বাংলা তাফসীর

১০০. সূরা ‘আদিয়াত -এর তাফসীর

সূরা ‘আদিয়াত

(ঊর্ধ্বশ্বাসে ধাবমান অশ্বসমূহ)

সূরা আছরের পরে মক্কায় অবতীর্ণ।

সূরা ১০০, আয়াত ১১, শব্দ ৪০, বর্ণ ১৬৪।

بِسْمِ اللہِ الرَّحْمٰنِ الرَّحِیْمِ

পরম করুণাময় অসীম দয়ালু আল্ল­াহর নামে (শুরু করছি)

(১) শপথ ঊর্ধ্বশ্বাসে ধাবমান অশ্ব সমূহের,
وَالْعَادِيَاتِ ضَبْحًا
(২) অতঃপর ক্ষুরাঘাতে অগ্নি বিচ্ছুরক অশ্বসমূহের,
فَالْمُورِيَاتِ قَدْحًا
(৩) অতঃপর প্রভাতকালে আক্রমণকারী অশ্ব সমূহের,
فَالْمُغِيرَاتِ صُبْحًا
(৪) যারা সে সময় ধূলি উৎক্ষেপন করে,
فَأَثَرْنَ بِهِ نَقْعًا
(৫) অতঃপর যারা শত্রুদলের অভ্যন্তরে ঢুকে পড়ে।
فَوَسَطْنَ بِهِ جَمْعًا
(৬) নিশ্চয় মানুষ তার পালনকর্তার প্রতি অকৃতজ্ঞ
إِنَّ الْإِنْسَانَ لِرَبِّهِ لَكَنُودٌ
(৭) আর সে নিজেই এ বিষয়ে সাক্ষী।
وَإِنَّهُ عَلَى ذَلِكَ لَشَهِيدٌ
(৮) নিশ্চয়ই সে ধন-সম্পদের মায়ায় অন্ধ।
وَإِنَّهُ لِحُبِّ الْخَيْرِ لَشَدِيدٌ
(৯) সে কি জানে না, যখন কবরে যা আছে তা উত্থিত হবে?
أَفَلَا يَعْلَمُ إِذَا بُعْثِرَ مَا فِي الْقُبُورِ
(১০) এবং বুকের মধ্যে যা লুকানো ছিল সব প্রকাশিত হবে?
وَحُصِّلَ مَا فِي الصُّدُورِ
(১১) নিশ্চয়ই তাদের প্রতিপালক সেদিন তাদের কি হবে সে বিষয়ে সম্যক অবগত।
إِنَّ رَبَّهُمْ بِهِمْ يَوْمَئِذٍ لَخَبِيرٌ

বিষয়বস্ত্ত :

অত্র সূরায় দু’টি বিষয় বর্ণিত হয়েছে। এক- মালিকের প্রতি অনুগত সুদক্ষ সামরিক অশ্বের শপথ করে বলা হয়েছে যে, মানুষ তার পালনকর্তার প্রতি অকৃতজ্ঞ এবং সে ধন-সম্পদের মায়ায় অন্ধ (১-৮ আয়াত)

দুই- মানুষকে এর মন্দ পরিণাম সম্পর্কে সাবধান করা হয়েছে এবং আখেরাতে জওয়াবদিহিতার বিষয়ে সতর্ক করা হয়েছে (৯-১১ আয়াত)

তাফসীর :

আল্লাহ পাক সূরার শুরুতে বর্ণিত পরপর পাঁচটি আয়াতে সুপ্রশিক্ষিত, সুদক্ষ ও মালিকের প্রতি অনুগত সামরিক অশ্বের শত্রুপক্ষের উপরে দুঃসাহসিক হামলাকালীন অবস্থা বর্ণনা করেছেন এবং তাদের শপথ করে বলেছেন যে, মানুষ তার প্রতিপালকের প্রতি একান্তই অকৃতজ্ঞ। অথচ অবলা চতুষ্পদ জন্তু হওয়া সত্ত্বেও সামরিক অশ্বগুলি তাদের মনিবের প্রতি কতই না বিশ্বস্ত ও অনুগত যে, তারা মালিকের হুকুমে জীবন বাজি রেখে শত্রুপক্ষের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। পক্ষান্তরে সৃষ্টিসেরা মানুষ তার সৃষ্টিকর্তা ও পালনকর্তা আল্লাহর হুকুমের প্রতি আনুগত্যশীল নয় এবং তাঁর দেওয়া অনুগ্রহ সমূহের প্রতি কৃতজ্ঞ নয়।

(১) وَالْعَادِيَاتِ ضَبْحاً ‘শপথ ঊর্ধ্বশ্বাসে ধাবমান অশ্ব সমূহের’।

 عدَا يَعْدُو عَدْوًا ‘দৌড়ানো’। সেখান থেকে اسم فاعل (কর্তৃকারক) الْعَادِيَاتِ অর্থ الأفراس تعدو ‘ঐসব অশ্ব যারা দৌড়ায়’।

