন্টার যে বদনাম কামাই করেছিলেন, তা কাটানোর এর চেয়ে বড় মওকা আর কি হতে পারে? মজার ব্যাপার হল সারা পৃথিবীর বিজ্ঞানীরা একে টেকনিকাল বেক থ্রু বলেছেন, নতুন তত্ব বা নতুন আবিষ্কার বলেননি। আর ভেন্টার নিজেও কিন্তু শূণ্য থেকে প্রাণ তৈরির বাহাদুরি দাবী করেননি।

আরও দেখুন:  মহাবিস্ময়ের মহাকাশ

ধরা যাক একটা রোবটকে প্রোগ্রাম করা হল এমনভাবে যেন তা সেই রোবটের মত আরো কিছু রোবট তৈরি করতে পারে। নিঃসন্দেহে বিজ্ঞানের জগতে এটা অনেক বড় একটা উন্নতি হিসেবে দেখা হবে কিন্তু একে কি কৃত্রিম প্রাণ বলা যাবে? প্রাণিবিজ্ঞানের যা নিজের সংখ্যাবৃদ্ধি করতে পারে তাই জীব – এ সংজ্ঞানুযায়ী তো তাহলে এই রোবটদেরকেও জীব বলতে হবে এবং সেই জীবের জীবনদাতা প্রথম রোবটটির প্রোগ্রামার। এখন এই প্রোগাম লেখাকে কি কোন সুস্থবুদ্ধির ব্যক্তি জীবনের সৃষ্টি বলতে পারে? এর ফলে কি মানুষকে সৃষ্টিকর্তার স্থানে বসিয়ে দেয়া যাবে? অথবা ধরা যাক স্টেম সেল নিয়ে গবেষণার চূড়ান্ত পর্যায়ে কৃত্রিম হ্রদপিণ্ড তৈরি করে তা একজন মানুষের দেহে যদি সফলভাবে কাজ করানো যায়, তার মানে কি এই যে ডাক্তাররা ঐ মানুষটির প্রাণ সৃষ্টি করেছেন?

উত্তরটা খুব স্বাভাবিকভাবেই – না।

ক্রেগ ভেন্টারকে যখন জিজ্ঞাসা করা হল –

একে কি সংশ্লেষিত প্রাণ বলা যায়?

(Do you consider this to be synthetic life?)

তিনি জবাবে বললেন –

আমরা একে “শূণ্য থেকে জীবন সৃষ্টি” হিসেবে ভাবছিনা বরং আমরা বিদ্যমান জীবন থেকেই নতুন জীবন সৃষ্টি করেছি সংশ্লেষিত ডিএনএ দ্বারা কোষগুলোকে নতুনভাবে প্রোগ্রাম করার মাধ্যমে।

(We do not consider this to be “creating life from scratch” but rather we are creating new life out of existing life using synthetic DNA to reprogram the cells)

তিনি আরো বললেন – আমরা প্রোটিনও কৃত্রিমভাবে তৈরি করিনি, কোষও কৃত্রিমভাবে তৈরি করিনি এগুলো সবই ক্রোমোসোমের নির্দেশনা অনুসারে তৈরি হয়েছে।

(We don’t make the proteins synthetically, we don’t make the cells synthetically, all that is dictated by the chromosome.)

এখন যেহেতু এই ক্রোমোসোমটি কৃত্রিমভাবে তৈরি করা হয়েছে তার ফলে যে জীবিত কোষটিতে ক্রোমোসোমটি ঢোকানো হল তাতে ঐ অণুজীবটির প্রাণ কিভাবে কৃত্রিম হয়? কোন স্থপতি যদি একটি বাড়ির নকশা করে বলেন তিনি ঐ বাড়ির সৃষ্টিকর্তা তাহলে কথাটা যেমন হাস্যকর হয় তেমন এই দাবীটাও হাস্যকর। কারণ বাড়িটি তৈরি করেছে আরো অনেক মানুষ আরো অনেক কিছুর সাহায্য নিয়ে। আর যারা তৈরি করেছে তারাও জানে তারা তৈরি করেছে; শূণ্য থেকে সৃষ্টি করেনি।