ضَبَحَتِ الْخَيْلُ ضَبْحًا অর্থ صوتُ أنفاسِهَا إِذَا عَدَتْ ‘ঘোড়ার নিঃশ্বাসের শব্দ যখন সে দৌড়ায়’। ضَبْحًا বাক্যে حال হওয়ার কারণে যবরযুক্ত হয়েছে। অর্থাৎ এটা ঐ সময় হয় যখন ঘোড়া ভীষণ জোরে দৌড়ায়। আত্বা ও ইবনু আববাস (রাঃ) বলেন, ঘোড়া, কুকুর ও শিয়াল ব্যতীত অন্য পশু এরূপ শব্দ করে না (কুরতুবী)। এখানে অর্থ হ’ল যুদ্ধের সময় শত্রুপক্ষের উপরে ভীষণ যোরে অতর্কিত হামলা করার লক্ষ্যে ‘ঊর্ধ্বশ্বাসে ধাবমান অশ্ব সমূহের শপথ’।

(২) فَالْمُوْرِيَاتِ قَدْحًا ‘অতঃপর ক্ষুরাঘাতে অগ্নি বিচ্ছুরক অশ্ব সমূহের’

وَرَى يَرِى وَرْيًا অর্থ إذا خرجت ناره ‘যখন লোহার ঘর্ষণে আগুন বের হয়’। এখানে إِيْرَاءٌ থেকে الْمُوْرِيَاتُ ‘অগ্নি বিচ্ছুরণকারী অশ্বসমূহ’।

قَدْحًا অর্থ الاستخراج ‘বের করা’। যেমন বলা হয়, قَدَحْتُ الْعَيْنَ ‘আমি চক্ষু পরিস্কার করেছি’। অর্থ إذا اخرجت منها الماء الفاسد ‘যখন চোখ থেকে মন্দ পানি বের করা হয়’। এখানে অর্থ হবে ‘লোহার ঘর্ষণে আগুন বের করা’। এক্ষণে فَالْمُوْرِيَاتِ قَدْحاً অর্থ ইকরিমা, আত্বা, যাহহাক প্রমুখ বিদ্বান বলেন, هى الخيل حين تُورِى النارَ بحوافرها ‘ঐসব ঘোড়া (যখন প্রস্তরময় ভূমিতে লৌহনাল পরিহিত অবস্থায় প্রচন্ডবেগে দৌড়ায়, তখন) যারা তাদের পায়ের ক্ষুরসমূহ থেকে অগ্নিস্ফুলিঙ্গ বের করে’ (কুরতুবী)।

(৩) فَالْمُغِيْرَاتِ صُبْحاً ‘অতঃপর প্রভাতকালে আক্রমণকারী অশ্ব সমূহের’

أَغَارَ يُغِيْرُ إغارةً، أغارَ على العدوِّ إذا هجم عليه- ‘ হামলা করা’। এখানে অর্থ الخيلُ تُغِير على العدو عند الصبح ‘ঐসব ঘোড়া যারা প্রভাতকালে শত্রুদের উপরে হামলা করে’। صُبْحاً বাক্যে حال হওয়ার কারণে যবরযুক্ত হয়েছে। আরবদের মধ্যে সাধারণতঃ প্রভাতকালে শত্রুর উপরে আক্রমণ করার নিয়ম ছিল। যেমন কাফেরদের উদ্দেশ্যে আল্লাহ বলেন, فَإِذَا نَزَلَ بِسَاحَتِهِمْ فَسَاءَ صَبَاحُ الْمُنْذَرِيْنَ- ‘অতঃপর যখন তাদের আঙিনায় আযাব নাযিল হবে, তখন যাদেরকে সতর্ক করা হয়েছিল, তাদের সকাল বেলাটা হবে খুবই মন্দ’ (ছাফফাত ৩৭/১৭৭)।

(৪) فَأَثَرْنَ بِهِ نَقْعاً ‘যারা সে সময় ধূলি উৎক্ষেপণ করে’।

أثَارَ يُثِيْرُ إثارةً অর্থ ‘উড়ানো’। نَقْعاً অর্থ ‘ধূলি’। بِهِ অর্থ بالعَدْو ‘দৌড়ের সাথে’। অর্থাৎ الخيلُ ةثير الغُبارَ بشدة العَدْو فى المكان الذى أغارت به ‘তীব্র বেগে হামলার কারণে আক্রমণস্থলে ঘোড়া ধূলি উৎক্ষেপণ করে’। আক্রমণস্থল বলতে طريق الوادى হ’তে পারে, যে পথে ধাবিত হয়ে শত্রুদলকে আক্রমণ করা হয়’ (কুরতুবী)। অর্থাৎ দৌড়ের বা যুদ্ধের তীব্রতার কারণে সকালে ঠান্ডা আবহাওয়াতেও আকাশে ধূলি উৎক্ষিপ্ত হয়।

(৫) فَوَسَطْنَ بِهِ جَمْعاً ‘অতঃপর যারা শত্রুদলের অভ্যন্তরে ঢুকে পড়ে’।

وَسْطٌ অর্থ ‘মধ্যখান’ جَمْعٌ অর্থ ‘দল’। এখানে جموعًا من الأعداء ‘বিপক্ষীয় সেনাদল’। جَمْعًا বাক্যে مفعول به হয়েছে। এক্ষণে فَوَسَطْنَ بِهِ جَمْعًا অর্থ فوسطن بركبانهن العدو ‘আরোহীদের নিয়ে তারা শত্রুদলের অভ্যন্তরভাগে ঢুকে পড়ে’ (কুরতুবী)

উপরোক্ত পাঁচটি আয়াতে আল্লাহ পাক সুদক্ষ ও দুঃসাহসী সামরিক অশ্বের যে বৈশিষ্ট্যগুলি বর্ণনা করেছেন, তা একত্রিত করে নিম্নরূপে বলা যায় :

‘শপথ ঐ অশ্বসমূহের, ভীষণ বেগে দৌড়ানোর সময় যাদের ক্ষুরাঘাতে অগ্নি বিচ্ছুরিত হয় এবং প্রভাতকালে হামলা করে শত্রুব্যুহের অভ্যন্তরে ঢুকে পড়ে। এ সময় ঘনঘোর যুদ্ধের কারণে সকালের ঠান্ডা আবহাওয়াতেও আকাশে ধূলি উৎক্ষিপ্ত হয়’।

আরও দেখুন:  ৯৫. সূরা তীন -এর তাফসীর

বস্ত্ততঃ ঘোড়ার পুরাটাই বান্দার জন্য কল্যাণকর। যেমন রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) বলেন, الْخَيْلُ مَعْقُودٌ فِى نَوَاصِيهَا الْخَيْرُ إِلَى يَوْمِ الْقِيَامَةِ ‘ঘোড়ার কপালকে কল্যাণ দ্বারা চিহ্নিত করা হয়েছে ক্বিয়ামত দিবস পর্যন্ত’।[1]

(৬) إِنَّ الْإِنْسَانَ لِرَبِّهِ لَكَنُوْدٌ ‘নিশ্চয় মানুষ তার পালনকর্তার প্রতি অকৃতজ্ঞ’।

الإِنْسَانَ দ্বারা ‘মানবজাতি’ বুঝানো হয়েছে। যা সমষ্টিবাচক এবং মর্মগত দিক দিয়ে বহুবচন। কিন্তু শব্দগতভাবে একবচন হওয়ায় لِرَبِّهِ (‘তার পালনকর্তার প্রতি’) বলে একবচনের সর্বনাম আনা হয়েছে। এটি উপরে বর্ণিত শপথগুলির জওয়াব (جواب القسم) হিসাবে এসেছে। অর্থাৎ মনিবের প্রতি অনুগত সুদক্ষ যুদ্ধাশ্বের শপথ করে বলছি, নিশ্চয়ই মানুষ তার মালিকের প্রতি অকৃতজ্ঞ। অতএব অবাধ্য হওয়াটাই যেন মানুষের স্বভাব। যেমন অন্যত্র আল্লাহ বলেন, إِنَّ الْإِنْسَانَ خُلِقَ هَلُوْعاً، إِذَا مَسَّهُ الشَّرُّ جَزُوْعاً، وَإِذَا مَسَّهُ الْخَيْرُ مَنُوْعاً ‘মানুষকে সৃষ্টি করা হয়েছে ভীরুরূপে’। ‘যখন তাকে মন্দ স্পর্শ করে, তখন সে দিশেহারা হয়ে পড়ে’। ‘আর যখন তাকে কল্যাণ স্পর্শ করে, তখন সে কৃপণ হয়’ (মা‘আরেজ ৭০/১৯-২১)।

প্রশ্ন হ’তে পারে যে, মানুষকে যখন দোষযুক্ত করেই সৃষ্টি করা হয়েছে, তখন সে দোষ করলে তাকে দোষী বলা হবে কেন? জওয়াব এই যে, এখানে মানব স্বভাবে নিহিত মন্দ উপকরণটার কথাই কেবল বলা হয়েছে। কিন্ত ভাল উপকরণটার কথা বলা হয়নি, যা পরেই বর্ণিত হয়েছে। যেমন, إِلاَّ الْمُصَلِّيْنَ، الَّذِيْنَ هُمْ عَلَى صَلاَتِهِمْ دَائِمُوْنَ، وَالَّذِيْنَ فِيْ أَمْوَالِهِمْ حَقٌّ مَّعْلُومٌ، لِّلسَّائِلِ وَالْمَحْرُوْمِ، وَالَّذِيْنَ يُصَدِّقُوْنَ بِيَوْمِ الدِّيْنِ، وَالَّذِيْنَ هُمْ مِّنْ عَذَابِ رَبِّهِم مُّشْفِقُوْنَ ‘তবে মুছল্লীগণ (মুমিনগণ) ব্যতীত’। ‘যারা নিয়মিতভাবে ছালাত আদায় করে’। ‘যাদের ধন-সম্পদে নির্ধারিত হক রয়েছে,’ ‘প্রার্থী ও বঞ্চিতদের জন্য’। ‘যারা বিচার দিবসকে সত্য বলে বিশ্বাস করে’। ‘যারা তাদের প্রতিপালকের  শাস্তির ভয়ে ভীত থাকে’ (মা‘আরেজ ৭০/২২-২৭)। এভাবে ২৩ থেকে ৩৪ আয়াত পর্যন্ত মুমিনের ৯টি গুণ ও বৈশিষ্ট্য বর্ণনা করা হয়েছে। তার পরে মুমিনদের উত্তম প্রতিদান ও কাফেরদের মন্দ পরিণতির কথা বর্ণিত হয়েছে। এতে বুঝানো হয়েছে যে, মানুষের স্বভাবে ভাল ও মন্দ দু’টি দিক রয়েছে। উভয় প্রবণতাকে মানুষের ইচ্ছাধীন করে দেয়া হয়েছে। যেমন আল্লাহ বলেন, إِنَّا هَدَيْنَاهُ السَّبِيْلَ إِمَّا شَاكِراً وَّإِمَّا كَفُوْراً ‘আমরা তাকে সুপথ প্রদর্শন করেছি। এক্ষণে সে কৃতজ্ঞ হ’তে পারে কিংবা অকৃতজ্ঞ হ’তে পারে’ (দাহর ৭৬/৩)