আরও দেখুন:  এক টেস্টে শনাক্ত হবে ৮ ধরনের ক্যান্সার

লক্ষণীয়, তিনি মাইকোপ্লাজমা ক্যাপ্রিকোলামের জীবিত কোষ ব্যবহার করেছিলেন, মৃত কোষ না। ফলে একটি জীবনের উদ্ভব হয় আরেকটি জীবন থেকে- উইলিয়াম হার্ভের করা এই তত্ব এখনো টিকেই আছে। তাকে যখন জিজ্ঞাসা করা হল –

প্রাণের এই নতুন রূপটি কি মুক্তজীবি?

(So is this new form of life a replicating, free-living organism?)

তিনি বললেন – এটি মুক্তজীবি শুধু এই অর্থে যে এটি গবেষণাগারে সমৃদ্ধ কালচার মাধ্যমে জন্মাতে পারে, সুতরাং এটি বাইরের পরিবেশে জন্মাতে পারবেনা।

(only it is only free-living in the sense that it grows in the laboratory in a very rich culture media so it wouldn’t survive in the outside environment)

যেই সংশ্লেষিত ক্রোমোসোমের জোরে কৃত্রিম প্রাণের দাবী করা হল সেই ক্রোমোসোম সম্পর্কে মানুষের জ্ঞানের দৌড় কতটুকু তা ভেন্টারের মুখ থেকেই শোনা যাক –

একটা কোষে সবগুলো জিনের কার্যক্রম আমরা জানিনা। আমরা জানিনা জিনগুলো কি করে, কিভাবে করে। তাই গত ১৫ বছর ধরে আমরা পথ খুঁজে ফিরছি যাতে অতি সরল কোষের ক্ষেত্রেও অন্তত এগুলো জানা যায়।

(We do not know all the gene functions in any single cell. We don’t know what they do, we don’t know how they all work so we’ve been trying for 15 years to come up with ways to be able to define that even for simple cells.)

শেষ কথাঃ

যারা “মানুষ কৃত্রিম প্রাণ তৈরি করেছে, তাই খোদা বলতে কিছু নেই” – ধরণের যুক্তি দেখাচ্ছেন তাদের জন্য একটি তথ্যঃ

ভেন্টার বলছেন – এক পর্যায়ে আমরা আবিষ্কার করলাম যে ১০ লক্ষ ডিএনএ বেস পেয়ারের মধ্যে মাত্র একটা ভুল থাকায় প্রাণ আসেনি।

১৯৯৯ সালে “মিনিমাল জেনোম প্রজেক্ট” এর ঘোষণা দিয়ে মিলিওন মিলিওন ডলার খরচ করে ভেন্টার এখনো জানতে পারেননি শুধুমাত্র “জীবন” ধারণ করতে ন্যুনতম কয়টি জীন দরকার। বিশ্বের সবচেয়ে হাই-টেক যন্ত্র-পাতি ব্যবহার করে ১৭ জন বিশ্বখ্যাত বিজ্ঞানীর ১৫ বছরের সাধনার ফলে আসলে যে অর্জন করা হয়েছে তা হল – “একটি জীনোমের তথ্য নকল করে তা কাঁচের বোতলে তৈরি করে আরেকটি জীনোমবিহীন কোষে তা ঢুকিয়ে কোষটিকে বাঁচিয়ে রাখা।”

আরও দেখুন:  প্রাণী নয়, গোশতের যোগান দেবে গবেষণাগার!