অতএব মানুষের স্বভাবে জন্মগতভাবে অকৃতজ্ঞতার বীজ লুকানো থাকলেও তাকে অকৃতজ্ঞ হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়নি বা এজন্য তাকে বাধ্য করা হয়নি। সে দোষী তখনই হবে, যখন সে স্বেচ্ছায় দোষ করবে। মূলতঃ এর মধ্যেই রয়েছে মানুষের দেওয়া জ্ঞানের পরীক্ষা। আল্লাহর দেখানো পথে যার সঠিক ব্যবহারের উপরেই তার জন্য দুনিয়া ও আখেরাতে কল্যাণ নির্ধারিত হবে। আর তার বিপরীত হ’লে উভয় জগতে রয়েছে গ্লানিকর পরিণতি।

হযরত আব্দুল্লাহ ইবনু আববাস (রাঃ) বলেন, আলোচ্য আয়াতে ‘ইনসান’ (الإنسان) বলতে ‘কাফের’ বুঝানো হয়েছে এবং كَنُوْدٌ অর্থ كَفور ‘অকৃতজ্ঞ’ (কুরতুবী)। কেননা প্রকৃত মুমিন ব্যক্তি কখনোই আল্লাহর প্রতি অকৃতজ্ঞ হয় না। যাহহাক বলেন, আয়াতটি মক্কার ধনশালী কাফের নেতা অলীদ বিন মুগীরাহ সম্পর্কে নাযিল হয়েছে’। তবে বক্তব্য সকল যুগের সকল অকৃতজ্ঞ মানুষের জন্য প্রযোজ্য।

كَنَدَ يَكْنِدُ كَنُوْدًا অর্থ كفر النعمة وجحدها ‘নে‘মতকে প্রত্যাখ্যান করা ও অস্বীকার করা’। كَنُوْدٌ শব্দটি পুরুষ ও স্ত্রী উভয়ের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়। الأرضُ الْكَنُوْدُ অর্থ ঐ মাটি, যাতে কিছুই উৎপন্ন হয় না’ (কুরতুবী)। অনুরূপভাবে কাফের ও অকৃতজ্ঞ ব্যক্তির নিকট থেকে ভাল কিছুই আশা করা যায় না।

ইবনু আববাস (রাঃ) বলেন, কিন্দা ও হাযরামাউতের অধিবাসীদের পরিভাষায় كَنُوْدٌ অর্থ عاصى ‘পাপী’। রাবী‘আ ও মুযার গোত্রের পরিভাষায় كَفُوْرُ ‘অকৃতজ্ঞ’। কেনানাহ গোত্রের পরিভাষায় الْبَخِيْلُ السَّيِّئُ الْمَلَكَةِ ‘কৃপণ ও কু-স্বভাবের অধিকারী ব্যক্তি’। অতঃপর বলা হয়েছে যে, ‘কানূদ’ ঐ ব্যক্তিকে বলে هو الذى يكفر اليسير ولا يشكر الكثير ‘যে ব্যক্তি ছোট বিষয়কে অস্বীকার করে এবং বড় বিষয়ে কৃতজ্ঞতা স্বীকার করে না’। তিরমিযী বলেন, الذى يرى النعمة ولا يرى المنعم ‘যে ব্যক্তি অনুগ্রহ দেখে, অথচ অনুগ্রহকারীকে দেখে না’। আবুবকর আল-ওয়াসেত্বী বলেন, الذى ينفق نعم الله فى معاصى الله ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর দেওয়া নে‘মতসমূহকে আল্লাহর অবাধ্যতায় ব্যয় করে’ (কুরতুবী)। হাসান বাছরী বলেন, الذى يعد المصائب وينسى نعم ربه ‘যে ব্যক্তি কষ্টগুলিই কেবল গণনা করে, অথচ তার প্রভুর দেওয়া নে‘মতসমূহকে ভুলে যায়’ (ইবনু কাছীর)।

উপরে বর্ণিত সব বক্তব্যই একটি কথায় মূলীভূত হয়েছে, আর তা হ’ল, الْجُحُوْدُ وَالْكُفْرَانُ ‘আল্লাহর নে‘মতসমূহকে অস্বীকার ও তাঁর প্রতি অকৃতজ্ঞতা’। আর এটাই হ’ল ‘কানূদ’ ব্যক্তির মূল বৈশিষ্ট্য। যা আল্লাহ শপথ করে বর্ণনা করেছেন।

(৭) وَإِنَّهُ عَلَى ذَلِكَ لَشَهِيْدٌ ‘এবং সে নিজেই এ বিষয়ে সাক্ষী’।

অর্থাৎ মানুষ যে আল্লাহর প্রতি অকৃতজ্ঞ, তার কথা ও কর্মই তার জ্বলন্ত সাক্ষী। আর সে নিজেই এ বিষয়ে ভালভাবে অবহিত। তবে অনেক বিদ্বান وَإِنَّهُ -এর সর্বনামকে আল্লাহর দিকে রুজু বলেছেন। যার অর্থ হবে ‘এবং আল্লাহ তার ব্যাপারে অবশ্যই অবগত’। দু’টি অর্থই প্রযোজ্য। অর্থাৎ বান্দা নিজেও যেমন তার নিজের অকৃতজ্ঞতা সম্পর্কে অবহিত, আল্লাহ তেমনি সম্যক অবগত। যেমন আল্লাহ অন্যত্র বলেছেন, مَا كَانَ لِلْمُشْرِكِيْنَ أَنْ يَّعْمُرُوْا مَسَاجِدَ الله شَاهِدِيْنَ عَلَى أَنفُسِهِمْ بِالْكُفْرِ- ‘আল্লাহর মসজিদসমূহ আবাদ করার যোগ্যতা মুশরিকদের নেই, যখন তারা নিজেরাই নিজেদের কুফরীর উপরে সাক্ষী …’ (তওবা ৯/১১)। অর্থাৎ মানুষ যে আল্লাহর হাযারো অনুগ্রহ লাভের পরেও তার প্রতি অকৃতজ্ঞ ও অবাধ্য, তার কথা ও কর্মই তার বড় সাক্ষী। আল্লাহ বলেন, يَوْمَ تَشْهَدُ عَلَيْهِمْ أَلْسِنَتُهُمْ وَأَيْدِيهِمْ وَأَرْجُلُهُمْ بِمَا كَانُوا يَعْمَلُوْنَ ‘যেদিন তাদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিবে তাদের যবান, তাদের হাত ও তাদের পা তাদের কৃতকর্ম সম্পর্কে’ (নূর ২৪/২৪)। এ ব্যাপারে বান্দা যেমন সাক্ষী, আল্লাহ তেমনি সাক্ষী।

আরও দেখুন:  ৮৩. সূরা মুত্বাফফেফীন -এর তাফসীর

(৮) وَإِنَّهُ لِحُبِّ الْخَيْرِ لَشَدِيْدٌ ‘নিশ্চয়ই সে ধন-সম্পদের মায়ায় অন্ধ’।

ইবনু কাছীর বলেন, এর দু’টি অর্থ হ’তে পারে। এক- সে ধনলিপ্সায় অন্ধ। দুই- ধনলিপ্সার কারণে সে প্রচন্ড কৃপণ’ (ইবনু কাছীর)

الْخَيْر অর্থ المال ‘সম্পদ’। যেমন আল্লাহ বলেন, كُتِبَ عَلَيْكُمْ إِذَا حَضَرَ أَحَدَكُمُ الْمَوْتُ إِنْ تَرَكَ خَيْرًا الْوَصِيَّةُ لِلْوَالِدَيْنِ وَالْأَقْرَبِيْنَ بِالْمَعْرُوْفِ حَقًّا عَلَى الْمُتَّقِيْنَ ‘যখন তোমাদের কারু মৃত্যু হাযির হয়, তখন সে যদি মাল-সম্পদ ছেড়ে যায়, তাহ’লে তার পিতা-মাতা ও নিকটাত্মীয়দের জন্য বৈধভাবে অছিয়ত করা তোমাদের জন্য বিধিবদ্ধ করা হ’ল’ (বাক্বারাহ ২/১৮০)। কাফের-মুশরিকরা ধন-সম্পদকেই خَيْرٌ বা ভাল এবং যুদ্ধ-বিগ্রহকে سُوْءٌ বা মন্দ বলে অভিহিত করত (কুরতুবী)। যেমন ওহোদ যুদ্ধে সাময়িক বিপর্যয়ের পর মুনাফিকরা যখন মুমিনদের প্রতি ইঙ্গিত করে বলতে থাকে যে, لَوْ أَطَاعُوْنَا مَا قُتِلُوْا যদি তারা আমাদের সঙ্গে পিছনে ফিরে আসত, তাহ’লে তারা নিহত হ’ত না’ (আলে ইমরান ৩/১৬৮)। এমতাবস্থায় যুদ্ধ শেষে মদীনায় প্রত্যাবর্তনের পর যখন জানা গেল যে, কাফের বাহিনী পুনরায় মদীনার উপর চড়াও হওয়ার জন্য আসছে, তখন যুদ্ধক্লান্ত আহত ছাহাবীদের নিয়ে আল্লাহর রাসূল (ছাঃ) পরদিন সকালেই কাফেরদের মুকাবিলায় বেরিয়ে পড়েন এবং মদীনা থেকে ৮ মাইল দূরে ‘হামরাউল আসাদ’ নামক স্থানে গিয়ে তিনদিন অবস্থান করেন। কাফের বাহিনীর নেতা আবু সুফিয়ান এ খবর জানতে পেরে ভয়ে মক্কায় পালিয়ে যায়। মুসলিম বাহিনী নিরাপদে মদীনায় ফিরে আসে। এ ঘটনা বর্ণনা করে আল্লাহ বলেন, فَانْقَلَبُوْا بِنِعْمَةٍ مِّنَ اللهِ وَفَضْلٍ لَّمْ يَمْسَسْهُمْ سُوْءٌ ‘অতঃপর মুসলমানেরা ফিরে এলো আল্লাহর অনুগ্রহ ও কল্যাণ নিয়ে। কোনরূপ যুদ্ধ তাদের স্পর্শ করেনি…’ (আলে ইমরান ৩/১৭৪)।