বিজ্ঞানের হিসেবে এটি অনেক বড় সাফল্য কিন্তু প্রকৃত স্রষ্টার সাথে পাল্লা দেয়ার দাবীতে এটা নেহায়ত হাস্যকর। আর এই সামান্য কাজ করতে মানুষের যে পরিমাণ পরিকল্পনা, প্রচেষ্টা এবং মেধা ও সম্পদ খরচ করা হয়েছে তাতে এ সত্যটাই চরমভাবে পরিষ্ফুটিত হয় জীবনকে অনেক যত্নে একটি সুনির্দিষ্ট উদ্দেশ্যে সৃষ্টি করা হয়েছে। প্রাকৃতিক উপাদান থেকে অনাকাংখিতভাবে জীবনের উদ্ভব হয়েছে বলে যারা দাবি করেন তারা কিন্তু কখনোই বলবেননা যে ভেণ্টারের দলের এই কৃতিত্ব নেহায়ত আকস্মিক এবং সম্পূর্ণ অপরিকল্পিত। অথচ যে সৃষ্টিজগতের একটি ক্ষুদ্র কোষকে অণুকরণ করতে এত মহাযজ্ঞের প্রয়োজন পড়েছে সে সৃষ্টিজগতের পরিকল্পনাকারী এবং স্রষ্টাকে অস্বীকার করতে এবং সৃষ্টির পিছনে কোন উদ্দেশ্য নেই এমন দাবী করতে হলে একই সাথে দাম্ভিক এবং মূর্খ হতে হয়। আসলে যারা বুদ্ধিমান তারা এই আবিষ্কার দেখে আরেকবার লজ্জায় কুঁকড়ে গেছে – এই সৃষ্টি জগতের বিশালত্ব ও চমৎকারিত্বের সামনে।

জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এর ছাত্র হিসেবে এই প্রযুক্তি আমাকে চমৎকৃত করেছে তা সত্যি। কিন্তু এর সম্ভাব্য অপব্যবহার কল্পনা করে শঙ্কিত হয়েছি আরো বেশি। আর এ বিষয়ে তথাকথিত নাস্তিকদের কিছু লেখা পড়ে লজ্জা পেয়েছি। ধর্ম না জেনে-বুঝে তা নিয়ে কথা বলা, লেখালেখি করার চল অনেক আগেই ছিল। এখন বিজ্ঞান নিয়ে অবৈজ্ঞানিক অধর্মব্যবসায়ীরা বিশেষজ্ঞ মতামত দিচ্ছে – কি দুর্ভাগ্য আমাদের!

(বক্তব্য উদ্ধৃত হয়েছে – এখান থেকে: www.independent.co.uk/news/people/profiles/dr-craig-venter-so-doctor-how-does-it-feel-to-have-created-artificial-life-1978873.html)

– শরীফ আবু হায়াত অপু

১৬/৬/১০

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

২টি মন্তব্য

  1. ভালো লেখা। কিন্তু আপনি যে বিজ্ঞানের বিরুদ্ধে যাচ্ছেন এটা পরিস্কার।
    না, আমি নাস্তিক্যবাদী নই। তবে আপনি বিজ্ঞানিদের কাজ এত তুচ্ছ করে যখন দেখেন তখন কাছ থেকে বিজ্ঞান নিয়ে একটা লিখনি পড়া …….হ্যাঁ, খুবই হাস্যকর (যদি ও আমি হাসছি না) ।
    আপনার লেখা পড়ে এরকম মনে হয় আপনি সব কিছু জেনে গেছেন কিভাবে জীবের সৃ‌ষ্টি, কোথা থেকে আসলো, কিভাবে হচ্ছে। ….আচ্ছা ভালোই তো। আপনি যদি নিজেকে পৃথিবীর সেরা বিজ্ঞানি মনে করেন (যেহেতু আপনি আপনার লিখনিতে অনেক বিজ্ঞানী ও অর্থদাতা সংস্থাকে তুচ্ছ করে দেখিয়েছেন) তাহলে প্রমান করে দেখিয়ে দিন কিভাবে জীবের উতপত্তি এবং বিবর্তন ছাড়া কিভাবে জীবের বিকাশ ঘটেছে)
    —যথেষ্ট । আপনাকে বুদ্দিমান মনে হয়, আশা করি ভাববেন। আমিও ভাববো।

মন্তব্য করুন

Back to top button