আলোচ্য আয়াতে আল্লাহ কাফেরদের কথা অনুযায়ী মাল-কে ‘খায়ের’ বা ভাল বলে উল্লেখ করেছেন। যদিও ‘মাল’ মন্দ হয় ও হারাম হয়। পক্ষান্তরে ‘জিহাদ’ যা কেবল আল্লাহর জন্য হয়, তা সর্বদা কল্যাণকর হয়। কাফির-মুনাফিক ও বস্ত্তবাদীদের মূল লক্ষ্য থাকে মাল উপার্জন। পক্ষান্তরে মুমিনদের লক্ষ্য থাকে মাল ব্যয় করে আখেরাত অর্জন। বস্ত্তবাদীরা মালের প্রতি হয় প্রচন্ড আসক্ত ও দারুন কৃপণ। পক্ষান্তরে মুমিনরা মালকে আল্লাহর রাহে ব্যয় করার প্রতি থাকে সর্বদা আগ্রহশীল ও উদার।

আয়াতের শেষে বর্ণিত لَشَدِيْدٌ অর্থ لَقَوِيٌّ فِي حُبِّهِ لِلْمَالِ ‘মালের আসক্তিতে কঠোর’ অথবা لَبَخِيْلٌ ‘প্রচন্ড কৃপণ’ (কুরতুবী)।

(৯) أَفَلاَ يَعْلَمُ إِذَا بُعْثِرَ مَا فِيْ الْقُبُوْرِ ‘সে কি জানে না, যখন কবরে যা আছে তা উত্থিত হবে’। অর্থ أفلا يعلم الإنسان ‘মানুষ কি জানেনা? أَفَلاَ অর্থ ألاَ এখানে فاء ‘অতিরিক্ত’ আনা হয়েছে প্রশ্নকে যোরদার করার জন্য এবং বক্তব্যকে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য (استفهام تقريري)। এক্ষণে অর্থ হবে ‘তবে কি মানুষ জানে না? সে কি তার স্বাভাবিক জ্ঞান দিয়ে বুঝতে পারে না? সে যেভাবে ঘুম থেকে জেগে ওঠে, অনুরূপভাবে সে কি তার কবর থেকে জেগে উঠবে না?

أَفَلاَ يَعْلَمُ অর্থ أَفَلاَ يَتَيَقَّنُ ‘সে কি দৃঢ় বিশ্বাস রাখে না’? এখানে একবচন দ্বারা ‘আদম  সন্তান’ (ابن آدم) অথবা ‘মানুষ’ (الإنسان) বুঝানো হয়েছে।

بَعْثَرَ يُبَعْثِرُ بَعْثَرَةً অর্থ قَلَبَ ‘উলট-পালট করা’। جَعَلَ أَسْفَلَهُ أَعْلاَهُ ‘নীচের অংশ উপরে উঠানো’। এখানে بُعْثِرَ অর্থ نُشِرَ، قُلِبَ উত্থিত হওয়া। যেমন আল্লাহ পুনরুত্থান সম্পর্কে উদাহরণ দিয়ে বলেন, وَاللهُ الَّذِي أَرْسَلَ الرِّيَاحَ فَتُثِيرُ سَحَابًا فَسُقْنَاهُ إِلَى بَلَدٍ مَيِّتٍ فَأَحْيَيْنَا بِهِ الْأَرْضَ بَعْدَ مَوْتِهَا كَذَلِكَ النُّشُوْرُ ‘আল্লাহই বায়ু প্রেরণ করে তার দ্বারা মেঘমালা সঞ্চালিত করেন। অতঃপর তার মাধ্যমে আমরা মৃত যমীনকে জীবিত করি ওর মৃত্যুর পর। (আর) পুনরুত্থান এভাবেই হবে’ (ফাত্বির ৩৫/৯)। সেটা কিভাবে হবে? সে বিষয়ে আল্লাহ বলেন, وَنُفِخَ فِي الصُّوْرِ فَإِذَا هُمْ مِنَ الْأَجْدَاثِ إِلَى رَبِّهِمْ يَنْسِلُوْنَ ‘যখন শিঙ্গায় ফুঁক দেওয়া হবে, তখনই তারা কবর থেকে উঠে তাদের প্রতিপালকের দিকে ছুটে আসবে’ (ইয়াসীন ৩৬/৫১)। পূর্বের আয়াতগুলিতে মানুষের অকৃতজ্ঞতা ও প্রচন্ড ধনলিপ্সার কথা বর্ণনার পর এখানে মানুষকে দুনিয়াত্যাগ ও আখেরাতে জওয়াবদিহিতার বিষয়ে সতর্ক করে দিয়ে আল্লাহ বলছেন, বনু আদম কি জানে না যে, তাকে কবর থেকে পুনরুত্থিত হ’তে হবে? এর মাধ্যমে ক্বিয়ামত যে অবশ্যম্ভাবী, সেকথা বুঝানো হয়েছে।

(১০) وَحُصِّلَ مَا فِي الصُّدُوْرِ ‘এবং বুকের মধ্যে যা লুকানো ছিল সব প্রকাশিত হবে’।

حُصِّلَ অর্থ ইবনু আববাস (রাঃ) বলেন, اُبْرِزَ ‘প্রকাশিত হবে’ (কুরতুবী)

ইবনু আববাস (রাঃ) ও অন্যান্য বিদ্বানগণ বলেন, তাদের অন্তরে যেসব বিষয় লুকানো ছিল, সেদিন সব প্রকাশিত হবে’ (ইবনু কাছীর)। মানুষের বাহ্যিক দিকটাই দুনিয়াতে প্রকাশিত হয়ে থাকে। এমনকি মুনাফিকও খাঁটি মুসলিমের মত আচরণ করে। কিন্তু আখেরাতে মানুষের মনের খবর সব প্রকাশ পেয়ে যাবে। আর তার উপরেই তার কর্মফল নির্ধারিত হবে। যেমন আল্লাহ বলেন, يَوْمَ تُبْلَى السَّرَائِرُ، فَمَا لَهُ مِنْ قُوَّةٍ وَلاَ نَاصِرٍ ‘যেদিন গোপন বিষয় সমূহ পরীক্ষিত হবে’। ‘সেদিন তার কোন শক্তি থাকবে না এবং সাহায্যকারীও থাকবে না’ (তারিক্ব ৮৬/৯-১০)। ৯ আয়াতে বলা হয়েছে কবরে যা ছিল সব উত্থিত হবে এবং ১০ আয়াতে বলা হয়েছে বুকের মধ্যে যা লুকানো ছিল, সব প্রকাশিত হবে, দু’টি আয়াতের মধ্যে সামঞ্জস্য খুবই স্পষ্ট।

আরও দেখুন:  ৮০. সূরা ‘আবাসা -এর তাফসীর

(১১) إِنَّ رَبَّهُمْ بِهِمْ يَوْمَئِذٍ لَّخَبِيْرٌ ‘নিশ্চয়ই তাদের প্রতিপালক সেদিন তাদের কি হবে, সে বিষয়ে সম্যক অবগত’।

ইতিপূর্বে ৯ আয়াতে أَفَلاَ يَعْلَمُ ‘(সে কি জানেনা?) একবচন ব্যবহার করা হয়েছে। এখানে رَبَّهُمْ (তাদের প্রতিপালক) বলে বহুবচন ব্যবহার করা হয়েছে ৬ আয়াতে বর্ণিত إِنَّ الْإِنْسَانَ (‘মানুষ’)-এর প্রতি লক্ষ্য রেখে। কেননা ‘মানুষ’ বলে মানবজাতি বুঝানো হয়েছে, যা সমষ্টির অর্থ দেয়। يَوْمَئِذٍ অর্থ يَوْمُ الْحِسَابِ وَالْجَزَاءِ ‘হিসাব ও প্রতিদান দিবস’।

يَوْمَئِذٍ এর عامل হ’ল لَخَبِيْرٌ অর্থাৎ اِنَّهُ خَبِيْرٌ يَوْمَئِذٍ ‘তিনি ঐ দিন সম্পর্কে সম্যক অবগত’। বস্ত্ততঃ يَوْمَئِذٍ، حِيْنَئِذٍ، بَعْدَإِذٍ প্রভৃতি কালবোধক যৌগিক শব্দগুলি সর্বদা উহ্য عامل -এর معمول হিসাবে আসে এবং সর্বদা যবরযুক্ত (مبنى على الفتح) হয়ে থাকে।

خَبِيْرٌ অর্থ عالم بأسرارهم وضمائرهم وأعمالهم ‘তাদের সকল গোপন ও অন্তরের বিষয় সমূহ এবং তাদের কর্মসমূহ সম্পর্কে অবগত’। ইমাম রাযী বলেন, হৃদয়ের কর্মসমূহকে খাছ করার কারণ হ’ল এই যে, দৈহিক কর্মসমূহ (أعمال الجوارح) হৃদয়ের কর্মসমূহের (أعمال القلوب) অনুগামী। সেজন্য আল্লাহ অন্তরকে সকল মন্দের উৎস (آثِمٌ قَلْبُهُ -বাক্বারাহ ২/২৮৩) এবং সকল ভাল-র উৎস (وَجِلَتْ قُلُوبُهُمْ -আনফাল ৮/২; হজ্জ ২২/৩৫) বলে গণ্য করেছেন’ (ক্বাসেমী)

বস্ত্ততঃ لَخَبِيْرٌ বলার মাধ্যমে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, আল্লাহ বান্দার গোপন ও প্রকাশ্য সকল বিষয় জানেন। সেই সাথে প্রচ্ছন্ন হুমকি রয়েছে এ ব্যাপারে যে, তিনি তার যথার্থ প্রতিফল দান করবেন। কারু প্রতি সামান্যতম যুলুম করা হবে না। আল্লাহ সকল দিনেরই খবর রাখেন। কিন্তু এখানে يَوْمَئِذٍ বলে ঐদিনকে খাছ করার কারণ হ’ল এই যে, সেদিন সকলকে বিচার শেষে বদলা দেওয়া হবে। ঐ দিনের জ্ঞান রাখার বিষয়টির গুরুত্ব বুঝানোর জন্য এখানে ظرف হওয়া সত্ত্বেও يَوْمَئِذٍ -কে আগে আনা হয়েছে। এছাড়া বাক্যালংকারের বিষয়টি তো আছেই।

শায়েখ তানতাভী জাওহারী বলেন, প্রত্যেক শপথ ও শপথকৃত বস্ত্তর মধ্যে একটা গভীর সম্পর্ক থাকে। যেমন আল্লাহ সূর্য, চন্দ্র, নক্ষত্র, দিবস, রাত্রি প্রভৃতির শপথ করেছেন নিজের একত্ববাদ ও পুনরুত্থান দিবসের প্রমাণ উপস্থাপনের জন্য। এক্ষণে অত্র সূরায় যুদ্ধাশ্বের শপথ করার সাথে ঐ দুইয়ের কি সম্পর্ক?

জেনে রাখা আবশ্যক যে, এখানে ‘জিহাদ’ সম্পর্কে বর্ণিত হয়েছে। আর সাধারণতঃ জিহাদে বিজয়ের সাথে সাথে আসে প্রচুর গণীমত বা যুদ্ধলব্ধ সম্পদ। যা পেয়ে বিজয়ী দল উল্লসিত হয় ও অনেক সময় সীমা লংঘন করে। এদিকে ইঙ্গিত করেই আল্লাহর রাসূল (ছাঃ) বলেছেন, إِنِّى مِمَّا أَخَافُ عَلَيْكُمْ مِنْ بَعْدِى مَا يُفْتَحُ عَلَيْكُمْ مِنْ زَهْرَةِ الدُّنْيَا وَزِينَتِهَا ‘আমি আমার পরে তোমাদের ব্যাপারে সবচেয়ে বেশী ভয় করি তোমাদের উপরে দুনিয়াবী জৌলুস বিজয়ী হওয়ার ব্যাপারে’।[2] অন্য হাদীছে তিনি বলেন, إِنَّ الدُّنْيَا حُلْوَةٌ خَضِرَةٌ وَإِنَّ اللهَ مُسْتَخْلِفُكُمْ فِيهَا فَيَنْظُرُ كَيْفَ تَعْمَلُونَ ‘নিশ্চয় দুনিয়াটা হ’ল লোভনীয় এবং সুজলা-সুফলা বস্ত্ত। আল্লাহ তোমাদেরকে এখানে প্রতিনিধি নিয়োগ করেছেন। অতঃপর তিনি দেখছেন তোমরা কেমন কাজ কর’।[3] আল্লাহর রহমতে মুসলমানেরা যুদ্ধ করেছে, বিজয় লাভ করেছে, দুনিয়ার উপরে শাসন চালিয়েছে। ধনৈশ্বর্যে ও জ্ঞান-বিজ্ঞানে বিশ্বের নেতৃত্ব দিয়েছে’ (তাফসীর তানতাভী)। রাসূল (ছাঃ)-এর মাদানী জীবনে যার সূচনা হয়েছিল এবং খলীফাদের যুগে তারা বিশ্বনেতৃত্ব লাভে ধন্য হয়েছিল।

সূরাটি মক্কায় নাযিল হয়। যখন মুসলমানরা ছিল নির্যাতিত ও বিতাড়িত। যুদ্ধাশ্ব বা যুদ্ধের অনুমতি তাদের ছিল না। অথচ সেই সময় আল্লাহ এই সূরা নাযিল করে মুসলমানদেরকে সুন্দর ভবিষ্যতের আশ্বাসবাণী শুনিয়েছেন। সূরার শুরুতে যুদ্ধাশ্বের শপথ করে আল্লাহ বলতে চেয়েছেন যে, সেদিনের যুদ্ধাশ্বের ন্যায় আগামী দিনে যেন মুসলমান রাজনৈতিক ও সামরিক ক্ষমতা লাভে প্রয়াসী হয়। অতঃপর মুসলমান যদি বস্ত্তগত শক্তি লাভ করে, তাহ’লে তারা যেন নিরেট বস্ত্তবাদীদের মত অকৃতজ্ঞ ও ধনলিপ্সু জাতিতে পরিণত না হয়। বরং সর্বাবস্থায় আখেরাতে মুক্তি লাভ ও সেখানে জওয়াবদিহিতার ব্যাপারে সতর্ক থাকে এবং দুনিয়াকে আখেরাত লাভের মাধ্যম হিসাবে ব্যবহার করে।

যুদ্ধাশ্বের শপথের মাধ্যমে আল্লাহ্ মুসলমানদেরকে সামরিক ও বস্ত্তগত ক্ষমতা অর্জনের প্রতি উৎসাহিত করেছেন। যেমন রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) বলেন, الْمُؤْمِنُ الْقَوِىُّ خَيْرٌ وَأَحَبُّ إِلَى اللهِ مِنَ الْمُؤْمِنِ الضَّعِيْفِ ‘শক্তিশালী মুমিন আল্লাহর নিকট উত্তম ও অধিকতর প্রিয় দুর্বল মুমিনের চাইতে’।[4]

সারকথা :

সামরিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক ক্ষমতার শীর্ষে আরোহণ করার পরেও মানুষকে অবশেষে কবরে আশ্রয় নিতে হবে। অতঃপর পরকালে সবকিছুর জওয়াবদিহি করতে হবে। এ বিষয়ে কঠোর সতর্কবাণী উচ্চারণ করা হয়েছে অত্র সূরাতে।

 


[1]. বুখারী হা/২৮৫০ ‘জিহাদ’ অধ্যায়।

[2]. বুখারী হা/১৪৬৫, মুসলিম হা/১০৫২, মিশকাত হা/৫১৬২ ‘রিক্বাক্ব’ অধ্যায়।

[3]. মুসলিম হা/২৭৪২, মিশকাত হা/৩০৮৬ ‘বিবাহ’ অধ্যায়।

[4]. মুসলিম হা/২৬৬৪; মিশকাত হা/৫২৯৮ ‘রিক্বাক্ব’ অধ্যায়, অনুচ্ছেদ-৪।

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

Back to top button